বৃহস্পতিবার ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১
Online Edition

উয়ারী-বটেশ্বর : সুপ্রাচীন এক জনপদের সন্ধানে

সরদার আবদুর রহমান : কোন সুউচ্চ রাজপ্রাসাদের চিহ্ন নেই। রাজকীয় ইমারতও নেই। কেবলই গৃহবধূর সংসারের কিছু তৈজসপত্র, গৃহস্থালীর ব্যবহার-সামগ্রীর কিছু নিদর্শন। বেশকিছু মুদ্রার ভংগ্নাংশ, দুর্গ-দেওয়ালের অংশবিশেষ। এইতো। একস্তর মাটির গর্ভে থাকা এসব সামগ্রী- যা সাধারণ দৃষ্টিতে প্রায় মূল্যহীন- আর তাই হৈচৈ ফেলে দিলো ইতিহাসের মানুষদের ভেতরে। 

হৈচৈ ফেলারই কথা। কারণ এসবের মধ্য দিয়ে ঠিক হরপ্পা-মহেনজোদারো টাইপের প্রাচীন জনপদের সন্ধান পাওয়ার পথ খুলে গেলো বলে প্রতœতত্ত্ববিদ আর ইতিহাসের নিবিড় অনুসন্ধানী মানুষদেরও দারুণভাবে আকর্ষণ করলো। বাংলাদেশ ও এর পাশর্^বর্তী অঞ্চলে অনেক প্রাচীন স্থাপত্যকীর্তির সন্ধান মিললেও সেগুলিতে রাজা, রাজধানী আর রাজকীয় কায়-কারবারের ছাপ রয়েছে। কিন্তু বছর দু-আড়াই হাজার বছর পূর্বের সাধারণ মানুষের জীবনধারা ও প্রতিপাশর্^ কেমন ছিল- তার একটা চিত্র ও আবহের আভাস মেলে এই উয়ারী-বটেশ^রে। 

২.

এই লেখকের উদ্যোগে ২০২০ সালের ১৯ ফেব্রুয়ারি এই মাটিচাপা ইতিহাসের সন্ধানে গিয়ে চক্ষু চড়কগাছ হওয়ার মতো কিছু দেখা গেলো না। তবে কিছু নমুনা ও কাঠামো দেখে এবং কিছু লিখিত বিবরণ পাঠ করে এর গুরুত্ব অনুধাবন করা গেলো। বলা হয়েছে, এখানকার প্রাপ্ত প্রাচীন নমুনা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ল্যারেটরিতে পাঠানো হয়। সেখানে এর কার্বন-১৪ পরীক্ষার দ্বারা এই অঞ্চলের সভ্যতা গড়ে উঠেছিল খ্রিষ্টপূর্ব ৪৫০ অব্দের দিকে- এই বলে সিদ্ধান্ত জানানো হয়।

রাজধানী ঢাকা থেকে ৭০-৭৫ কিলোমিটার উত্তর-পূর্বে নরসিংদীর জেলার শিবপুর উপজেলা অতিক্রম করে একই জেলার বেলাব উপজেলার গভীর-গহীন সবুজে আবৃত গ্রামসমূহ অতিক্রম করে সেই উয়ারী-বটেশ^রে পৌঁছানো গেলো। রাস্তাগুলো বেশিরভাগই পাকা ও মসৃন বলে অটোরিক্সায় চলাচল দ্রুত ও অপেক্ষাকৃত আরামদায়ক হয়েছে। এখানকার সাধারণ মানুষজনও বেশ সহজ-সরল ও সহযোগী মনের বলেই উপলব্ধি হলো। ইতিহাস না জানলেও এসব নিয়ে যে বিস্তর নাড়াচাড়া চলেছে- তা তাদের কথায় বুুঝা গেলো। 

উয়ারী-বটেশ^রের মূল স্থাপনাটি খননের পর ঢেকে দিয়ে উপরে তার রেপ্লিকা বা অনুকৃতি রাখা হয়েছে। স্থানটিতে কিছু অনুকৃতি ছাড়াও ছবি ও বিলবোর্ডের সাহায্যে এগুলির প্রতœতাত্ত্বিক পরিচিতি ও ইতিহাস তুলে ধরা হয়েছে। একে উন্মুক্ত জাদুঘরের রূপ দেয়া হয়েছে।

৩.

‘উয়ারী-বটেশ^র সভ্যতা’ বাংলাদেশে মহাস্থান গড়ের কিছু কমবেশি প্রায় সমসাময়িক বলে অনুমিত। সিন্ধু সভ্যতার অনুবর্তী হরপ্পা-মহেনজোদারো সভ্যতা প্রায় চার হাজার বছর পুরনো। আর উয়ারী-বটেশ^র প্রায় আড়াই হাজার বছরের বলে দাবি করা হয়ে থাকে। তবে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করার সময় এখনো আসেনি বলে মনে করা হয়। উয়ারী-বটেশ^র নামক গ্রামদ্বয় বেলাব উপজেলায় হলেও এর বিস্তার পাশর্^বর্তী শিবপুরসহ বিস্তীর্ণ এলাকায়। চারপাশে এমন পৃথক কিছু দৃষ্টিগোচর হয় না যে, এই এলাকাকে কোন প্রাচীন নগরী ও সাধারণ কোনো শহর বলে ধরা যাবে। বিচ্ছিন্ন কিছু নিদর্শন ও অনাবিষ্কৃত স্থাপনা কেবল আভাস দিতে পারে। আশেপাশে এমন পঞ্চাশটির মতো জায়গা পাওয়া গেছে। এসবের মধ্যে রয়েছে, টঙ্গীরটেক, রাঙ্গারটেক, সোনারুতলা, কেন্দুয়া, মরজাল, চন্ডীপাড়া, পাটুলি, জয়মঙ্গল, হরিসাঙ্গন, যোশর, কু-াপাড়া, গোদাশিয়া, আব্দল্লানগর প্রভৃতি। এসব স্থানকে প্রাচীন বসতি চিহ্নিত বলে ধারণা করা হচ্ছে। সেই পঞ্চাশের দশক থেকেই এই অঞ্চলে প্রচুর পরিমাণে স্বল্প-মূল্য পাথরের পুঁতি, কাঁচের পুঁতি, লৌহনির্মিত প্রতœবস্তু, ছাপাঙ্কিত রৌপ্যমুদ্রাসহ আরো অনেক ধরনের নিদর্শন পাওয়া যায়। কিছুকাল আগে এক সীমিত আকারের প্রতœতাত্ত্বিক খনন থেকে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ জিনিসের সন্ধান মিলেছে। এগুলির মধ্যে রুলেটেড মৃৎপাত্র, উত্তর ভারতীয় কালো মসৃণ মৃৎপাত্র, পাথরের ফ্লেক, চিলতা এবং সার অংশ, লৌহবস্তু এবং লোহা গলিয়ে তৈরি বল জাতীয় বস্তু, মাটির দেয়ালের অংশ এবং পোড়ানো কার্যক্রমের চিহ্ন খুবই গুরুত্ব বহন করে। এছাড়াও পাথর ও কাঠের হাতকুঠার, বাটালি, তীরের ফলক ইত্যাদি পাওয়া গেছে- যা প্রাগৈতিহাসিক বা প্রস্তর যুগের বলে ধারণা করা হয়।

৪.

আলোচ্য সেই জনপদ ইতোমধ্যে ‘উয়ারী-বটেশ্বর সভ্যতা’ হিসেবে চিহ্নিত হতে শুরু করেছে। বৃহত্তর ঢাকার অংশ সেই উয়ারী-বটেশ্বর এখন বাংলাদেশের গুরুত্বপূর্ণ প্রতœস্থল। নরসিংদী জেলার বেলাব উপজেলা থেকে প্রায় তিন কিলোমিটার পশ্চিমে অবস্থিত উয়ারী এবং বটেশ্বর গ্রাম দুটি ছাপাঙ্কিত রৌপ্যমুদ্রার প্রাপ্তিস্থান হিসেবে দীর্ঘদিন থেকে পরিচিত। প্লাইসটোসিন যুগে গঠিত মধুপুর গড়ের পূর্ব সীমান্তে অবস্থিত এ গ্রাম দুটিতেই নিবিড় অনুসন্ধান ও সীমিত প্রতœতাত্ত্বিক খননে আবিষ্কৃত হয়েছে আড়াই হাজার বছরের প্রাচীন দুর্গনগর। এটি যে বরাবরই একটি সুপ্রাচীন জনপদ তাতে ইতিহাসবিদদের দ্বিমত নেই- যা প্রাচীন ব্রহ্মপুত্র নদকে কেন্দ্র করে গড়ে উঠেছিল। প্রখ্যাত প্রতœতত্ত্ববিদ আবুল কালাম মোহাম্মদ জাকারিয়ার মতে, গ্রাম দুটির পশ্চিম, উত্তর-পশ্চিম ও উত্তর দিকে যে নি¤œ বিলভূমি আছে, সেগুলি যে এককালে ব্রহ্মপুত্রের খাত ছিল, তাতে সন্দেহ নেই। এককালে এবং তা খুব সম্ভব অনেক প্রাচীনকালে ব্রহ্মপুত্রের একটি বিরাট প্রবাহ এ স্থানের পাশ দিয়ে প্রবাহিত ছিল। আশরাফপুরের কাছ দিয়ে এখনো আড়িয়াল খাঁ নামে যে মৃতপ্রায় প্রাচীন নদীটি বয়ে যাচ্ছে, তাও ছিল এককালে ব্রহ্মপুত্রেরই একটি বিরাট প্রবাহ। খুব সম্ভব আড়িয়াল খাঁর সঙ্গে সংযুক্ত ছিল ব্রহ্মপুত্রের সেই লুপ্ত প্রবাহটি।

৫.

এখানকার বর্তমান অধিবাসীদের অবস্থান শ’দেড়েক বছরের বেশি নয় বলে আবুল কালাম জাকারিয়ার অভিমত।  এর বেশিরভাগ অধিবাসী পাঠান উপাধিধারী। এরা মুর্শিদাবাদ অঞ্চল থেকে ব্রিটিশ আমলের প্রথম দিকে এখানে এসেছিলেন বলে জানা যায়। এর আগে এ স্থান বহুকাল ধরে পরিত্যক্ত অবস্থায় পড়েছিল। স্থানীয় আধিবাসীদের কাছ থেকে জানা যায় যে, এক সময়ে কামরূপের কোন রাজার প্রশাসনিক কেন্দ্র এখানে ছিল। মৌর্য আমলের অসংখ্য মুদ্রা প্রমাণ করে যে এ স্থানে সে সময়ে একটি সমৃদ্ধ জনপদ ছিল। লোহার হাত কুড়াল প্রাপ্তি প্রমাণ করে, এরও আগে এখানে সভ্য মানুষের বসবাস ছিল। এ স্থানে এযাবত যে খননকার্য করা হয়েছে তা কেবল প্রাথমিক ধারণাই দিতে পারছে। ব্যাপক খনন ও অনুসন্ধান পরিচালিত হলে হয়তো এ স্থানের প্রাচীনত্ব সম্পর্কে সঠিক ও বিস্তারিত ধারণা পাওয়া সম্ভব হবে।

৬.

ওয়ারী-বটেশ্বর গ্রাম দুটির অধিকাংশ স্থানজুড়ে প্রাচীন বসতি ছিল। এছাড়াও পার্শ্ববর্তী গ্রাম যেমন- রাঙ্গারটেক, সোনারুতলা, কেন্দুয়া, মরজাল, চন্ডীপাড়া, পাটুলি, জয়মঙ্গল, হরিসাঙ্গন, যশোর, কুন্ডাপাড়া, গোদাশিয়া এবং আব্দুল্লাহ নগরেও প্রাচীন বসতির চিহ্ন পাওয়া যায়। উয়ারী দুর্গনগরীর নিকটবর্তী এ পর্যন্ত আবিষ্কৃত অর্ধশতাধিক প্রতœস্থানের প্রতœবস্তু বিচারে ধরে নেয়া যায় যে, অধিবাসীরা ছিল কৃষিজীবী এবং এদের উৎপাদিত উদ্বৃত্ত ফসল নগরে বসবাসরত ধনিক, বণিক, পুরোহিত, কারিগর ও রাজকর্মচারীদের খাদ্য চাহিদা পূরণ করতো। উয়ারী-বটেশ্বরের অধিবাসীগণ উন্নত প্রযুক্তির সঙ্গে পরিচিত ছিল। তারা ধাতু গলিয়ে মুদ্রা তৈরি করার প্রযুক্তি জানতো এবং পুঁতির সঙ্গে রাসায়নিক পদার্থ ব্যবহার করে অলংকার তৈরি করতে পারতো। উত্তরাঞ্চলীয় কালো মসৃণ মৃৎপাত্রের সঙ্গে এ নগরীর সংস্কৃতির সম্পর্ক রয়েছে। কারণ উপমহাদেশে দ্বিতীয় নগর সভ্যতার প্রতœস্থানগুলিতে উত্তরাঞ্চলীয় কালো মসৃণ মৃৎপাত্র পাওয়া যায়। উয়ারী-বটেশ্বরে নব্য প্রস্তর যুগের হাতিয়ারও আবিষ্কৃত হয়েছে। এ অঞ্চলের বিস্তৃত এলাকা জুড়ে উত্তর ভারতীয় কালো মসৃণ মৃৎপাত্র প্রাপ্তি মৌর্য সাম্রাজ্যের বিস্তৃতির সাক্ষ্য বহন করে। তাছাড়া নরসিংদীর পুরনো ব্রহ্মপুত্র নদ ও আড়িয়াল খাঁ নদীর তীরে দুর্গনগরীর সন্ধান পাওয়ার পাশাপাশি মুদ্রাতাত্ত্বিক প্রমাণের ভিত্তিতে বলা হচ্ছে, আড়াই হাজার বছরের প্রাচীন এই জনপদের মানুষ কেবল কৃষিকাজই করেনি, দুর্গনগরীও তৈরি করেছিল। এতে নদীবন্দরও ছিল। এর মাধ্যমে অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক বাণিজ্য সম্পাদিত হতো। 

সমসাময়িককালে ভারতীয় উপমহাদেশের ১৬টি বিখ্যাত জনপদের নাম জানা গেলেও উয়ারী-বটেশ্বরের আড়াই হাজার বছরের প্রাচীন নগরটির নাম এখনো নিশ্চিতভাবে জানা যায়নি। মনে করা হচ্ছে, গ্রিক ইতিহাসবিদ টলেমি বর্ণিত সৌনাগড়াই এই উয়ারী-বটেশ্বর। এই জনপদগুলি ছিল এক একটি পৃথক রাষ্ট্র। খ্রিষ্টপূর্ব ৪৫০ অব্দে মৌর্য আমল চলমান ছিল। বর্তমান বাংলাদেশ অংশের ইতিহাস এযাবৎ মৌর্য যুগের স¤্রাট অশোকের সময় থেকে অবহিত হওয়া যায়।

৭.

পিছনের ইতিহাস ঘেঁটে দেখা যায়, ১৯৩০-এর দশকে মুহম্মদ হানিফ পাঠান নামের একজন স্কুল শিক্ষক প্রথম উয়ারী-বটেশ্বরের প্রতœতাত্ত্বিক গুরুত্ব জনসমক্ষে তুলে ধরেন। হানিফ পাঠান সেখান থেকে ২০-৩০টি মুদ্রা সংগ্রহ করেন। এগুলি ছিল বঙ্গভারতের প্রাচীনতম রৌপ্যমুদ্রা। এ বিষয়ে তৎকালীন সাপ্তাহিক মোহাম্মদী পত্রিকায় ‘প্রাচীন মুদ্রা প্রাপ্তি’ শীর্ষক সংবাদ প্রকাশিত হয়। হানিফ পাঠান এবং তাঁর ছেলে হাবিবুল্লা পাঠান তখন থেকে এই এলাকার বিভিন্ন প্রতœতাত্ত্বিক উপাদান সংগ্রহ ও গবেষণার কাজে হাত দেন। ১৯৫৫ খ্রিষ্টাব্দ হাবিবুল্লাহ উয়ারীর পার্শ্ববর্তী বটেশ্বর নামক গ্রামের স্থানীয় শ্রমিকদের ফেলে যাওয়া দুটি ত্রিকোণাকার ও এক মুখ চোখা লৌহ নির্মিত অস্ত্র সংগ্রহ করেন। এ বিষয়ে হানিফ পাঠান ১৯৫৫ খ্রিষ্টাব্দের দৈনিক আজাদ পত্রিকার ৩০ জানুয়ারির রবিবাসরীয় সংখ্যায় একটি প্রবন্ধ প্রকাশ করেন। প্রবন্ধটির নাম ছিল ‘পূর্ব পাকিস্তানে প্রাগৈতিহাসিক সভ্যতা’।

১৯৫৬ খ্রিষ্টাব্দের মার্চ মাসে উয়ারী গ্রামের একজন কৃষক মাটি খননকালে রৌপ্য মুদ্রার একটি ভা- পান। ওই ভা-ে প্রায় চার হাজারের মতো মুদ্রা ছিল। ওজন ছিল প্রায় নয় সের। পরে জাড়ু নামের ঐ কৃষক মুদ্রাগুলি আশি টাকা সের দরে জনৈক রৌপ্যকারের কাছে বিক্রি করে দেন। এই তথ্যটুকু ছাড়া এই মুদ্রাগুলির কোনো নমুনা পাওয়া যায়নি। ১৯৭৪-১৯৭৫ খ্রিষ্টাব্দে হাবিবুল্লাহ পাঠান ঢাকা জাদুঘরের অবৈতনিক সংগ্রাহক ছিলেন। এই সময় তিনি এই অঞ্চলে প্রাপ্ত ছাপাঙ্কিত রৌপ্য মুদ্রা, পাথরের গুটিকা, লৌহ কুঠার ও বল্লম জাদুঘরে প্রদান করেন।  

১৯৮৮ খ্রিষ্টাব্দে উয়ারী গ্রামের শাহাবুদ্দিন মাটির নিচ থেকে ব্রোঞ্জের তৈরি ৩৩টি পাত্র উদ্ধার করেন। এই পাত্রগুলি মাত্র ২০০ টাকায় এক ভাঙারির কাছে বিক্রি করে দেন শাহাবুদ্দিন। এই নমুনাগুলিও চিরতরে হারিয়ে যায়। এরপর হাবিবুল্লাহ পাঠান প্রাচীন প্রতœসামগ্রী খুঁজে দেবার জন্য স্থানীয় শিশু-কিশোরদেরকে নিয়োগ দেন। এই সূত্রে তিনি বিষ্ণুপট্ট, ব্রোঞ্জের তৈরি ধাবমান অশ্ব, উচ্চমাত্রায় টিনমিশ্রিত পাত্র, শিব, নৈবেদ্য পাত্র, রেলিক কাসকিট (জবষরপ পধংশবঃ)-এর ভগ্নাংশ, পাথরের বাটখারা, নব্যপ্রস্তর যুগের বাটালি, লৌহকুঠার, বল্লম, পাথরের তৈরি সিল, ত্রিরতœ, কচ্ছপ, হস্তী, সিংহ, হাঁস, পোকা, ফুল, অর্ধচন্দ্র, তারকা, রক্ষাকবচ (অসঁষধঃব), পোড়ামাটির কিন্নর, সূর্য ও বিভিন্ন জীব-জন্তুর প্রতিকৃতি, রিংস্টোন, ব্রোঞ্জের গরুড়, কয়েক সহস্র স্বল্প মূল্যবান পাথর ও কাচের গুটিকা ইত্যাদি সংগ্রহ করতে সমর্থ হন।

৮.

দীর্ঘদিন পর ১৯৯৬ সাল থেকে উয়ারী-বটেশ্বর অঞ্চলে প্রতœতাত্ত্বিক জরিপের কাজ সম্পন্ন করা হয়। ইতোপূর্বে গ্রাম দুটিতে কৃষকের জমি চাষ ও নালা কাটা, গৃহস্থের বর্জ্য-গর্ত তৈরি ও মাটি কেটে স্থানীয়দের ঘর-বাড়ি নির্মাণের জন্যও গর্ত করে মাটি সংগ্রহের ফলে অনেক প্রতœবস্তু উন্মোচিত হয়। আরও পাওয়া যায় বিচিত্র স্বল্প মূল্যবান পাথর ও কাচের পুঁতি, রৌপ্য মুদ্রা। এ যাবত প্রতœতাত্ত্বিক খননে উয়ারী প্রত্মস্থলে আবিষ্কৃত হয়েছে ৬০০ মিটার ী ৬০০ মিটার আয়তনের চারটি মাটির দুর্গ-প্রাচীর। দুর্গ প্রাচীরের ৫-৭ ফুট উঁচু ধ্বংসপ্রাপ্ত কিছু অংশ এখনো টিকে আছে। এ ছাড়াও দুর্গের চারদিকের রয়েছে পরিখা (যদিও কালের ব্যবধানে তাতে মাটি ভরাট হয়েছে)। ভরাট হলেও পূর্ব প্রান্তের পরিখার চিহ্ন এখনো দৃশ্যমান। দুর্গের পশ্চিম, দক্ষিণ-পশ্চিম ও দক্ষিণ-পূর্ব দিকে প্রায় ৫.৮ কি. মি. দীর্ঘ, ২০ মি. প্রশস্ত ও ১০ মি. উঁচু ‘অসম রাজার গড়’ নামে একটি মাটির বাঁধ রয়েছে। সম্ভবত এটি দ্বিতীয় দুর্গ প্রাচীর হিসেবে উয়ারী দুর্গনগরের প্রতিরক্ষার কাজ করতো। ভারতের নাগার্জুনক- হলো এরকম দ্বি-স্তর বিশিষ্ট দুর্গ প্রাচীরের আরেকটি উদাহরণ। বীর মাউন্ড, হস্তিনাপুর, রাজগৃহ, কৌশাম্বী, বৈশালী প্রভৃতি স্থানেও একটি দুর্গকে ঘিরে রেখেছে আরেকটি দুর্গ গড়ে উঠেছে।

এতোসব প্রাচীন নমুনা সংগ্রহের সূত্রে দেশের প্রতœতাত্ত্বিক গবেষকরা উৎসাহিত হয়ে উঠেন। ২০০০ খ্রিষ্টাব্দে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতœতত্ত্ব বিভাগের উদ্যোগে শুরু হয় খননকাজ। এই খননকাজে নেতৃত্ব দেন উক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. সুফি মোস্তাফিজুর রহমান। এই দলের উপনেতা ছিলেন মিজানুর রহমান। আর এই খননকাজেই সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেছিলেন সে সময়ের জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতœতত্ত্ব বিভাগের শিক্ষার্থীবৃন্দ। সেই সঙ্গে উল্লেখ করার মতো ছিল স্থানীয় জনগণের সহযোগিতা। পরে এই কাজের জন্য সার্বিক পৃষ্ঠপোষকতার হাত বাড়িয়ে দেয় মুঠোফোন ফোন কোম্পানি গ্রামীণ ফোন। ২০১০ খ্রিষ্টাব্দের  ৯ জানুয়ারি এই খনন কাজে প্রথমবারের মতো আর্থিক পৃষ্ঠপোষকতা দিতে এগিয়ে আসে বাংলাদেশ সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়। বর্তমানে এই প্রতœতাত্ত্বিক খনন ক্ষেত্রটি ‘উয়ারী-বটেশ্বর’ নামেই পরিচিত।

প্রতœতাত্ত্বিক খননের মাধ্যমে এই অঞ্চলে আবিষ্কৃত হয় প্রাচীন দুর্গ-নগর, বন্দর, রাস্তা, পার্শ্ব-রাস্তা, পোড়ামাটির ফলক, স্বল্প-মূল্যবান পাথর, কাচের পুঁতি এবং উপমহাদেশের প্রাচীনতম ছাপাঙ্কিত রৌপ্যমুদ্রা। এই খনন ক্ষেত্রে পাওয়া গেছে উল্টো-পিরামিড আকৃতির স্থাপত্যকর্ম। প্রাথমিকভাবে বিশেষজ্ঞদের ধারণা ছিল এই দুর্গটি এটি প্রায় আড়াই হাজার বছরের পুরনো। এই অঞ্চলে প্রাপ্ত কিছু বস্তুর  কার্বন-১৪ পরীক্ষার প্রেক্ষিতে ধারণা করা হয় উয়ারীর বসতির সময় ছিল খ্রিষ্টপূর্ব ৪৫০ অব্দ। উল্লেখ্য, উয়ারী গ্রামে ৬৩৩ মিটার দীর্ঘ বাহুবিশিষ্ট বর্গাকৃতি গড় ও পরিখা পাওয়া গেছে। আরেকটি বহির্দেশীয় (৬ কিলোমিটার দৈর্ঘবিশিষ্ট) গড় ও পরিখা সোনারুতলা গ্রাম থেকে শুরু করে বটেশ্বর হানিয়াবাইদ, রাজারবাগ ও আমলাব গ্রামের ওপর দিয়ে আঁড়িয়াল খাঁ নদের প্রান্তসীমা পর্যন্ত বিস্তৃত। এটিকে স্থানীয় লোকজন ‘অসম রাজার গড়’ বলে থাকেন। ২০০৪ খ্রিষ্টাব্দের মার্চ-এপ্রিলে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের খননের সূত্রে উয়ারী গ্রামে আবিষ্কৃত হয় ১৮ মিটার দীর্ঘ, ৬ মিটার প্রশস্ত ও ৩০ সেন্টিমিটার পুরু একটি প্রাচীন পাকা রাস্তা। রাস্তাটি নির্মাণে ব্যবহৃত হয়েছে ইটের টুকরা, চুন, উত্তর ভারতীয় কৃষ্ণ মসৃণ মৃৎপাত্রের টুকরা, তার সঙ্গে রয়েছে ল্যাটারাইট মাটির লৌহযুক্ত ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র টুকরা। ড. সুফি মোস্তাফিজুর রহমান এটিকে আড়াই হাজার বছর পুরনো বলে দাবি করেছেন। এ সম্পর্কে কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতœতত্ত্ব বিভাগের অধ্যাপক দিলীপ কুমার চক্রবর্তীর অভিমত, এতো দীর্ঘ ও চওড়া রাস্তা এর আগে পুরো গাঙ্গেয় উপত্যকায় দ্বিতীয় নগরায়ণ সভ্যতায় কোথাও আবিষ্কৃত হয়নি। গাঙ্গেয় উপত্যকায় দ্বিতীয় নগরায়ণ বলতে সিন্ধু সভ্যতার পরের নগরায়ণের সময়কে বোঝায়। ফলে যেটি আবিষ্কৃত হয়েছে বলা হচ্ছে তা তধু বাংলাদেশেই নয়, সিন্ধু সভ্যতার পর ভারতবর্ষের সবচেয়ে পুরনো রাস্তা হিসেবে বিবেচনায় আসে।

৯.

শুধু উয়ারী-বটেশ্বর নয়, এর অদূরবর্তী স্থানসমূহে উল্লেখযোগ্যসংখ্যক প্রতœতাত্বিক নিদর্শন মিলেছে। বেলাব উপজেলা ছাড়িয়ে পাশের শিবপুর উপজেলার জয়নগর ইউনিয়নের কামরাব ধুপিরটেক গ্রামে বৌদ্ধ পদ্ম মন্দির আবিষ্কৃত হয়েছে। এই বৌদ্ধ পদ্ম মন্দিরটির স্থাপত্যিক বৈশিষ্ট দেব খড়গের স্বাক্ষর অনুযায়ী প্রাথমিকভাবে ৭ম দশকের বলে অনুমতি হয়। ধারণা করা হয়, প্রায় ২৫০০ বছর আগে এই জায়গায় বৌদ্ধদের পদ্ম নামে একটি মন্দির ছিল। এর ৭০ সে.মি. দৈর্ঘ্য ও  ৭০ সে.মি. প্রস্থবিশিষ্ট ইটের দেয়াল পাওয়া গেছে। যোশর ইউনিয়নের টঙ্গিরটেক নামক স্থানে রয়েছে প্রাচীন বৌদ্ধ মন্দিরের ধ্বংসাবশেষ। এটি কিয়দংশ উদ্ধারের পর সংরক্ষণের জন্য টিনের চালা দিয়ে ঢেকে রাখা হয়েছে। জয়মঙ্গল পাহাড়ী গ্রামে আবিষ্কৃত হয়েছে গুপ্তযুগের স্বর্ণমুদ্রা। আশরাফপুরে আবিষ্কৃত হয় সপ্তম শতাব্দীর মহারাজাদের খড়গদের তাম্রলিপি এবং অষ্টধাতুর নির্মিত বৌদ্ধ নিবেদন স্তুপ। কুমরাদী গ্রামে লালমাটি এবং প্রাচীন পুরাকীর্তির নমুনা সুলতানি আমলের স্থাপত্য শৈলীর এক উজ্জল নিদর্শন। প্রাচীন ব্রহ্মপুত্র নদের শাখা নদী হাড়িদোয়ার পশ্চিম তীরে অবস্থিত কুমারটেক এলাকার প্রায় ১০/১২ হাত মাটির নিচ থেকে প্রাচীন মৃৎপাত্র, ভগ্নটুকরা এবং মাটির তৈরি ছোট ছোট গোলা পাওয়া গেছে। 

১০.

মূল উয়ারী-বটেশ^র স্পটের কেয়ারটেকারের দায়িত্বে আছেন আনোয়ারা খাতুন নামের এক গৃহবধূ। এই জমির মালিকানা তাদেরই পরিবারের। তিনি জানালেন, বিভিন্ন সময়ে এখানে ‘বড় বড়’ মানুষেরা আসেন গাড়ি নিয়ে। মাঝে মাঝে পুলিশও এসে দেখে যায়। তবে এই স্থানটি সরকারিভাবে এখনো অধিগ্রহণ করা হয়নি। ফলে জমির মূল্য বা কোনো ভাড়া সেভাবে তারা পাচ্ছেন না। বোঝা গেলো, বিষয়টি দীর্ঘদিন ‘ঝুলে’ আছে। কোনো সুরাহা হচ্ছে না।

 

তথ্যসূত্র:

১. আবুল কালাম মোহাম্মদ জাকারিয়া: বাংলাদেশের প্রতœতত্ত্ব, বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি, ১৯৮৪। 

২. বাংলাপিডিয়া, বাংলাদেশ এশিয়াটিক সোসাইটি। 

৩. বিভিন্ন ওয়েবসাইট। 

৪. লেখকের নোট।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ