সোমবার ১৮ জানুয়ারি ২০২১
Online Edition

নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ শেষে আজ থেকে মুক্ত সাকিব

স্পোর্টস রিপোর্টার : সাকিব আল হাসানের নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ শেষ। আজ থেকে মুক্ত সাকিব। গতকাল বুধবার বাংলাদেশ সময় রাত বারটার পরেই নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ শেষ হয় সাকিবের। আজ থেকে আবার বাংলাদেশের ক্রিকেটের নতুন করে শুরুর দিন সাকিবের। দেশ সেরা ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান নতুন করে পথ চলা শুরু করবেন। সব ধরনের ক্রিকেট থেকে এক বছরে নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে আবারও ক্রিকেট মাঠে মুক্ত এখন সাকিব। ফিক্সিংয়ের প্রস্তাব গোপন করায় এক বছর আগে নিষিদ্ধ হয়েছিলেন তারকা এ ক্রিকেটের। গত বছর ২৮ অক্টোবর আইসিসির নিষেধাজ্ঞায় পড়েন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার। তিনি ম্যাচ ফিক্সিংয়ের সাথে জড়িত ছিলেন না। আইসিসি দূর্নীতি দমন কমিশন তার বিপক্ষে  কোনোরকম ম্যাচ ও স্পট ফিক্সিংয়ের অভিযোগ আনতে পারেনি। তার বিপক্ষে একটাই অভিযোগ, সাকিব বাজিকরদের কাছ থেকে প্রস্তাব পেয়ে তা নিজ দেশের বোর্ড কিংবা আইসিসি দুর্নীতি দমন শাখাকে জানাননি। যা আইসিসির প্রচলিত আইন ও নিয়মে শাস্তি যোগ্য অপরাধ বলেই গণ্য করা হয়। তাই সাকিব এক বছরের জন্য নিষিদ্ধ হয়েছিলেন। এদিকে সাকিবের ভক্ত, সমর্থক ও অনুরাগীর সবাই উৎফুল। প্রিয় ক্রিকেটার আবার আগের মত মুক্ত হয়ে মাঠে ফিরতে যাচ্ছেন। আবার ব্যাট ও বল হাতে মাঠে নামবেন। ঘূর্ণি জাদুতে প্রতিপক্ষ ব্যাটসম্যানদের কাছ থেকে সর্বাধিক সমীহ আদায় করে নেবেন। আর বুদ্ধি খাটিয়ে বল করে ব্যাটসম্যানকে বোকা বানাবেন। চওড়া উইলো দিয়ে বিপক্ষ বোলারদের করবেন শাসন। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডও সাকিবের ফিরে আসার প্রহর গুনছে। দেশের ক্রিকেটের বড় সম্পদ ও জাতীয় দলের প্রধান চালিকাশক্তি সাকিব ফেরা মানেই টিম বাংলাদেশ চাঙ্গা হওয়া। দলের ব্যাটিং ও বোলিং শক্তি আবার আগের মত হয়ে যাওয়া।এ কারণেই ভাবা হচ্ছে, সাকিবের শাস্তির মেয়াদ শেষ হয়ে যাওয়াটা বিসিবির জন্য বড় স্বস্তির ও আনন্দের। সাকিব মানেই অন্যদের বাড়তি অনুপ্রেরণা। আর পারফরমার সাকিবতো এক নম্বর। গত বিশ্বকাপই তার প্রমাণ। সাকিব একা ব্যাট হাতে জ্বলে উঠে দলকে টেনে নিয়ে গেছেন। তার অভাবে ব্যাটিং দুর্বল হয়ে পড়েছিল বেশ। আর বোলিং ডিপার্টমেন্ট বিশেষ করে স্পিন আক্রমণের ধারও কমে গিয়েছিল অনেকটাই। সেই অতিকার্যকর সাকিব দলে ফেরার অর্থ জাতীয় দলের শক্তি ৩০ভাগ বেড়ে যাওয়া। সাকিবের ফেরা নিয়ে বোর্ডের প্রধান নির্বাহী নিজামউদ্দীন চৌধুরী সুজর মনে করেন, সাকিব দলে ফেরা একটা স্বস্তি। সেই সাথে আনন্দের। তিনি সাকিবের কাছ থেকে অগের মত অতি কার্যকর পারফরমেন্সেরও প্রত্যাশা করছেন। বিসিবি প্রধান নির্বাহী বলেন, ‘সাকিব আমাদের (বিসিবির) অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একজন খেলোয়াড়। অবশ্যই তার প্রত্যাবর্তন আমাদের জন্য কমফোর্ট ও আনন্দের বিষয়ও। আমরা আশা করবো, উনি যেভাবে আমাদের জাতীয় দলে ও অন্যান্য টুর্নামেন্টে অবদান রেখেছেন সেভাবেই ফিরে আসবেন।’ জুয়াড়ির প্রস্তাব গোপন করার দায়ে ক্রিকেট থেকে দুই বছরের নিষেধাজ্ঞা পেয়েছিলেন সাকিব আল হাসান। যার মধ্যে এক বছরের স্থগিতাদেশ ছিল। প্রথম বছরের নিষেধাজ্ঞার সময় নতুন করে কোনো বিতর্কে জড়ালে আরেকবছর নিষিদ্ধ থাকতে হতো সাকিবকে। কিন্তু সতর্কতার সঙ্গেই নিষেধাজ্ঞার প্রথম বছর পার করেন বাংলাদেশের সেরা এই তারকা। ফলে আজ থেকে ক্রিকেটে ফেরার ক্ষেত্রে আর কোনো বাধা থাকবে না সাকিবের। নভেম্বরে দেশের মাটিতে আয়োজিত টি-টোয়েন্টি কাপ দিয়ে মাঠে ফিরবেন সাকিব। এরপর জাতীয় দলের সঙ্গে ওয়েস্ট ইন্ডিজ, শ্রীলংকা সফরও করার কথা এই টাইগার অলরাউন্ডারের। গত বছর ভারত সফরের এক সপ্তাহ আগে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল থেকে নিষেধাজ্ঞার আদেশ পান সাকিব। সেই সফর থেকে এক বছরে সাকিবের মোট মিস করার কথা ছিল ৩৬টি ম্যাচ। কিন্তু বিশ্বজুড়ে প্রাণঘাতী মহামারি করোনা ভাইরাস অনেকটা সৌভাগ্য বয়ে আনে সাকিবের জন্য। করোনার হানায় দীর্ঘ প্রায় সাত মাস আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের বাইরে টিম টাইগার। এর আগে বাংলাদেশ দল খেলেছিল কেবল চার টেস্ট, তিন ওয়ানডে এবং সাত টি- টোয়েন্টি। খুব স্বাভাবিকভাবেই প্রত্যেকটি মিস করেছে সাকিব। তবে নিষেধাজ্ঞায় থাকা সাকিবের মিস করার কথা ছিল আরও বেশি ম্যাচ। যুক্তরাষ্ট্র থেকে আগামী ১ নভেম্বর ঢাকায় ফিরে বাংলাদেশ ক্রিকেট  বোর্ডের (বিসিবি) আয়োজিত টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট দিয়ে মাঠে ফিরবেন সাকিব। এর আগে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে নিউইয়র্কে বর্ণাঢ্য এক শুভেচ্ছা বিনিময়-সমাবেশে সবার কাছে দোয়া চাইলেন বিশ্বসেরা এই অলরাউন্ডার। সেই সঙ্গে তার মতো একই ভুল যে কেউ না করে  সে ব্যাপারেও সাবধান করে দিলেন তিনি। অনুষ্ঠানে সাকিব বলেন, ‘বিসিবির নির্দেশ অনুযায়ী মাঠে নামব। বিসিবির সঙ্গে এ ব্যাপারে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখছি। বাংলাদেশের ক্রিকেটকে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে আরও উজ্জ্বল করার চেষ্টা করব। নিজের যতটা সম্ভব সেরা খেলা উপহার দিয়ে যাব। আমার মতো ভুল যেন কেউ না করে।’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ