মঙ্গলবার ২৪ নবেম্বর ২০২০
Online Edition

কিশোরকে নির্মম ভাবে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় থানা যুবলীগ সদস্য গ্রেফতার

সাভার সংবাদদাতা: আশুলিয়ায় অপহরণের পর মুক্তিপণের টাকা না পেয়ে এক কিশোরকে নির্মমভাবে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় থানা যুবলীগ সদস্য আবুল হোসেন আপনকে (২৬) গ্রেফতার করেছে পুলিশ। পরে গতকাল শনিবার বিকেলে যুবলীগের এই সদস্যকে আশুলিয়া যুবলীগের পদ থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। যুবলীগের এই নেতাকে বহিষ্কারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ঢাকা জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক জিএস মিজানুর রহমান। এবিষয়ে জিএস মিজানুর রহমান বলেন, কোন অপরাধীদের জায়গা যুবলীগে নেই, তাই তাকে তার অপরাধের কারণে বহিস্কার করা হয়েছে। যুবলীগে থেকে কেউ অপরাধ করলে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না বলেও জানান তিনি।
উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার গভীর রাতে আশুলিয়ার ধামসোনা ইউনিয়নের কন্ডা এলাকা থেকে আপনকে গ্রেপ্তার করে আশুলিয়া থানা পুলিশ। পুলিশ বলছে, গত ২৪ সেপ্টেম্বর  সোমবার লালমনিরহাটের মিছির আলীর ছেলে সবুজ হোসেন (১৪) ও একই এলাকার জাহিদুল ইসলাম (১৫) অভিমান করে বাড়ী থেকে আশুলিয়ার মোজারমেইল এলাকায় বোনের বাড়ীতে বেড়াতে আসে। বোনের বাসা খুঁজে না পেয়ে মোজারমেইল এলাকার বাসস্ট্যান্ডে অপেক্ষা করা কালে তাদেরকে অপহরণ করে একটি চক্র। পরে তাদের আত্মীয়দের কাছে মুঠোফোনে বিকাশের মাধ্যমে ২ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবী করেন অপহরণকারীরা। এসময় মুক্তি পণের টাকা না পেয়ে অপহৃত দুইজনকে বেধড়ক মারধর করে অপহরণকারীরা। এতে সবুজ নামের পঞ্চম শ্রেণীতে পড়ুয়া সবুজ নামের এক কিশোর মারা যায় ও জাহিদুল ইসলাম গুরুতর আহত হয়। এসময় নিহত সবুজ ও আহত জাহিদুলকে একটি ভ্যানে ফেলে রেখে অপহরণকারীরা পালিয়ে যায়। এঘটনায় নিহতের বাবা বাদী হয়ে আশুলিয়া থানায় অজ্ঞাতনামা ১৩ জনের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করেন। ওই মামলার সুত্র ধরে বৃহস্পতিবার গভীর রাতে আশুলিয়া থানা যুবলীগের সদস্য আবুল হোসেন আপনকে গ্রেফতার করে আশুলিয়া থানা পুলিশ।
এব্যাপারে আশুলিয়া থানার উপ-পরিদর্শক (এস আই) সুদীপ কুমার বলেন, আটক যুবলীগ নেতাকে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ