ঢাকা, রোববার 20 September 2020, ৫ আশ্বিন ১৪২৭, ২ সফর ১৪৪২ হিজরী
Online Edition

বাইডেনের রানিং মেট কমলা হ্যারিস

সংগ্রাম অনলাইন ডেস্ক: যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডেমোক্রেট দলের প্রার্থী জো বাইডেন তার রানিং মেট হিসেবে সেনেটর কমলা হ্যারিস নাম ঘোষণা করেছেন। এর ফলে পরবর্তী নির্বাচনী জনসংযোগে বাইডেনের সঙ্গে দেখা যাবে কমলা হ্যারিসকেও। গতকাল মঙ্গলবার টুইট করে এই ঘোষণার কথা জানান বাইডেন। বাইডেন প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হলে তার ভাইস প্রেসিডেন্ট হবেন তিনি। সংবাদমাধ্যম বিবিসি এ খবর জানিয়েছে।

ডেমোক্র্যাট প্রার্থী বাইডেন লেখেন, ‘আমার খুবই ভাল লাগছে, আমার সহযোদ্ধা হিসেবে একজন ভয়ডরহীন লড়াকু মেজাজের নারী ও এ দেশের অন্যতম জনপ্রিয় প্রতিনিধি কমলা হ্যারিসের নাম ঘোষণা করতে পেরে। আমার প্রচারে তাঁকে সঙ্গী হিসেবে পেয়ে আমি গর্বিত।’

বাইডেনের এই ঘোষণার পর বাইডেনের স্টাইলেই টুইটারে নিজের প্রতিক্রিয়া দেন হ্যারিস। তিনি লিখেন, ‘আমি জো বাইডেনের এই প্রশংসায় মুগ্ধ। তাঁর সহযোদ্ধা হিসেবে সব লড়াইয়ে আমি তৈরি। জো বাইডেন যুক্তরাষ্ট্রের মানুষকে একত্রিত করতে পারবেন, কারণ সারা জীবন তিনি এ কাজই করে গেছেন। এবং প্রেসিডেন্ট হিসেবে আমাদের সুন্দরভাবে বেঁচে থাকার জন্য এক আমেরিকা তৈরি করবেন তিনি।’

৫৫ বছর বয়সী কমলা হ্যারিসের বাবা জ্যামাইকার বাসিন্দা। তাঁর মা ভারতীয়। ছোটবেলায় যুক্তরাষ্ট্রে পাড়ি জমান তাঁরা। কমলা হ্যারিসই প্রথম কোনো কৃষ্ণাঙ্গ নারী এবং প্রথম কোনো ভারতীয় বংশোদ্ভূত, যিনি যুক্তরাষ্ট্রের প্রধান দুই দলের একটি থেকে ভাইস প্রেসিডেন্ট প্রার্থী মনোনীত হলেন।

ক্যালিফোর্নিয়ার সেনেটর কমলা এর আগে অবশ্য বাইডেনের সঙ্গে প্রেসিডেন্ট পদ নিয়ে লড়াই করেছিলেন। ওই লড়াইয়ের ফলেই ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে প্রেসিডেন্টের লড়াই থেকে সরে দাঁড়ান হ্যারিস। বাইডেনকে এগিয়ে দেন ডেমোক্র্যাটরা। যদিও সে লড়াই ছিল ক্ষণস্থায়ী এবং অনেকটাই আনুষ্ঠানিক।

জো বাইডেন নিজের মুখে কমলা হ্যারিসের রাজনৈতিক প্রতিভার কথা স্বীকার করে বলেছেন তাঁর বিরুদ্ধে কোনো রকমের অভিযোগ বা রাগ তাঁর নেই। যুক্তরাষ্ট্রে সম্প্রতি বর্ণবৈষম্য বিরোধী বিক্ষোভের মধ্যে পুলিশ বাহিনীতে সংস্কারের দাবি জানিয়েছিলেন কমলা।এর আগে ক্যালিফোর্নিয়ার অ্যাটর্নি জেনারেলের দায়িত্ব পালন করেন কমলা হ্যারিস।

আগামী ৩ নভেম্বর যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন জো বাইডেন। ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স এবারও রিপাবলিকান প্রার্থীর রানিং মেট থাকছেন।

যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে কমলা হ্যারিসের আগে মাত্র দুজন নারী ভাইস প্রেসিডেন্ট প্রার্থী মনোনীত হয়েছিলেন- ২০০৮ সালে রিপাবলিকান পার্টি থেকে সারাহ পেলিন এবং ১৯৮৪ সালে ডেমোক্রেটদের থেকে জেরালডিন ফেরারো। তাদের কেউই হোয়াইট হাউসে যেতে পারেননি।

যুক্তরাষ্ট্রে এর আগে কখনও দুই প্রধান রাজনৈতিক দলের কোনোটি থেকে অশ্বেতাঙ্গ কোনো নারীকে প্রেসিডেন্ট বা ভাইস প্রেসিডেন্ট পদে টিকেট দেওয়া হয়নি। যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে কোনো নারীর বিজয়ও হয়নি।

ডিএস/এএইচ

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ