বুধবার ০২ ডিসেম্বর ২০২০
Online Edition

দেশে করোনার সেকেন্ড ওয়েভ শুরু হয়েছে -স্বাস্থ্যমন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার : স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছেন, দেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণের সেকেন্ড ওয়েভ (দ্বিতীয় ঢেউ) শুরু হয়ে গেছে। তিনি বলেন, জীবন ও জীবিকার তাগিদে মানুষ ঘরের বাইরে বের হচ্ছে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলায় উদাসীনতা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। তবে সেকেন্ড ওয়েভ মোকাবিলায় চিকিৎসক- নার্সসহ স্বাস্থ্যবিভাগ প্রস্তুত রয়েছে।এ নিয়ে দুশ্চিন্তার কারণ নেই। সেকেন্ড ওয়েভ নিয়ে সরকার সজাগ এবং সতর্ক আছে।
গতকাল বুধবার ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ‘মুজিব বর্ষ ২০২০’ উদযাপন উপলক্ষে হাসপাতালের আধুনিকায়ন ও উন্নতমানের চিকিৎসা সেবা এবং শিক্ষা সম্প্রসারণমূলক কাজের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।
স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন,‘বিশ্বব্যাপী মানুষ করোনাকে অবহেলা করছে। এর ফলে আমেরিকা, ইউরোপসহ অনেক দেশেই করোনায় সেকেন্ড ওয়েভ শুরু হয়েছে। আমাদের দেশেও শীতকালে করোনার সেকেন্ড ওয়েভ শুরুর আশঙ্কা উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না।  তবে সেকেন্ড ওয়েভ শুরু হলে তার জন্য কী কী করণীয়  সে ব্যাপারে আমাদের সব প্রস্তুতি এখনই নেওয়া হচ্ছে। করোনা মোকাবিলায় ইতোমধ্যেই দেশের স্বাস্থ্য খাত সক্ষমতা দেখিয়েছে। সেকেন্ড ওয়েভ শুরু হলেও দেশের স্বাস্থ্য খাত এভাবেই মোকাবিলা করতে  প্রস্তুত রয়েছে।’ প্রসঙ্গত,কোভিড-১৯ বিষয়ক জাতীয় কারিগরি কমিটিও দেশে পুনরায় করোনা সংক্রমণের আশঙ্কা রয়েছে বলে জানিয়েছে। কমিটি দ্বিতীয় দফার সম্ভাব্য সংক্রমণ প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণে এখনই করণীয় ঠিক করতে সরকারকে পরামর্শ দিয়েছে।
গত ২০ সেপ্টেম্বর কমিটির সভাপতি অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ শহীদুল্লার সভাপতিত্বে অনলাইন সভায় বলা হয়, বিভিন্ন দেশে দ্বিতীয় দফায় করোনার সংক্রমণ দেখা যাচ্ছে। আমাদের পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতে সংক্রমণের মাত্রা অনেক বেশি। এছাড়া বিভিন্ন দেশের সঙ্গে যোগাযোগ উন্মুক্ত হচ্ছে এবং হতে থাকবে। স্বাস্থ্যবিধি মানার বিষয়েও জনসাধারণের  মধ্যে এক ধরনের শৈথিল্য লক্ষ্য করা যাচ্ছে। এসব কারণে আমাদের দেশেও পুনরায় করোনা সংক্রমণের আশঙ্কা রয়েছে জানিয়ে দ্বিতীয় দফার সংক্রমণ প্রতিরোধের পাশাপাশি সংক্রমণ হলে স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে পূর্ণ প্রস্তুতি নিয়ে রাখার জন্য কমিটি পরামর্শ দেয়।
এছাড়াও দ্বিতীয় দফার সংক্রমণ দ্রুত নির্ণয়ের লক্ষ্যে  সংক্রমণ প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণে এখনই করণীয় বিষয়ে রোডম্যাপ প্রস্তুত করে সেই মোতাবেক পূর্ণ প্রস্তুতি গ্রহণ করতে বলা হয়।
এর পরিপ্রেক্ষিতে স্বাস্থ্য অধিদফতরের পক্ষ থেকে রোডম্যাপ প্রস্তুতিতে জাতীয় পরামর্শক কমিটির সহযোগিতা কামনা করা হয়। জাতীয় পরামর্শক কমিটিও তার সাব-কমিটিগুলোর মাধ্যমে এই রোডম্যাপ প্রস্তুতিতে সহযোগিতা করার ব্যাপারে আশ্বাস দেয়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ