মঙ্গলবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

করোনা রোগীর সেবায় রুয়েটে তৈরি হলো রোবট

স্টাফ রিপোর্টার : করোনা আক্রান্ত রোগীদের সেবার জন্য ‘ক্যাপ্টেন সেতারা বেগম’ নামে একটি রোবট তৈরি করেছে রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (রুয়েট) একদল সাবেক শিক্ষার্থী। রুয়েট সূত্রে জানা যায়, রুয়েটের সাবেক শিক্ষার্থীদের একটি সংগঠন ‘আর্টিফিসিয়াল ইন্টেলিজেন্স বাংলাদেশ’ এর ৭ সদস্য দীর্ঘ তিন মাসের কর্মপ্রচেষ্টায় এটি তৈরি করেছেন। রোবটটি বীরপ্রতীক খেতাবপ্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধা ক্যাপ্টেন সেতারা বেগমের দেহাবয়ব অনুসারে তৈরি করা হয়েছে বলে তার নামেই নামকরণ করা হয়েছে।
রোবটটি রোগীর পাশে গিয়ে শরীরের তাপমাত্রা নির্ণয়, চিকিৎসকের পরামর্শ পৌঁছানোসহ বিভিন্ন তথ্য সংগ্রহ করতে সক্ষম। তাছাড়া ৫-১০ কেজি ওজন বহন এবং টানা এক থেকে দেড় ঘণ্টা কাজ চালিয়ে যেতে সক্ষম রোবটটি। হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ডে ট্রায়াল শেষে বাণিজ্যিকভাবে এ রোবট তৈরি করা হবে বলে জানিয়েছেন তারা। ‘আর্টিফিসিয়াল ইন্টেলিজেন্স বাংলাদেশ’ সংগঠনের সদস্যরা বলছেন, ‘করোনা আক্রান্ত রোগীর কাছে না গিয়ে ওষুধ সরবরাহ ও তথ্য সংগ্রহের কাজে রোবটটি ব্যবহার করা হবে। রোবটটি চিকিৎসক ও নার্সদের সহযোগী হিসেবে কাজ করবে।’ চিকিৎসক তার কক্ষে বা অন্য কোথাও বসে কম্পিউটার বা মোবাইলের মাধ্যমে রোবটকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন বলেও জানান তারা।
উদ্ভাবক দলের প্রধান ফারজাদুল ইসলাম বলেন, ‘ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর সংস্পর্শে না গিয়ে প্রয়োজনীয় দ্রব্য যেমন ওষুধ, খাদ্য সরবারাহ করা যাবে। এছাড়া রোবটের সামনে লাগানো সেন্সরে রোগীর মাথা রাখলে শরীরের তাপমাত্রা নির্ণয় করা যাবে। রোবটে লাগানো বিশেষ ক্যামেরা, মাইক্রোফোন ও স্পিকারের সাহায্যে ডাক্তার নিরাপদ স্থানে থেকে রোগীর সাথে যোগাযোগ ও তথ্য সরবরাহ করতে পারবে।’ রুয়েট উপাচার্য অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম শেখ বলেন, ‘রোবটটি মাঠ পর্যায়ের পরীক্ষায় সফল হলে করোনার এই দুর্যোগ চিকিৎসা সেবায় বড় ধরনের ভূমিকা রাখবে। তথ্যপ্রযুক্তিতে বাংলাদেশকে আরও এক ধাপ এগিয়ে নেবে। আধুনিক চিকিৎসা সেবায় বাংলাদেশের জন্য এক অনন্য নিদর্শন হবে।’ এতে সামান্য কিছু মোডিফিকেশনের প্রয়োজন আছে, সে কাজগুলো করলে রোবটটি বাস্তব ক্ষেত্রে সফল ভূমিকা রাখবে বলেও জানান তিনি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ