রবিবার ১১ এপ্রিল ২০২১
Online Edition

৭ কলেজের শিক্ষার্থীদের ৫ দফা দাবি অবিলম্বে মেনে নেয়ার আহ্বান

স্টাফ রিপোর্টার : ৫ দফা দাবিসহ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অধিভুক্ত সাত কলেজের সকল সমস্যার একটা কার্যকর সমাধানের দাবীতে গত বৃহস্পতিবার সাত কলেজের সাধারণ শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে। নীলক্ষেত মোড়ে অবস্থান শেষে অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তারা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের দায়িত্বহীনতার কথা তুলে ধরেন।
করোনাকালীন সময়ে নেটওয়ার্ক দুর্বলতা ও ডিভাইস না থাকায় অনেক শিক্ষার্থী অনলাইনে ক্লাস করতে পারেনি যার কারণে ২০১৭-১৮, ২০১৯-২০ শিক্ষা বর্ষের ১ম ও ২য় বর্ষের শিক্ষার্থীদের ফল বিপর্যয় ঘটে। এ জন্য এই সেশনের শিক্ষার্থীদের পর্যাপ্ত সময় দিয়ে বিশেষ পরীক্ষা নেয়ার আহ্বান জানানো হয়। অন্যদিকে সিলেবাস না কমিয়ে ও নম্বর পদ্ধতির পরিবর্তন না করে ৮০ নম্বরের পরীক্ষা যা ৪ ঘন্টায় নেয়া হতো তা ২ ঘন্টায় নেয়া হচ্ছে। ফলে শিক্ষার্থীরা উত্তর লেখায় পর্যাপ্ত সময় পাচ্ছে না। আবার এই করোনাকালে শিক্ষার্থীরা ও তাদের পরিবার আর্থিক সংকটে আছে, এই অবস্থার বিবেচনা না করে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে ভর্তি ফি, হল ফিসহ ফরম ফিলাপের জন্য মোটা অংকের টাকা নেয়া হচ্ছে। ফি পরিশোধ না করলে পরীক্ষায় বসতে না দেয়ার হুমকি দেয়া হচ্ছে। অন্যদিকে হলে না থেকেও তাদের হল ফি গুনতে হচ্ছে। এই সমস্ত দাবিতে ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ে আন্দোলন করতে চাইলে কিছুদিন আগে পুলিশ ও ঢাবি প্রশাসন ছাত্রদের বহিরাগত বলে আন্দোলন পন্ড করে দেয়। বক্তারা এর তীব্র নিন্দা জানান এবং পরীক্ষার্থীদের জন্য অবিলম্বে হল খুলে দেয়ার দাবি জানান।
আন্দোলন চলাকালীন সময়ে সমাবেশ স্থলে ইডেন কলেজের শিক্ষকরা এসে আমাদের দাবি মেনে নেয়ার আশ্বাস দিলে সমাবেশের কাজ শেষ করা হয়। শিক্ষার্থীরা আজ শনিবার ৭ কলেজের অধ্যক্ষদের কাছে ৫ দফার লিখিত বক্তব্য দিবে এবং দাবি না মেনে নেয়া হলে রোববার থেকে নীলক্ষেতে টানা অবস্থান করবে।  
শিক্ষার্থীদের ৫ দফা দাবীর মধ্যে রয়েছে, ২০১৭-১৮, ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষের অকৃতকার্য ও মানোন্নয়ন শিক্ষার্থীদের বিশেষ করে পরীক্ষা পর্যাপ্ত সময় দিয়ে নিতে হবে, করোনাকালীন সময়ে সিলেবাস সংক্ষিপ্ত ও নম্বর পদ্ধতিতে পরিবর্তন আনতে হবে, করোনাকালীন সময়ে ভর্তি ফি মওকুফ করতে হবে, অবিলম্বে হল খুলে দিয়ে পরীক্ষা নিতে হবে এবং স্নাতক রেজিষ্ট্রেশনের মেয়াদ ৭ বছর ঘোষণা করতে হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ