রবিবার ২০ জুন ২০২১
Online Edition

স্কুল না খুললেও খুলনায় বাণিজ্যিক কোচিং-ব্যাচ চলছে

খুলনা অফিস : করোনা ভাইরাসের কারণে এখনও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান চালু করা হয়নি। তবে বাণিজ্যিক কোচিং-ব্যাচ ইতোমধ্যে সরগরম হয়ে উঠেছে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের পদচারণায়। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সরকারি ভাবে না খুললেও বাণিজ্যিক কোচিং-ব্যাচ খুলছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।
জানা গেছে, বিশ্বব্যাপী করোনা ভাইরাসের কারণে মার্চ থেকে বন্ধ রাখা হয়েছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। সরকারের সর্বশেষ নির্দেশনা পর্যন্ত আগামী ১৬ জানুয়ারি পর্যন্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ছুটি বাড়ানো হয়েছে। করোনা ভাইরাসের মধ্যেও শিক্ষার্থীদের ক্ষতি পুষিয়ে নিতে অনলাইন এবং টেলিভিশনের মাধ্যমেই চলছে শ্রেণি কার্যক্রম। বর্তমানে শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা বাদ দিয়ে শ্রেণিভিত্তিক মূল্যায়নের মাধ্যমে উর্ত্তীণ করার প্রক্রিয়া চলমান। তারই অংশ হিসেবে শিক্ষার্থীদের দেওয়া হচ্ছে নির্দিষ্ট এ্যাসাইনমেন্ট। শ্রেণি ভিত্তিক দেওয়া হচ্ছে জমা দেওয়ার পৃথক পৃথক তারিখ। এসব এ্যাসাইনমেন্টের কাজ ও নতুন বছরের পড়ালেখা এগিয়ে নিতে শুরু করেছে কোচিং-ব্যাচে আনাগোনা। দিন দিন ভিড়ও বাড়ছে।
খুলনা জিলা স্কুলের শিক্ষার্থী জাহিদ হাসান বলেন, সামনে পরীক্ষা এবং বিদ্যালয়ের কাজ জমা দিতে কোচিং-ব্যাচের মুখোমুখি হতে হচ্ছে। স্কুলের মতো কোচিং-ব্যাচ থেকেও অনলাইন পদ্ধতি চালু করেছে।
সরকারি ইকবালনগর মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থীর অভিভাবক জামিয়া খাতুন বলেন, বছরের শেষ সময়ে এসে শিক্ষার্থীদের জন্য স্কুলের থেকে কোচিং-ব্যাচ বেশি খুলেছে। নতুন বছরের বই দেওয়ার পর থেকেই বিভিন্ন কোচিং-ব্যাচ থেকে অনলাইনের ক্লাস নেওয়ার অফার দেওয়া হচ্ছে। আবার অনেক জায়গায় সরেজমিন পরীক্ষাও নেওয়া হচ্ছে।
কোচিং সেন্টার পরিচালকদের সংগঠনের সভাপতি শ্যামল কুমার রায় বলেন, সভাপতি হওয়ার কারণে অনেক সময় নিয়মের বাইরে যাওয়া যায় না। তবে অনেক কোচিং সেন্টার ও ব্যাচ চালু রয়েছে এবং করা হচ্ছে। অনেকেই সংগঠনের কোন নির্দেশনাও মানতে চান না। তবে সরকারি সিদ্ধান্তের বাইরে যাওয়া ঠিক না। খুলনা জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার এ এস এম সিরাজুদ্দোহা বলেন, শিক্ষার্থীদের শ্রেণিভিত্তিক মূল্যায়নের জন্য এ্যাসাইনমেন্ট প্রদানের জন্য কোচিং বা ব্যাচের কোন প্রয়োজন নেই।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ