শুক্রবার ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১
Online Edition

নিখোঁজের ২৪ দিন অতিবাহিত সন্ধান মেলেনি ইসমাঈলের

গৌরনদী (বরিশাল) সংবাদদাতা : নিখোঁজের ২৪ দিন অতিবাহিত হলেও বরিশালের গৌরনদী উপজেলার দিয়াশুর গ্রামের মাদ্রাসা ছাত্র ইসমাঈল হাওলাদার মিদুলের (১৫) সন্ধান পাওয়া যায়নি। মিদুল উপজেলার দিয়াশুর গ্রামের মনিরুজ্জামান হাওলাদারের  ছেলে ও কালকিনি উপজেলার দক্ষিণ রমজানপুর গ্রামের জামেয়া ইসলামিয়া মাদ্রাসা ও এতিমখানার হেফজ শাখায় ছাত্র।
নিখোঁজ মাদ্রাসা ছাত্রের পিতা মনিরুজ্জামান হাওলাদার জানান, রমজানপুর গ্রামের জামেয়া ইসলামিয়া মাদ্রাসায় তার দুই পুত্র ইসমাঈল হাওলাদার মিদুল (১৫) ও গোলাম মহিয়ান (৯) হেফজ শাখায় পড়াশুনা করে আসছিলো। গত ২৩ সেপ্টেম্বর বিকালে মিদুলের মা মাদ্রাসায় পৌঁছে ছেলেদের সাথে কথা বলে টাকা-পয়সা দিয়ে আসেন। ওইদিন রাতেই রহস্যজনক ভাবে নিখোঁজ হয় মিদুল। পরদিন সকালে মাদ্রাসার এক শিক্ষক মিদুলের নিখোঁজ হওয়ার বিষয়টি তাকে জানায়। পরবর্তীতে বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুজির পর মিদুলকে না পেয়ে ২৬ সেপ্টেম্বর কালকিনি থানায় একটি সাধারণ ডায়রী করেন তিনি (মনিরুজ্জামান)। পুত্রকে খুঁজে পাওয়ার বিষয়ে মাদ্রাসার শিক্ষকরা কোন সহযোগিতা না করায় মাদ্রাসা ছাত্র ইসমাঈল হাওলাদার মিদুলকে শিক্ষকরাই গায়েব করেছেন বলেও তিনি (মনিরুজ্জামান) অভিযোগ করেন। পুত্রকে ফিরে পেতে তিনি প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন।
ওই মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষক মাওলানা জাকির হোসেন জানান, নিখোঁজ ছাত্রটি হাফেজি পড়তে চাইছিলো না। কিন্তু ঘটনার দিন ওই ছাত্রের মা মাদ্রাসায় এসে ছেলেকে হাফেজি পড়ার জন্য চাপ প্রয়োগ করেন। যার ফলে ছেলেটি পালিয়ে যেতে পারে বলে তিনি ধারণা করেন। তবে ছাত্র নিখোঁজের বিষয়ে তাদের কোন সম্পৃক্ততা নেই বলেও প্রধান শিক্ষক জানান।
এ বিষয়ে ডায়রী তদন্তকারী কর্মকর্তা কালকিনি থানার এসআই দিবাকর সরকার জানান, ছেলেটিকে খুজে পেতে সর্বাত্মক চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে পুলিশ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ