সোমবার ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১
Online Edition

সালাম নিয়ে মন্তব্যে ঢাবি শিক্ষক জিয়ার বিরুদ্ধে দুই মামলা

স্টাফ রিপোর্টার : আসসালামু আলাইকুম’ ও ‘আল্লাহ হাফেজ’ বলাকে জঙ্গীবাদের চর্চা বলে মন্তব্য করার অভিযোগে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) ক্রিমিনোলজি বিভাগের অধ্যাপক জিয়া রহমানের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে দুইটি মামলা করা হয়েছে। গতকাল রোববার সাইবার ট্রাইব্যুনালে পৃথকভাবে মামলা দুটি করা হয়। বাদীর জবানবন্দি গ্রহণ করে ট্রাইব্যুনালের বিচারক মোহাম্মদ আসসামছ জগলুল হোসেন মামলা দুটি তদন্ত করে ১ নভেম্বরের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটকে (সিটিটিসি) নির্দেশ দিয়েছেন। ট্রাইব্যুনালের পেশকার শামীম আল মামুন বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন।
বাংলাদেশ সাইবার ক্রাইম ট্রাইব্যুনালে প্রথম মামলাটি করেন মাসিক আল বাইয়্যিনাত ও দৈনিক আল ইহসানের সম্পাদক মুহম্মদ মাহবুব আলম। পরে ইমরুল হাসান নামের এক আইনজীবী আরো একটি মামলা দায়ের করেন। প্রথম মামলার আইনজীবী মুহাম্মদ হুজ্জাতুল ইসলাম খান আলফেসানী জানান, সকালে মামলার শুনানি শেষে বিকেলে আদালত জিয়া রহমানের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে করা দুটি মামলা তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন। আইনজীবী বলেন, ‘শুনানিতে আমরা বলেছি; সালাম দেওয়া মুসলিম সমাজের একটি রীতি। এটিকে ব্যাঙ্গাত্বক করে মুসলমানদের ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হানা হয়েছে।’
মামলার আরজিতে বলা হয়েছে, ‘আসসালামু আলাইকুম’ বলা ও ‘আল্লাহ হাফেজ’ বলাকে গর্হিত, নিন্দনীয়, জঘন্য ব্যাখ্যা করেন অধ্যাপক জিয়া রহমান। এসবকে জঙ্গীবাদের সঙ্গে সম্পৃক্ত করেন তিনি। এর আগে গত বৃহস্পতিবার ড. জিয়া রহমানকে বক্তব্য প্রত্যাহার করে ক্ষমা চাওয়ার আহ্বান জানিয়ে আইনি নোটিশ পাঠিয়েছিলেন মুহম্মদ মাহবুব আলমের পক্ষে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মুহম্মদ শেখ ওমর শরীফ।
উল্লেখ্য, সম্প্রতি বেসরকারি ‘ডিবিসি নিউজ’ টেলিভিশন চ্যানেলের ‘উপসংহার’ নামক টক শোতে ‘ধর্মের অপব্যাখ্যায় জঙ্গীবাদ’ বিষয়ক আলোচনায় মুসলিমদের শুদ্ধ উচ্চারণে ‘আসসালামু আলাইকুম’ বলা ও ‘আল্লাহ হাফেজ’ বলাকে গর্হিত, নিন্দনীয়, জঘন্য বলে ব্যাখ্যা করেন অধ্যাপক জিয়া রহমান।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ