সোমবার ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১
Online Edition

প্রকল্পের বিরুদ্ধে মামলা হলে সঙ্গে সঙ্গে ব্যবস্থা নেয়া হবে -প্রধানমন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই নির্দেশনা দিয়েছেন, যেকোনও প্রকল্পের বিরুদ্ধে মামলা হলে সঙ্গে সঙ্গে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। তিনি বলেন, ‘মামলার কারণে অনেক প্রকল্প বাস্তবায়নে দেরি হয়ে যায়। মামলা যখনই হবে, উদ্যোগী মন্ত্রণালয় যেন সঙ্গে সঙ্গে ব্যবস্থা গ্রহণ করে, যাতে প্রকল্প বাস্তবায়ন কোনোভাবে ব্যাহত না হয়।’
একইসঙ্গে প্রকল্পের কর্মকর্তা বদলি হয়ে গেলেও যাতে প্রকল্প বাস্তবায়নে কোনও সমস্যা তৈরি না হয়, সেদিকে নজর রাখারও নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। কর্মকর্তা চলে যাওয়ার পর যাতে প্রকল্প বাস্তবায়নে শূন্যতা তৈরি না হয়, সেজন্য ব্যবস্থা নেয়ারও নির্দেশ দেন তিনি।
গতকাল মঙ্গলবার একনেক সভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এসব নির্দেশনা দেন বলে সভা শেষে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন পরিকল্পনা সচিব আসাদুল ইসলাম। শেরে বাংলা নগরস্থ এনইসি সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত সভায় ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে গণভবন থেকে যোগ দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
সভায় কৃষিমন্ত্রী আব্দুর রাজ্জাক, স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী তাজুল ইসলাম, শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন, স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক, পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন এবং ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী অংশগ্রহণ করেন।
সভায় মন্ত্রিপরিষদ সচিব, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব, এসডিজি বিষয়ক মুখ্য সমন্বয়ক, পরিকল্পনা কমিশনের সদস্য, সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়গুলোর সচিব এবং ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা তুলে ধরে পরিকল্পনা সচিব জানান, সিটি করপোরেশনগুলো বা স্থানীয় সরকারের যে প্রতিষ্ঠানগুলো আছে, সেগুলোর সক্ষমতা বাড়াতে হবে। এজন্য ধীরে ধীরে কীভাবে, কোন প্রতিষ্ঠান কী করবে, কীভাবে অর্গানাইজেশন থাকবে- এটা পুরোটা রিভিজিট করতে হবে। যদিও ‘ঢাকা সিটি করপোরেশনের পুরো টাকাই সরকারের তহবিল থেকে দেয়ার নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।
সচিব আরও জানান, একনেক সভায় প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘প্রয়োজনে পর্যাপ্ত পরিমাণ ব্রিজ, কালভার্ট ও পানি চলাচলের ব্যবস্থা করতে হবে। কোনও ক্ষেত্রে প্রয়োজন হলে রাস্তা এদিক-ওদিক করতে হবে। বিশেষ করে বিল, হাওর-বাঁওড় বাঁচিয়ে রাখতে হবে। কারণ, এগুলো আমাদের লাইফ লাইন।
এগুলো ভূগর্ভস্থ পানির স্তর রক্ষা করে, বিভিন্নভাবে পানি সরবরাহ করে।’ প্রাকৃতিক ভারসাম্য রক্ষা করতে তিনি এই নির্দেশনা দিয়েছেন। জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক) ৫ হাজার ১৮৯ কোটি ৬৯ লাখ টাকা ব্যয় সম্বলিত ৩টি প্রকল্প অনুমোদন করেছে। এর মধ্যে সরকারি অর্থায়ন ২ হাজার ৮৫৫ কোটি ৮ লাখ টাকা, সংস্থার নিজস্ব অর্থায়ন ৬৩ কোটি ৮৫ লাখ টাকা এবং বৈদেশিক উৎস হতে প্রাপ্ত ঋণ ২ হাজার ২৭০ কোটি ৭৬ লাখ টাকা।
অনুমোদিত প্রকল্পসমূহ হলো সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের ২টি প্রকল্প যথাক্রমে ‘সোনাপুর (নোয়াখালী)-সোনাগাজী (ফেনী)-জোয়ারগঞ্জ (চট্টগ্রাম) সড়ক উন্নয়ন (২য় সংশোধিত)’ প্রকল্প ও ‘সাসেক সড়ক সংযোগ প্রকল্প-২: এলেঙ্গা-হাটিকামরুল-রংপুর মহাসড়ক চার লেনে উন্নীতকরণ (১ম সংশোধিত)’ প্রকল্প এবং স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের ‘ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন এলাকার ট্রাফিক অবকাঠামো উন্নয়নসহ সড়ক নিরাপত্তা’ প্রকল্প।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ