শনিবার ২৮ নবেম্বর ২০২০
Online Edition

শ্রীকাইল গ্যাসক্ষেত্র থেকে আরও ২০ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস পাওয়া যাচ্ছে

স্টাফ রিপোর্টার: ব্রাক্ষণবাড়িয়ার শ্রীকাইল গ্যাসক্ষেত্র থেকে আরও ২০ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস পাওয়া যাবে। গ্যাসক্ষেত্রটির ৪ নম্বর কূপের নতুন স্তর থেকে এই পরিমাণ গ্যাস উত্তোলনের সম্ভাবনা দেখছেন সংশ্লিষ্টরা। গতকাল শনিবার শ্রীকাইল গ্যাসফিল্ডের ইনচার্জ প্রকৌশলী মো. শাহজাহান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, গ্যাসক্ষেত্রের ৪ নম্বর কূপের নতুন স্তর থেকে প্রায় ২০ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস উত্তোলন করা যাবে। আগামী কয়েকদিনের মধ্যেই এই গ্যাস উত্তোলন শুরু হবে।
এদিকে বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম এক্সপ্লোরেশন অ্যান্ড প্রোডাকশন কোম্পানি (বাপেক্স) সূত্রে জানা গেছে, শ্রীকাইল গ্যাসফিল্ডের ৪ নম্বর কূপের ওপরের স্তর থেকে আগেই ৬ থেকে ৭ মিলিয়ন ঘনফুট করে গ্যাস উত্তোলন করা হচ্ছিল। এখন নতুন করে আরও গভীরে খননের মাধ্যমে ২০ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস উত্তোলনের নিশ্চয়তা দেখা যাচ্ছে। দ্রুতই এই গ্যাস জাতীয় গিডে যুক্ত করা সম্ভব হবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।
উল্লেখ্য, তিন বছর আগে ২০১৭/১৮ সালে ত্রি-মাত্রিক ভূ-তাত্ত্বিক জরিপে কুমিল্লা জেলার মুরাদনগরের শ্রীকাইলে গ্যাসের অস্তিত্ব রয়েছে বলে নিশ্চিত হয় একমাত্র রাষ্ট্রীয় তেল-গ্যাস অনুসন্ধান ও উত্তোলনকারী প্রতিষ্ঠান বাপেক্স। এর পর ২০১৯ সালের অক্টোবরে ‘অনুসন্ধান কূপ শ্রীকাইল ইস্ট-১’ শিরোনামে প্রকল্পের কাজ শুরু হয়। যা শেষ হয় ২০২০ সালের জানুয়ারিতে। ওই সময় প্রায় তিন কিলোমিটার গভীর কূপ খনন করা হয়। এর খনন ব্যয় ধরা হয়েছিল ৭০ কোটি টাকা। নানা পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর গত ৪ মার্চ গ্যাসের অস্তিত্ব পাওয়ার বিষয়টি ঘোষণা দেয় বাপেক্স।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ