ঢাকা,শনিবার 5 December 2020, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১৯ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী
Online Edition

নোয়াখালীতে ফের গৃহবধূকে ধর্ষণ ও বিবস্ত্র করে ভিডিও ধারণ

সংগ্রাম অনলাইন ডেস্ক: নোয়াখালীর  বেগমগঞ্জের ধর্ষণ ও ভিডিও ধারনের ঘটনা নিয়ে দেশ তোলপাড় চলছে। এর মধ্যে জেলার সেনবাগ ও চাটখিলে অন্তঃসত্ত্বাসহ দুই গৃহবধূকে ধর্ষণ ও বিবস্ত্র করে ভিডিও করার অভিযোগ উঠেছে। নির্যাতনের শিকার দুই নারী থানায় মামলা করেছেন।

সেনবাগ উপজেলায় বাড়িতে ঢুকে গৃহবধূকে ধর্ষণের অভিযোগে তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। অন্যদিকে চাটখিলে গৃহবধূকে ধর্ষণ ও বিবস্ত্র করে ভিডিও ধারণের অভিযোগে একজনকে  গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গ্রেপ্তাকৃত শরীফ উপজেলার নোয়াখলা ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি। 

পুলিশ জানায়, চাটখিলে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে বুধবার ভোরে  প্রবাসীর স্ত্রীকে ধর্ষণ ও বিবস্ত্র করে ভিডিও ধারণ করার অভিযোগে মুজিবুল রহমান শরীফ (৩২) নামে এক ব্যক্তিকে  গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গতকাল বুধবার নোয়াখলা ইউনিয়নের স্থানীয় বাজার থেকে অভিযুক্ত  গ্রেপ্তার করা হয় বলে জানান চাটখিল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আনোয়ারুল ইসলাম। 

অন্যদিকে, সেনবাগ উপজেলায় গ্রেপ্তারকৃতরা হ'ল- পূর্ব ছাতারপাইয়া গ্রামের আব্দুল কাইউমের ছেলে যোবায়ের হোসেন শুভ (১৯), আলমগীর হোসেনের ছেলে মাইনুল হাসান (১৯) ও আব্দুল হকের ছেলে আরমান হোসেন রকি (২০)।

উপজেলার পূর্ব ছাতারপাইয়া গ্রামে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তারের পর বুধবার বিকেলে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে বলে সেনবাগ থানার ওসি আবদুল বাতেন মৃধা জানান।

ওসি বাতেন মামলার নথির বরাতে বলেন, মঙ্গলবার রাতে ওই গৃহবধূ থানায় অভিযোগ করেন, গত ৯ অক্টোবর রাতে একই বাড়ির চাচাত দেবর পারভেজ বসত ঘরে ঢুকে তাকে ধর্ষণ করেন। পারভেজের সহযোগীরা গৃহবধূকে তার পাশে বসিয়ে মোবাইল ফোনে ভিডিও চিত্র ধারণ করেন। পরে ইন্টারনেটে প্রকাশের হুমকি দিয়ে ৩০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করেন তারা।

ওসি বলেন, অভিযোগের ভিত্তিতে রাতেই আসামিদের মধ্যে তিনজনকে গ্রেপ্তারের পর গৃহবধূর দায়ের করা মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়। মামলার এজাহারে আটজনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত আরও কয়েকজনকে আসামি করা হয়েছে। তাদের ধরার চেষ্টা চলছে।

ডিএস/এএইচ

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ