শনিবার ২৪ অক্টোবর ২০২০
Online Edition

থামছেই না নারীর প্রতি সহিংসতা

স্টাফ রিপোর্টার : বগুড়ার শেরপুর উপজেলার ভবানীপুর ইউনিয়নে গত শনিবার এক গৃহবধূকে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় অভিযুক্ত সাইফুল ইসলাম (২৮) নামের একজনকে আটক করেছে পুলিশ। তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। এদিকে নীলফামারীর সৈয়দপুরে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের দায়ে ফায়ার সার্ভিসের ফায়ারম্যান আবু সাঈদ ওরফে সবুজকে (৩২) গ্রেফতার করা হয়েছে। এছাড়া নারায়নগঞ্জে ৫ বছরের এক শিশুকে ১৩ বছরের কিশোর ধর্ষণ করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।
পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, শেরপুর গ্রেফতার সাইফুল পেশায় রাজমিস্ত্রি। অনেকদিন থেকে ওই গৃহবধূকে কু-প্রস্তাব দিয়ে আসছিল সে। এতে রাজি না হওয়ায় গৃহবধূর স্বামী সন্তানদের ক্ষতি করার হুমকি দিয়ে আসছিল সে। গত শনিবার রাতে বাড়ির আঙিনায় টিউবওয়েলে হাত-মুখ ধুতে বের হন ওই গৃহবধূ। এ সময় সাইফুল গোপনে তার শয়ন কক্ষে প্রবেশ করে। ওই গৃহবধূ ঘরে প্রবেশ করলে তার মুখ চেপে ধর্ষণ করে সাইফুল। এ সময় গৃহবধূর চিৎকার শুনে প্রতিবেশীরা এসে তাকে উদ্ধার করে এবং সাইফুলকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে। পরে থানায় মামলা দায়ের করেন ভুক্তভোগী। এ ব্যাপারে শেরপুর থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘ধর্ষণের অভিযোগে একজনকে আটক করা হয়েছে। তাকে জেলে পাঠানো হয়েছে।’
ফায়ারম্যান গ্রেফতার: নীলফামারীর সৈয়দপুরে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের দায়ে ফায়ার সার্ভিসের ফায়ারম্যান আবু সাঈদ ওরফে সবুজকে (৩২) গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সে উপজেলার পূর্ব বোতলাগাড়ি গ্রামের ওয়াপদা নতুন হাটের মৃত আইয়ুব আলীর ছেলে। গত শনিবার সন্ধ্যায় জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯-এ কল পেয়ে সবুজকে গ্রেফতার ও ভিকটিম স্কুলছাত্রীকে উদ্ধার করে পুলিশ। এ ব্যাপারে রাতেই মেয়েটির বাবা তবার আলী বাদী হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেন।
জানা গেছে, অভিযুক্ত আবু সাঈদ ওরফে সবুজ রংপুরের তারাগঞ্জ ফায়ার সার্ভিস স্টেশনে ফায়ারম্যান হিসেবে কর্মরত। মামলার সূত্র মতে, উপজেলার ওই ইউনিয়নের উত্তর সোনাখুলি গ্রামের তবার আলীর কন্যা গোলাহাট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী প্রাইভেটে যাওয়া আসার পথে সবুজ তাকে উত্ত্যক্ত করতো। গত ১৬ অক্টোবর সবুজ ছুটিতে বাড়ি আসায় ওই ছাত্রী ঢেলাপীর গ্রামের পুলপাড়াস্থ বড় বোনের বাড়িতে বেড়াতে যায়। বড় বোন ইপিজেডে শ্রমিকের কাজে ও অটোচালক দুলাভাই বাইরে থাকার সুযোগে সবুজ বিকালে কৌশলে ওই বাড়িতে যায়। এ সময় মেয়েটিকে একা পেয়ে বিয়ের মিথ্যে প্রলোভন দেখিয়ে তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে ধর্ষণ করে। ভিকটিমের বড় বোন বাসায় ফিরে আসামীকে ঘরের মধ্যে আপত্তিকর অবস্থায় দেখতে পেয়ে চিৎকার করলে পাড়ার লোকজন তাকে আটক করে। পরে জরুরি সেবা ৯৯৯ নম্বরে কল করে সবুজকে পুলিশের হাতে তুলে দেয়। সবুজের স্ত্রী শিউলি বেগম সব অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, পূর্ব পরিচিত থাকার সুবাদে বিপদ-আপদে আমরা তাদেরকে সাহায্য সহযোগিতা করতাম। আমার স্বামীকে মোবাইল ফোন করে ডেকে নিয়ে পরিকল্পিতভাবে ধর্ষণের অভিযোগ আনা হয়েছে। আমি এর সঠিক তদন্ত বিচার চাই। এ বিষয়ে সৈয়দপুর থানার ওসি আবুল হাসনাত খান জানান, মেয়েটির বাবা বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছেন। আসামীকে গতকাল রোববার আদালতে মাধ্যমে জেলা কারাগারে পাঠানো হবে। অপরদিকে, ভিকটিমকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য নীলফামারী জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।
৫ বছরের শিশুকে ধর্ষণ : ঝালমুড়ি খাওয়ানোর প্রলোভন দেখিয়ে নারায়ণগঞ্জ বন্দরের মাধবপাশা এলাকায় ৫ বছরের এক শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে ১৩ বছরের এক কিশোরের বিরুদ্ধে। গতকাল রোববার দুপুরে ওই কিশোরকে গ্রেফতার করে পুলিশ। গ্রেফতারকৃত ওই কিশোর ৮ম শ্রেণির মাদ্রাসাছাত্র। বন্দর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ফখরুদ্দি ভূইয়া সাংবাদিকদের জানান, ‘অভিযুক্ত কিশোর তার বাড়ি ফাঁকা পেয়ে ঝালমুড়ি খাওয়ানোর প্রলোভন দেখিয়ে ৫ বছরের এক শিশুকে নিজ বাড়িতে নিয়ে ধর্ষণ করে। পরে খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে ওই কিশোরকে গ্রেফতার করে। এ ঘটনায় ওই শিশুর বাবা বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছেন।’
ঘরে ঢুকে গৃহবধূ গণধর্ষণের ঘটনায় দু’জন কারাগারে : পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী উপজেলার চরমোন্তাজ ইউনিয়নের চরমার্গারেট গ্রামে ঘরে ঢুকে এক গৃহবধূকে নির্যাতন ও গণধর্ষণের ঘটনায় মামলা হয়েছে। গত শনিবার রাতে এ ঘটনার বিবরণ দিয়ে রাঙ্গাবালী থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়। নির্যাতনের শিকার গৃহবধূর স্বামী মামলাটি করেন। অভিযুক্ত আসামীরা হলেন শাকিল শরিফ (২২), আল হাদি (২২) ও আরিফ চৌকিদার (২১)। ইতোমধ্যে প্রধান অভিযুক্ত শাকিল ও আল হাদীকে নিজ গ্রাম থেকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গতকাল রোববার সকালে তাদেরকে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়। তবে অপর আসামী আরিফ এখনো পলাতক রয়েছে। তার সন্ধান করা হচ্ছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, গত ৩ অক্টোবর ভিকটিমের ৯ বছরের ছেলে এবং আসামী শাকিলের আট বছরের ছোট ভাইয়ের ঢিল ছোঁড়াকে কেন্দ্র করে মতবিরোধ হয়। গত শুক্রবার সকালে বিষয়টি সালিশে মীমাংসা হলেও সেই সিদ্ধান্ত শাকিলের মনোঃপুত হয়নি। ওই ঘটনার জের ধরে আসামী শাকিলসহ অন্যরা গত শুক্রবার রাতে হঠাৎ ঘরে ঢুকে তার স্ত্রীর হাত-মুখ ওড়না দিয়ে পেঁচিয়ে টেবিলের সাথে বেঁধে শরীরিক নির্যাতন করে। নির্যাতনে তার বাম হাতের হাড় ভেঙে যায়। একপর্যায়ে আসামীরা তাকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। পরে ঘরে থাকা দেড় লক্ষাধিক টাকা এবং স্বর্ণালঙ্কার লুট করে তাকে বেঁধে ফেলে রেখে যায়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ