মঙ্গলবার ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২
Online Edition

আল্লামা শফীকে নিয়ে অন্য কারও স্মারক প্রকাশে মানা

স্টাফ রিপোর্টার: সদ্য ইন্তিকাল করা দেশের শীর্ষ আলেম, হেফাজতে ইসলামের আমীর আল্লামা শাহ আহমদ শফীর বর্ণাঢ্য জীবন নিয়ে সমৃদ্ধ স্মারক প্রকাশের সিদ্ধান্ত নিয়েছে পরিবার ও তার হাতেগড়া সংগঠন আঞ্জুমানে দাওয়াতে ইসলাহ। এজন্য আল্লামা শফীকে নিয়ে আপাতত কেউ যেন স্মারকগ্রন্থ প্রকাশ না করে সে ব্যাপারে অনুরোধ জানানো হয়েছে। হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের সাবেক আমীর আল্লামা শাহ আহমদ শফীকে (রহ.) নিয়ে তার পরিবারের সম্মতি ছাড়া কোনো স্মারক বা প্রকাশনা বের করা যাবে না। বস্তুনিষ্ঠ গবেষণা ছাড়া স্মারক প্রকাশ করলে তার অবিতর্কিত জীবন বিতর্কিত হওয়ার তীব্র আশঙ্কা রয়েছে বলে পরিবারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।
গতকাল বুধবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের আব্দুস সালাম হলে আল্লামা শফী প্রতিষ্ঠিত আঞ্জুমানে দাওয়াতে ইসলাহ বাংলাদেশ এবং তার পরিবারের যৌথ উদ্যোগে স্মারকগ্রন্থ প্রকাশনা উপলক্ষে আয়োজিত প্রেস কনফারেন্সে এই আহ্বান জানানো হয়। সাংবাদিক সম্মেলনে আল্লামা শফীর দুই ছেলে মাওলানা মোহাম্মদ ইউসুফ ও আঞ্জুমানের আমীর মাওলানা আনাস মাদানীসহ পরিবারের অন্যান্য সদস্য এবং খলিফাদের মধ্যে শায়খুল হাদিস মাওলানা রুহুল আমিন খান উজানভী, মাওলানা আবু সায়েম মোহাম্মদ খালেদ, মুফতি আব্দুস সাত্তার, মুফতি নাসির উদ্দীন কাসেমী, মুফতি সালমান, মুফতি নূরে আলম, মাওলানা আসআদ, মাওলানা আবু আইয়ুব আনসারী, মুফতি মাসউদসহ অনেকেই উপস্থিত ছিলেন। দেশ-বিদেশে ছড়িয়ে থাকা আল্লামা শাহ আহমদ শফী (রহ.) এর খলিফা, মুরিদ, ছাত্র-শিষ্য এবং শুভাকাক্সক্ষীদের লেখা ও তথ্য দিয়ে স্মারক কমিটিকে সহযোগিতা করারও আহ্বান জানানো হয় সাংবাদিক সম্মেলনে।
লিখিত বক্তব্যে মাওলানা আনাস মাদানী বলেন, আল্লামা শাহ আহমদ শফীর পরিবার ও তার হাতেগড়া সংগঠন আঞ্জুমানে দাওয়াতে ইসলাহ যৌথ উদ্যোগে তার বর্ণাঢ্য জীবন নিয়ে সমৃদ্ধ স্মারক প্রকাশের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এমতাবস্থায় আল্লামা শফীকে নিয়ে আপাতত কেউ যেন স্মারক প্রকাশ না করে। কারণ বস্তুনিষ্ঠ গবেষণা ছাড়া স্মারক প্রকাশ করলে তার অবিতর্কিত জীবন বিতর্কিত হওয়ার তীব্র আশঙ্কা রয়েছে।
বক্তব্যে বলা হয়, আল্লামা আহমদ শফী কর্মজীবনের প্রায় ৮০ বছর দ্বীনের বহুমুখী খেদমত করেছেন। মুসলিম উম্মাহর জন্য রয়েছে তার বিরাট অবদান। তার বর্ণাঢ্য জীবনের নানা দিক সংরক্ষণ করা সবার কর্তব্য।  তার কর্মময় জীবন নিয়ে পূর্ব থেকেই চলছে চুলচেরা গবেষণা, এমনকি অনেকে তার জীবন নিয়ে পিএইচডিও করছেন।  তাই দেশ-বিদেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে জোর দাবি উঠেছে, তার বর্ণিল জীবনকে কাগজের পাতায় স্মারক হিসেবে প্রকাশ করার জন্য। এ প্রেক্ষাপটে আল্লামা আহমদ শফীর পরিবারবর্গ এবং তার হাতেগড়া সংগঠন আঞ্জুমানে দাওয়াতে ইসলাহর যৌথ উদ্যোগে বর্ণাঢ্য স্মারক প্রকাশ করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে।
আনাস মাদানী বলেন, আল্লামা আহমদ শফীর জীবনের সব দিক নিয়ে অত্যন্ত বস্তুনিষ্ঠ গবেষণা করা অপরিহার্য। তাই তার পরিবারবর্গ এবং তার হাতেগড়া আধ্যাত্মিক সংগঠন আঞ্জুমানে দাওয়াতে ইসলাহ বাংলাদেশ ছাড়া আপাতত কেউ যেন স্মারক প্রকাশ না করে।
এদিকে স্মারকগ্রন্থ সম্পাদনা পরিষদের সমন্বয়ক এহসান সিরাজের পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, আল্লামা আহমদ শফী (রহ.) ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইন্তেকাল করেছেন। তিনি আল্লামা হুসাইন আহমদ মাদানি (রহ.)-এর সুযোগ্য খলিফা, দারুল উলুম মুঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদ্রাসার মহাপরিচালক, হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের আমীর, কওমি মাদ্রাসা শিক্ষাবোর্ড বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়া বাংলাদেশের সভাপতি, কওমি মাদরাসার সমন্বিত সর্বোচ্চ বোর্ড আল হাইয়াতুল উলইয়া লিল জামিয়াতিল কওমিয়া বাংলাদেশের চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। কর্মজীবনের প্রায় ৮০ বছর তিনি আঞ্জাম দিয়েছেন বহুমুখী খেদমত। এদেশের মুসলিম উম্মাহর জন্য রয়েছে তার বিরাট অবদান। তার বর্ণাঢ্য জীবনের নানা দিক সংরক্ষণ করা সবার কর্তব্য। তাই কর্মময় জীবন নিয়ে পূর্ব থেকেই চলছে চুলচেরা গবেষণা, এমনকি অনেকে তার জীবন নিয়ে পিএইচডিও করছেন।
তাই দেশ-বিদেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে জোর দাবি উঠেছে, তার বর্ণিল জীবনকে কাগজের পাতায় স্মারক হিসেবে প্রকাশ করার জন্য। এই প্রেক্ষাপটে আল্লামা আহমদ শফী (রহ.)-এর পরিবারবর্গ এবং তার হাতেগড়া সংগঠন আঞ্জুমানে দাওয়াতে ইসলাহর যৌথ উদ্যোগে তার বর্ণাঢ্য স্মারক প্রকাশ করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে। বিষয়টি গণমাধ্যম মারফত জাতির সামনে তুলে ধরলাম। কারণ, আল্লামা আহমদ শফী (রহ.)-এর জীবনের সব দিক নিয়ে অত্যন্ত বস্তুনিষ্ঠ গবেষণা করা অপরিহার্য। তাই তার পরিবারবর্গ এবং তার হাতেগড়া আধ্যাত্মিক সংগঠন আঞ্জুমানে দাওয়াতে ইসলাহ বাংলাদেশ ছাড়া আপাতত কেউ যেন স্মারক প্রকাশ না করে। বস্তুনিষ্ঠ গবেষণা ছাড়া স্মারক প্রকাশ করলে তার অবিতর্কিত জীবন বিতর্কিত হবার তীব্র আশঙ্কা রয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ