মঙ্গলবার ২৬ জানুয়ারি ২০২১
Online Edition

আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরীকে নাজিরহাট বড় মাদরাসার মুতাওয়াল্লী ও মুফতি হাবিবুর রহমান কাসেমীকে মুহতামিম নির্বাচিত

ফটিকছড়ি সংবাদদাতা : অবশেষে সকল জল্পনা কল্পনার অবসান ঘটিয়ে চট্টগ্রামের ফটিকছড়ির কওমী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নাজিরহাট বড় মাদরাসার (আল-জামিয়াতুল আরবিয়া নছিরুল ইসলাম) শূরা কমিটির বৈঠকে আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরীকে মুতাওয়াল্লী ও মুফতি হাবিবুর রহমান কাসেমীকে মুহতামিম নির্বাচিত করা হয়েছে এবং মুহাতামিম দাবিদার আল্লামা সলিমউল্লামকে মাদরাসার সকল দায়িত্ব থেকে অব্যহতি দিয়েছেন।  গতকাল বুধবার সকাল ১১টা থেকে শূরা কমিটর বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। সূরা কমিটির বৈঠক শেষে ঢাকার খিলগাঁও মাদরাসার মুহতামিম নুরুল ইসলাম জিহাদী এসব সিদ্ধান্তের কথা জানান।

বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন শূরা কমিটির সদস্য : বাবুনগর মাদরাসার মুহতামিম আল্লামা মুহিবুল্লাহ বাবুনগরী, পটিয়া মাদরাসার মুহতামিম আল্লামা আব্দুল হালিম বুখারী, হাটহাজারী মাদরাসার শায়খুল হাদিস আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী, ফটিকছড়ি তালিমুদ্দীন মাদরাসার মুহতামিম আল্লামা হাফেজ  কাছেম, নানুপুর ওবাইদিয়া মাদরাসার মুহতামিম আল্লামা সালাউদ্দিন, জিরি মাদরাসার মুহাতামিম আল্লামা খোবাইব, ঢাকা খিলগাঁও মাদরাসার মুহতামিম আল্লামা নুরুল ইসলাম জিহাদী, বসুন্ধরা মাদরাসার মুহতামিম আল্লামা মূফতি আরশাদ রহমানি, মেখল মাদরাসার মুহতামিম আল্লামা নোমান ফরাজি, ফতেহপুর মাদরাসার মুহতামিম আল্লামা মাহমুদুল হাছান, ওলিখান মসজিদের খতিব কারী আরওয়ার, খাতুনগঞ্জের ব্যাবসায়ী আল্লামা ওমর ফারুক। হাটহাজারী মাদরাসার প্যানেল মুহতামিম আল্লামা শেখ আহমদ অসুস্থ থাকায় ও চারিয়া মাদরাসা মুহতামিম আল্লামা আব্দুল্লাহ বিদেশ সফর থাকায় উপস্থিত হতে পারেননি। শূরা কমিটির বৈঠকে মাদরাসার মুতাওয়াল্লি করা হয় আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরীকে। শিক্ষা সচিব করা হয় হাবিবুল্লাহ নদভীকে। এবং  মুহতামিম হলেন হাবিবুর রহমান কাসেমী, নায়েবে মোহতামিম করা হয় মওলানা ইয়াহিয়াকে এবং মুঈনে মুহতামিম করা হয় মওলানা ইসমাইলকে। তারা আগামী শূরা বৈঠক পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করবেন।  নাজিরহাট মাদরাসার মুহতামিম দাবিদার মওলানা সলিমুল্লার দীর্ঘদিনের কার্যক্রম অবাঞ্ছিত ঘোষণা করে সকল দায়িত্ব থেকে বহিষ্কার করা হয়। এছাড়া মাওলানা সালাহ উদ্দিন, মুফতি হাশেম, মাওলানা মিজান, মাওলানা নুরুল আলম নছরি, মাওলানা মাহফুজুর রহমান, হাফেজ ইদ্রিস, হাফেজ আব্দুল কাদেরকেসহ নতুন নিযুক্ত ৫ জনকেও বহিষ্কার করা হয়। তারা হলেন, মাওলানা ইয়াছিন, মাওলানা আলী আকবর, আমির হোসেন, মাওলানা আব্দুর রহিম, মাওলানা হারুনর রশিদ।

কঠোর নিরাপত্তার মধ্যে দিয়ে শূরা বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। শূরা বৈঠককে কেন্দ্র করে নিরপত্তাজনিত কারণে মাদরাসাসহ আশেপাশের এলাকায় বিপুল আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী অবস্থান ছিল। বন্ধ রাখা হয়েছিল নাজিরহাট বাজারের সব ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও যানবাহন চলাচল। ৪ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটসহ নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করছে পুলিশ, র‌্যাবসহ ডিবি পুলিশের সদস্যরা।  উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার সায়েদুল আরেফিন, উপজেলা চেয়ারম্যান আবু তৈয়ব, জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মশিউদ্দৌলা রেজা, ফটিকছড়ি থানা অফিসার্স বাবুল আকতারসহ প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

সার্বিক বিষয়ে তদারকি করছেন এমপি সৈয়দ নজিবুল বশর মাইজভা-ারী। উল্লেখ্য গত ২৭ মে মাদরাসার মুহতামিম আল্লামা শাহ মুহাম্মদ ইদ্রিস ইন্তিকাল করলে সহকারী পরিচালক মুফতি হাবিবুর রহমানকে ভারপ্রাপ্ত মুহতামিমের দায়িত্ব দেয় শূরা কমিটি। পরবর্তীতে মাদরাসার শূরা সদস্য হাটহাজারী বড় মাদরাসার মরহুম পরিচালক আল্লামা আহমদ শফী মাওলানা সলিমুল্লাহকে মুহতামিম ঘোষণা করেছে বল নিজেকে মুহতামিম দাবি করে মাদরাসা  শিক্ষক মওলানা সলিমুল্লাহ। এতে বিভক্ত হয়ে পড়ে শিক্ষক ছাত্র ও এলাকাবাসী। এ পরিস্থিতিতে গত শনিবার বিক্ষুব্ধ ছাত্রদের তীব্র আন্দোলনের মুখে মাদরাসা ত্যাগ করতে বাধ্য হয় মুহতামিম দাবিদার মাওলানা সলিমুল্লাহ। স্থানীয় আলহাজ্ব নজিবুল বশর মাইজভা-ারীর হস্তক্ষেপে ছাত্রদের পরিস্থিতি শান্ত হয় এবং শূরা কমিটির বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। শতবর্ষী এ দ্বীনিশিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বিদ্যমান জটিলতা নিরসনে গতকাল বহুল প্রতিক্ষিত শূরা কমিটির বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৈঠক থেকে নতুন মুহতামিম নিয়োগসহ মাদরাাসা পরিচালনায় গুড়ুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ