বুধবার ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

বোলারদের নৈপুণ্যে সিরিজে সমতা আনলো ইংল্যান্ড

স্পোর্টস ডেস্ক: জয়ের জন্য ৫০ ওভারে ২৩২ রান করতে হতো অস্ট্রেলিয়ার। একটা পর্যায়ে তাদের স্কোর ছিল ১৪৪/২। এরপর দারুণ বোলিং নৈপুণ্য দেখালেন ইংলিশ পেসাররা। জফরা আর্চার-ক্রিস ওসকদের তোপে ৪৮.৪ ওভারে ২০৭ রানে গুটিয়ে গেল অস্ট্রেলিয়া। তাতে দ্বিতীয় ওয়ানডেতে ২৪ রানের জয়ে সিরিজে সমতা আনলো ইংল্যান্ড। আগামীকাল বুধবার সিরিজ নির্ধারণী ওয়ানডে মুখোমুখি হবে দুই দল।রোববার ম্যানচেস্টারের ওল্ড ট্র্যাফোর্ড স্টেডিয়ামে টস জিতে ব্যাটিং নেয় স্বাগতিক ইংল্যান্ড। দলীয় ২৯ রানেই সাজঘরে ফেরেন দুই ওপেনার জনি বেয়ারস্টো (০) ও জেসন রয় (২১)।

তৃতীয় উইকেটে জুটিতে চাপ অনেকটা কাটিয়ে উঠেন অধিনায়ক এউইন মরগান-জো রুট। দলীয় ৯০ রানে রুটের (৩৯) বিদায়ে ভাঙে এ জুটি। এরপর মাত্র ৫৯ রানের ব্যবধানে আরো ৫ উইকেট খুইয়ে বিপাকে পড়ে যায় ইংল্যান্ড। একে একে সাজঘরে ফেরেন জস বাটলার (৩), মরগান (৪২), আগের ম্যাচের সেঞ্চুরিয়ান স্যাম বিলিংস ( ৮), স্যাম কারেন (১) ও ক্রিস ওকস (২৬)।ইংল্যান্ডের সংগ্রহটাকে ১৪৯/৮ থেকে ২২৫/৯ পর্যন্ত নিয়ে যান টম কারেন ও আদিল রশিদ। কারেন ৩৯ বলে ৩৭ ও রশিদ মাত্র ২৬ বলে ৩৫ রানের ইনিংস উপহার দেন। জফরা আর্চারের ৬* রানের সুবাদে ৯ উইকেটে ২৩১ রানের পুঁজি গড়ে ইংল্যান্ড। প্রথম ম্যাচে ৪ উইকেট নেয়া জাম্পা দ্বিতীয় ম্যাচে ৩৬ রানে নেন ৩ উইকেট। এছাড়া মিচেল স্টার্ক ২টি এবং জশ হ্যাজলউড, প্যাট কামিন্স ও মিচেল মার্শ প্রত্যেকের শিকার ১টি করে উইকেট।

রান তাড়ায় দলীয় ৩৭ রানের মধ্যে আর্চারের শিকার হয়ে সাজঘরে ফেরেন ডেভিড ওয়ার্নার ( ৬) মার্কস স্টয়নিস (৯)। তবে তৃতীয় উইকেটে অ্যারন ফিঞ্চ-মারনাস লাবুশেনের জুটিতে জয়ের পথেই ছিল অস্ট্রেলিয়া। কিন্তু এক স্পেলে ম্যাচের মোড় ঘুরিয়ে দেন ক্রিস ওকস। দলীয় ১৪৪ রানে তিনি সাজঘরে ফেরান লাবুশেনকে (৪৮)। এরপর ৩ রানের ব্যবধানে ওকস তুলে নেন অজি অধিনায়ক ফিঞ্চ (৭৩) ও গ্লেন ম্যাক্সওয়েলকেও (১)। মাঝে মার্শকে (১) বোল্ড করেন জফরা আর্চার। ১৪৪/২ থেকে নিমিষেই ১৪৭/৬ হয়ে যায় অস্ট্রেলিয়ার স্কোরবোর্ড। প্যাট কামিন্সকে নিয়ে ঘুরে দাঁড়ানোর আভাস দিয়েছিলেন উইকেটরক্ষক অ্যালেক্স ক্যারি। তবে সে সুযোগ দেননি স্যাম কারেন। ১০ রানের ব্যবধানে কামিন্স (১১), মিচেল স্টার্ক ও অ্যাডাম জাম্পার (২) উইকেট তুলে নেন বাঁহাতি এই পেসার। ১৭৬ রানে ৯ উইকেট খোয়ানো অস্ট্রেলিয়ার স্বীকৃত ব্যাটসম্যান বলতে ছিলেন ক্যারি। হ্যাজলউডকে (৭*) নিয়ে কিছুক্ষণ লড়ে শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে দলীয় ২০৭ রানে রশিদের বলে আউট হন তিনি। ৪১ বলে তার সংগ্রহ ৩২ রান।  ইংল্যান্ডের পক্ষে জফরা আর্চার, ক্রিস ওকস ও স্যাম কারেন প্রত্যেকে ৩টি করে উইকেট নিলেও ম্যাচসেরা হয়েছেন আর্চার।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ