সোমবার ০৮ মার্চ ২০২১
Online Edition

নির্বাচনে সুবিধা পেতে বালাকোটে হামলা চালায় মোদি সরকার-ইমরান খান

 ১৮ জানুয়ারি, আল জাজিরা : পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বলেছেন, নির্বাচনে সুবিধা আদায় করতে ২০১৯ সালে তার দেশের বালাকোটে বিমান হামলা পরিচালনা করে ভারতের ক্ষমতাসীন দল ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি)। ভারতের ‘বেপরোয়া এবং সামরিকায়িত এজেন্ডা’ বন্ধ করতে বিশ্ব সম্প্রদায়ের প্রতি আহ্বানও জানান তিনি। দুই ভারতীয় সম্প্রচারকর্মীর হোয়াটসঅ্যাপ চ্যাট ফাঁস হওয়ার পর বালাকোটের হামলা আবারও আলোচনায় উঠে আসার প্রেক্ষাপটে সোমবার ধারাবাহিক টুইট বার্তায় ভারতীয় প্রধানমন্ত্রীর নরেন্দ্র মোদির সরকারকে ফ্যাসিস্ট আখ্যা দেন ইমরান খান। কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।

ভারত শাসিত কাশ্মিরের পুলওয়ামায় জঙ্গি হামলা চালিয়ে নিরাপত্তা বাহিনীর ৪০ সদস্যকে হত্যার পর ২০১৯ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি নিয়ন্ত্রণরেখা অতিক্রম করে পাকিস্তানে হামলা চালায় ভারতীয় বিমান বাহিনী। ভারতের দাবি, পাকিস্তানের খাইবার পাখতুন প্রদেশের বালাকোটে জঙ্গি গোষ্ঠী জইশ-ই-মোহাম্মদের ঘাঁটিতে হামলা চালায় তাদের যুদ্ধবিমান। হামলার পর পাকিস্তান ভারতের দুইটি যুদ্ধবিমান ধ্বংসের দাবি করে ভারতীয় এক পাইলটকে আটক করে। অবশ্য দুই দিন পর তাকে মুক্তি দেওয়া হয়। বালাকোটে হামলার কয়েক মাসের মধ্যে অনুষ্ঠিত ভারতের সাধারণ নির্বাচনে টানা দ্বিতীয়বারের মতো জয় পায় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির দল বিজেপি।

সম্প্রতি দুই ভারতীয় সম্প্রচারকর্মীর হোয়াটসঅ্যাপ মেসেজ বিনিময়ের নথি ফাঁস হয়ে পড়ার পর বালাকোটে হামলার প্রসঙ্গ আবারও সামনে এসেছে। নিউজ ওয়েবসাইট স্ক্রল.ইন-এ প্রকাশ হয়েছে ডানপন্থী ভারতীয় টিভি উপস্থাপক অর্ণব গোস্বামী এবং রেটিং প্রতিষ্ঠান ব্রডকাস্ট অডিয়েন্স রিসার্চ কাউন্সিলের (বিএআরসি) প্রধান পার্থ দাসগুপ্তের মধ্যে বিনিময় হওয়া মেসেজ। টেলিভিশন রেটিং কারসাজির প্রমাণ হিসেবে দিল্লি পুলিশ এসব নথি প্রকাশ করেছে। তবে এতে দেখা গেছে বালাকোটে হামলার তিন দিন আগে এই বিষয়ে অবগত ছিলেন ভারতের রিপাবলিক টিভির অন্যতম মালিক এবং উপস্থাপক অর্নব গোস্বামী।

ফাঁস হয়ে পড়া এসব মেসেজের প্রতি ইঙ্গিত করে সোমবার পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান টুইট বার্তায় বলেন, এই চ্যাট ভারত সরকার এবং তাদের সংবাদমাধ্যমের মধ্যকার ‘নোংরা যোগসূত্র উন্মোচন’ করে দিয়েছে। আর এই যোগসূত্র পারমাণবিক শক্তিধর অঞ্চলকে সংঘাতের দিকে ঠেলছে বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

২০১৯ সালে ভারতের সাধারণ নির্বাচনে বালাকোটে চালানো সার্জিক্যাল স্টাইক ছিলো বিজেপি’র মূল নির্বাচনি ইস্যু। আর এই ইস্যু সফলভাবে ব্যবহার করে ২০১৪ সালের চেয়েও বড় জয় নিশ্চিত করে হিন্দু জাতীয়তাবাদী দলটি। ইমরান খান দাবি করেন, পাকিস্তান ‘বালাকোট নিয়ে দায়িত্বশীল, পরিমিত জবাব দিয়ে বড় সংকট এড়িয়ে গেছে। যদিও মোদি সরকার ভারতকে একটা দুর্বৃত্ত রাষ্ট্রে পরিণত করা অব্যাহত রেখেছে।’ তবে ইমরান খানের অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করেছেন বিজেপি’র মুখপাত্র সৈয়দ জাফর ইসলাম। পাকিস্তানকে সন্ত্রাসের কারখানা আখ্যা দিয়ে তিনি দাবি করেন, তার দল পার্লামেন্ট নির্বাচনে সুবিধা পেতে কোনও ভাবেই ২০১৯ সালের বিমান হামলাকে ব্যবহার করেনি। তিনি বলেন, ‘আমাদের দলের কাছে জাতীয় নিরাপত্তা এবং জাতীয়তাবাদ সবচেয়ে গুরুত্ব বহন করে। এগুলো নিয়ে আমরা কখনও সমঝোতা করি না, আর করবোও না। কিন্তু রাজনৈতিক উদ্দেশে কি এগুলো ব্যবহার করবো? কখনওই না।’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ