বুধবার ০৩ মার্চ ২০২১
Online Edition

মাদরাসা শিক্ষার স্বকীয়তা বজায় রাখতে হবে -বাংলাদেশ আদর্শ শিক্ষক ফেডারেশন

বাংলাদেশে মাদরাসা শিক্ষার স্বকীয়তা ও স্বাতন্ত্র্য বজায় রাখার দাবি জানিয়েছে ৯টি শিক্ষক সংগঠনের সমন্বয়ে গঠিত বাংলাদেশ আদর্শ শিক্ষক ফেডারেশন। গতকাল রোববার এক যুক্ত বিবৃতিতে ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় সভাপতি প্রফেসর ড. এম কোরবান আলী ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক সিনেট সদস্য ও বাংলাদেশ আদর্শ শিক্ষক ফেডারেশনের জেনারেল সেক্রেটারী অধ্যাপক এবিএম ফজলুল করিম বলেন- এ দেশে মাদরাসা শিক্ষা একটি বিশেষায়িত শিক্ষা। এখানে এক দিকে যেমন কুরআন, হাদিস, ফিকহ, আরবি ইত্যাদি ইসলামী বিষয়সমূহ শিক্ষা দেয়া হয়; তেমনি পাশা পাশি বাংলা, ইংরেজি, গণিত, বিজ্ঞান ইত্যাদি সাধারণ বিষয়সমূহও শিক্ষা দেয়া হয়। তাই মাদরাসা শিক্ষা ব্যবস্থা হলো ধর্মীয় ও আধুনিক শিক্ষার সমন্বয়ে একটি সমৃদ্ধ শিক্ষাব্যবস্থা। এই শিক্ষায় যারা শিক্ষিত হন, তারা ধর্মীয় ও আধুনিক উভয় দিকের জ্ঞান ও দক্ষতা অর্জন করে থাকেন। আর মাদরাসাসমূহে সকল বিষয়ের শিক্ষকই শিক্ষাদান কার্যক্রমের সাথে জড়িত। তাই এই সকল বিষয়ের শিক্ষকদের পরিচালনার জন্য মাদরাসার প্রশাসনিক পদে ধর্মীয় ও আধুনিক উভয় দিকের শিক্ষায় শিক্ষিত ব্যক্তির প্রয়োজন। আমরা গভীর উদ্বেগের সাথে লক্ষ্য করছি যে, ‘বাংলাদেশ মাদরাসা জেনারেল টিচার্স এসোসিয়েশন’ নামে একটি ভূঁইফোড় সংগঠন মাদরাসার প্রশাসনিক পদসমূহে সাধারণ শিক্ষিত লোকদের নিয়োগ দেয়ার দাবি জানাচ্ছে। যা নিতান্তই অযৌক্তিক, অসৎ উদ্দেশ্য প্রণোদিত ও অগ্রহণযোগ্য।
তারা বলেন, শিক্ষা মন্ত্রণালয় ঘোষিত এমপিও নীতিমালা ও জনবল কাঠামোতেও মাদরাসার অধ্যক্ষ, উপাধ্যক্ষ, সুপার, সহ-সুপার ইত্যাদি প্রশাসনিক পদে এবং গ্রন্থাগারিক ও সহকারী গ্রন্থাগারিক পদে মাদরাসা শিক্ষিতদেরকে নিয়োগ দেয়ার বিধান বলবৎ রাখা হয়েছে। অথচ, মাদরাসার এ সকল পদে সাধারণ শিক্ষিতদের নিয়োগ দেয়ার জন্য একটি কু-চক্রি মহল ‘বাংলাদেশ মাদরাসা জেনারেল টিচার্স এসোসিয়েশন’ এর ব্যানারে নানা অপ-তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে; যা নিতান্তই অনভিপ্রেত।
এ সকল তৎপরতা এ দেশের গৌরবময় মাদরাসা শিক্ষার স্বকীয়তা ও স্বাতন্ত্র্য নস্যাৎ করে এ শিক্ষা ব্যবস্থাকে পর্যায়ক্রমে ধ্বংস করার গভীর ষড়যন্ত্রের নামান্তর।বাংলাদেশের আলেম-উলামা, পীর-মাশায়েখ, মাদরাসার শিক্ষক-শিক্ষার্থী,ধর্মপ্রাণ মুসলমান ও তওহীদি জনতা এধরনের ষড়যন্ত্র কিছুতেই সফল হতে দেবেনা।  নেতৃদ্বয় বাস্তবতা উপলব্ধি করে মাদরাসার অধ্যক্ষ, উপাধ্যক্ষ, সুপার, সহ-সুপার ইত্যাদি প্রশাসনিক পদে এবং গ্রন্থাগারিক ও সহকারী গ্রন্থাগারিক পদে মাদরাসা শিক্ষিতদেরকে নিয়োগ দেয়ার বিধান বলবৎ রাখা, ষড়যন্ত্রকারীদের ব্যাপারে সতর্ক থাকা এবং বাংলাদেশে মাদরাসা শিক্ষার স্বকীয়তা ও স্বাতন্ত্র্য বজায় রাখার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সরকারের প্রতি জোর দাবি জানান। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ