শুক্রবার ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২১
Online Edition

বাংলাদেশ ওঃ ইন্ডিজ প্রথম ওয়ানডে আজ

স্পোর্টস রিপোর্টার : ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজ দিয়ে দীর্ঘ বিরতির পর আজ আর্ন্তজাতিক ক্রিকেটে ফিরতে যাচ্ছে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল। গত মার্চে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ঘরের মাঠে সবশেস আন্তর্জাতিক সিরিজ খেলেছিল টাইগাররা। এর পর করোনার কারনে মাঠের বাইরে ছিল বাংলাদেশ দল। ফলে প্রায় ১০ মাস পর আজ আবার মাঠে ফিরছে তামিম বাহিনী। তবে করোনার কারনে জৈব-সুরক্ষা পরিবেশে সিরিজটি খেলবে দু’দলের ক্রিকেটাররা। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজের প্রথম ম্যাচ আজ। দীর্ঘ বিরতীর পর মাঠে নেমে প্রথম ম্যাচেই জয় দিয়ে শুরু করতে চায় টাইগাররা। অবশ্য জয়ের স্বপ্ন দেখছে সফরকারী দলটিও। মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে সকাল সাড়ে এগারোটায় শুরু হবে ম্যাচটি। ম্যাচটি সরাসরি দেখাবে বিটিভি, টি-স্পোর্টস ও নাগরিক টিভি। তবে করোনার কারনে এই সিরিজেও দর্শক শুন্য মাঠে হবে ম্যাচ গুলো। ওয়ানডে ম্যাচে বাংলাদেশ থেকে পরিসংখ্যানে এগিয়ে আছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। বাংলাদেশ-ওয়েস্ট ইন্ডিজ ইতোমধ্যে ৩৮টি ওয়ান ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছে। এরমধ্যে বাংলাদেশ ১৫টি ও ক্যারিবীয়ানরা ২১টিতে জয় পায়। দু’টি ম্যাচে কোন ফল আসেনি। তবে মাঠের পারফরমেন্সে এখন বাংলাদেশ শক্তিশালী দল। নিজেদের কন্ডিশনে আরো বেশি ফেভারিট টাইগাররা। তবে গত ১০ মাস ধরে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে দূরে থাকার পর মাঠে ফিরে নিজেদের মানিয়ে নেয়াটা কঠিন হতে পারে। তবে আশার খবর সর্বশেষ পাঁচ ম্যাচেই ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারিয়েছে বাংলাদেশ। সবশেষ ২০১৮ সালে বাংলাদেশ সফরে এসেছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ঘরের মাঠে পূর্ণশক্তির ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে ২-১ ব্যবধানে জয় পেয়েছিলো বাংলাদেশ। জয়ের এই ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে মাঠে নামবে বাংলাদেশ দল। এদিকে বাংলাদেশ সফরে আসেননি ওয়েস্ট ইন্ডিজের নিয়মিত টেস্ট অধিনায়ক জেসন হোল্ডার ও ওয়ানডে অধিনায়ক কাইরন পোলার্ডসহ ১০জন খেলোয়াড়। এছাড়া ব্যক্তিগত কারনে আরও দু’জন ক্রিকেটার সফর থেকে  নাম প্রত্যাহার করায়  দুর্বল দল হিসেবে বিবেচিত এবার ক্যারিবিয় দলটি। তারপরও প্রতিপক্ষের বিপক্ষে সর্তক হয়ে মাঠে নামবে টাইগাররা। করোনা বিরতির পর আন্তর্জাদিক ক্রিকেটে ফিরে ওয়েস্ট  ইন্ডিজ  ইতোমধ্যে তিনটি সিরিজ খেলেছে। তবে সে সব সিরিজে তাদের সব খেলোয়াড় অংশ নেয়নি। দলে আছে অনেক নতুন খেলোয়াড়। তাই প্রতিপক্ষকে নিয়ে পরিকল্পনা করতে বেশ বেগ পেতে হবে বাংলাদেশের টিম ম্যানেজমেন্টকে। এই সিরিজটি বাংলাদেশের জন্য আরো একটি কারনে বেশি গুরুত্বপূর্ন।  কারন ২০২৩ বিশ্বকাপে সরাসরি খেলতে হলে পয়েন্ট টেবিলে শীর্ষ সাতের মধ্যে থাকতে হবে বাংলাদেশকে। তাই এই সিরিজে তিন ম্যাচের মধ্যে তিনটি জয় নিয়েই পয়েন্ট বাড়াতে চায় টাইগাররা। কারন সরাসরি বিশ্বকাপে খেলার যোগ্যতা অর্জন করতে না পারা দলকে ২০২৩ সালের জুন-জুলাইয়ে বাছাই পর্ব খেলতে হবে। তাই ঘরের মাঠে সিরিজগুলোতে ভালো ফল করে সরাসরি বিশ্বকাপে খেলার পথ সহজ করতে চায় বাংলাদেশ। ওয়ানডে সিডরিজ নিয়ে বাংলাদেশের প্রধান কোচ রাসেল ডোমিঙ্গো বলেন, ‘এটি আমাদের জন্য অনেক বড় সিরিজ। বিশ্বকাপ বাছাই পর্বের পয়েন্টগুলো অর্জন করতে হবে। সত্যিকারার্থেই আমাদের শুরুটা  ভাল করা নিশ্চিত করতে চাই। আমরা অবশ্যই ম্যাচ বাই ম্যাচ নিয়ে চিন্তা করব। আমরা ভালোভাবে সিরিজ শুরু করতে চাই।’ তবে এই সিরিজে জয়ের আশা আছে ওয়েস্ট ইন্ডিজেরও। ক্যারিবীয়দের ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক জেসন মোহাম্মদ বলেন, ‘আমাদের লক্ষ্য, অবশ্যই সিরিজ জয়। ধারাবাহিকভাবে ভালো খেলা ও আমরা যে ফলটি আশা করছি, তা অর্জন করতে চাই। আমাদের লক্ষ্য সিরিজ জয়। কাঙ্খিত  ফল পেতে আমাদের ধারাবাহিক ক্রিকেট খেলতে হবে।’ ওয়েস্ট ইন্ডিজের প্রধান কোচ ফিল সিমন্স বলেন, ‘নতুন খেলোয়াড়রা তাদের প্রমান করতে প্রস্তুত। আমি তাদের চোখে প্রবল আকাঙ্খা দেখেছি। তারা সবাই আমাকে মুগ্ধ করেছে। তবে এখানে আন্ডাডগ হওয়াতেই আমাদের মনোবল বাড়াচ্ছে।’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ