বৃহস্পতিবার ০৪ মার্চ ২০২১
Online Edition

পাঠকের নির্ভরযোগ্য বন্ধু

মুহাম্মদ শামসুল ইসলাম সাদিক: শিকড়সন্ধানী একটি পত্রিকা দৈনিক সংগ্রাম। অনুসন্ধানী সংবাদ প্রকাশের ক্ষেত্রে জনপ্রিয় গণমাধ্যম হিসেবে বাংলাদেশের শীর্ষ ও সুপরিচিত। শহর-নগর ছাড়িয়ে দৈনিক সংগ্রাম পৌঁছে গেছে গ্রামগঞ্জে, প্রত্যন্ত অঞ্চলে। দৈনিক সংগ্রাম দেশ ও দশের কথা বলে, মাটি ও মানুষের কথা বলে। সততা ও বস্তুনিষ্ঠতার সঙ্গে কাজ করে দৈনিক সংগ্রাম পাঠকের আস্থা ও বিশ্বাস অর্জনে সমর্থ হয়েছে। দৈনিক সংগ্রাম মুদ্রিত ও অনলাইন দুটিরই সংযোগ ঘটিয়ে দুই শ্রেণির পাঠকের চাহিদাই বিবেচনায় নিয়েছে এবং সারা দেশের শীর্ষ দৈনিকের তালিকায় যে স্থান দখল করেছে, তা অব্যাহত থাকবে।

আংশিক নয় পুরো সত্য প্রকাশের দৃঢ় অঙ্গীকার হৃদয়ে ধারণ করে ৪৬ বছর আগে আজকের এই দিনে যাত্রা শুরু করেছিল দৈনিক সংগ্রাম। নানাবিধ প্রতিকূলতা সত্ত্বেও ফেলে আসা দিনগুলোতে মানুষের সুখ-দুঃখ, বেদনা আর আনন্দের সাথী হয়ে মানুষের তথ্য জানার ও পাওয়ার অধিকারটা সমুন্নত রেখে পাঠকের কাছে পৌঁছে দিতে সক্ষম হয়েছে প্রয়োজনীয়, অথচ না জানা যত দৈনন্দিন সংবাদ এবং সংবাদের পেছনের সংবাদ, যা পত্রিকাটাকে এনে দিয়েছে পাঠকপ্রিয়তা। দৈনিক সংগ্রাম এখন পাঠক নন্দিত দৈনিক পত্রিকা-যেটা জাতীয় দৈনিকের মধ্যে অধিকতর পাঠকপ্রিয় হিসেবে গ্রহণযোগ্যতা পেয়েছে। সমাজের বিভিন্ন ব্যক্তির সংগ্রামী জীবন, সফলতা, আবিষ্কার, জীবনের বেড়ে ওঠা ও সফলতার গল্প, শিল্প, সাহিত্য ও সংস্কৃতির নানা দিক ফুটে ওঠে। পক্ষান্তরে শিক্ষা, স্বাস্থ্যসহ বিভিন্ন সমকালীন বিষয় নিয়ে আলোচনায় সমাজের নানা শ্রেণি-পেশার মানুষের অভিমত প্রকাশ পায়। মানুষের অধিকার, দুঃখ ও দুর্দশা নিয়ে অনুসন্ধানী প্রতিবেদন প্রকাশের ফলে অসংখ্য পাঠকের নজর কাড়তে সক্ষম হয়েছে দৈনিক সংগ্রাম। 

দৈনিক সংগ্রামে’র এমন কিছু সম্মোহনী বৈশিষ্ট্য আছে, যা দিয়ে নিজেকে এক অনন্য উচ্চতায় প্রতিষ্ঠা করতে সক্ষম হয়েছে। দৈনিক সংগ্রামে’র যেসব বৈশিষ্ট্য পাঠকদের বিশেষভাবে আকর্ষণ করে তা হলো সংবাদপত্রের কাছে পাঠকের যেসব প্রত্যাশা থাকে তার মধ্যে সবার আগে চাই সংবাদ এবং সেই সংবাদ শুধু ঘটনার বিবরণ নয়, পাঠক সংবাদের পেছনের সংবাদ জানতে চায়। ঘটনার পেছনের কারণ এবং তাৎপর্য জানতেও উৎসুক। দৈনিক সংগ্রাম উপস্থাপনা শুধু কিভাবে ঘটনা ঘটল তার অনুপুঙ্খ বর্ণনা কিংবা কারা ঘটাল এর মধ্যেই সীমাবদ্ধ নয়, বরং কেন ঘটল, কী উদ্দেশ্য ও লক্ষ্য এ ঘটনার, সম্ভাব্য ফলাফল বিশ্লেষণে অন্যদের থেকে এগিয়ে দৈনিক সংগ্রাম। জনগণের স্বার্থের প্রতি দৈনিক সংগ্রাম পক্ষপাতিত্ব পত্রিকাটিকে বিশেষ মর্যাদা এনে দিয়েছে। দুর্নীতি, সাম্প্রদায়িকতা, সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ, মাদক, সামাজিক অবিচার ও শোষণ-বঞ্চনার বিরুদ্ধে দুর্বিনীত সাহসী অবস্থানের জন্যও দৈনিক সংগ্রাম নন্দিত পাঠকসমাজের কাছে। দেশের উন্নয়ন ও সাফল্যের চিত্র ধারাবাহিকভাবে উপস্থাপনের পাশাপাশি সরকারের ব্যর্থতার কথা সাহসিকতার সঙ্গে পাঠকের সামনে প্রকাশ করতে দ্বিধা করে না দৈনিক সংগ্রাম। 

সংবাদপত্রকে বলা হয় সমাজের দর্পণ। শুধু ঘটনা আর দুর্ঘটনার বাণী-চিত্রই সংবাদপত্রের পাতায় দেখতে চায় না পাঠক। সংবাদপত্র স্বপ্নের ফেরিওয়ালা হয়ে মানুষকে স্বপ্ন দেখাক, এটাও চায়। সে স্বপ্ন সুন্দর পৃথিবীর স্বপ্ন। সে স্বপ্ন সুখের আবহে সমৃদ্ধ সমাজের স্বপ্ন। কুসংস্কারের অন্ধকার পাড়ি দিয়ে আলোকিত দিনের স্বপ্ন। দৈনিক সংগ্রাম বিষয় বৈচিত্র্যে স্বপ্নের পথিকৃতের ভূমিকায় অবতীর্ণ হয় বটে। ইন্টারনেটের সহজলভ্যতা, বিশেষ করে মোবাইল ইন্টারনেটের সহজলভ্যতার কারণে সংবাদপত্র পাঠকদের দুই ভাগে ভাগ করা যায়, দর্শক-পাঠক ও পাঠক। দর্শক-পাঠক বারবার অনলাইনের স্ক্রিন অন করে খবর দেখতে চায়। মনঃসংযোগ করে খবরকে নানা আঙ্গিকে বিশ্লেষণ করতে চায় না দর্শক-পাঠক। অন্যদিকে পাঠক সংবাদ পাঠের সময় হৃদয় ও মস্তিষ্ক দুটিই প্রয়োগ করে। পড়তে পড়তে ভাবে, চিন্তা করে সংবাদ নিয়ে। দর্শক-পাঠকের চাই অনলাইন সংবাদ আর পাঠকের চাই মুদ্রিত সংবাদ। মুদ্রিত ও অনলাইন দুটিরই সংযোগ ঘটিয়ে দুই শ্রেণির পাঠকের চাহিদাই বিবেচনায় নিয়েছে দৈনিক সংগ্রাম। 

সংবাদ পরিবেশনায় আধুনিক কৌশল প্রয়োগ ও পাঠক বশীকরণে দৈনিক সংগ্রাম সম্পূর্ণ ব্যতিক্রমী। খবর, খবরের ছবি, ব্যানার, বডি, ডেক, বাইলাইন, ক্যাপশন, কাটলাইন ইত্যাদির মধ্যে পেশাদারির ছাপ রয়েছে। দেশের বিভিন্ন উৎসব-পার্বণে দৈনিক সংগ্রাম সক্রিয়ভাবে ভূমিকা পালন করে। জাতীয় দিবসগুলোতে আলাদা লেখা ছাপা হয় দৈনিক সংগ্রামে, যা পাঠকের জানার চাহিদা পূরণ করে এবং আবেগের মূল্যায়ন করে। বাঙালি সংস্কৃতিকে এর অগ্রাধিকারের তালিকায় রেখে দৈনিক সংগ্রাম পাঠকসমাজে জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে। শিক্ষাক্ষেত্রে দৈনিক সংগ্রামে’র রয়েছে দৃঢ় অঙ্গীকার। যখনই শিক্ষা নিয়ে কোনো সংবাদ হয়, তা গুরুত্বের সঙ্গে প্রথম পৃষ্ঠায় স্থান দেয়া হয়। এছাড়া ক্রিকেট, ফুটবল, হকি, টেনিসসহ বিভিন্ন খেলা নিয়ে নিয়মিত সংবাদ ও বিশ্লেষণমূলক প্রতিবেদন প্রকাশ করে থাকে। এভাবেই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে দৈনিক সংগ্রাম বিগত ৪৫ বছর ধরে অত্যন্ত দক্ষতা ও নিরপেক্ষতার সাথে পাঠক মন জয় করতে সক্ষম হয়েছে। আমাদের প্রত্যাশা, দৈনিক সংগ্রাম সরকারের সাফল্যের চিত্র তুলে ধরার পাশাপাশি ভুলত্রুটি, ব্যর্থতা তুলে ধরে দেশের উন্নয়ন-অগ্রগতিতে অসাধারণ ভূমিকা রাখবে। স্বপ্নদ্রষ্ট্রা হয়ে আশা দেবে, ভরসা জোগাবে। বর্তমানকে স্থাপন করবে ইতিহাসের পটভূমিতে। ৪৬তম জন্মবার্ষিকীতে শুভ কামনা। বস্তুনিষ্ঠ ও সত্য সন্ধানে সাংবাদিকতার পথিকৃৎ হয়ে সব বাধা অতিক্রম করে সত্য প্রকাশে যেন দৃঢ় থাকে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ