ঢাকা, রোববার 24 January 2021, ১০ মাঘ ১৪২৭, ১০ জমাদিউস সানি ১৪৪২ হিজরী
Online Edition

সিনহার ক্যামেরা ল্যাপটপ কোথায়?

সংগ্রাম অনলাইন ডেস্ক: অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা রাশেদ খান হত্যায় নতুন করে আলোচনায় এসেছে গ্রেপ্তারকৃত ওসি প্রদীপ কুমার দাশের কথিত সাক্ষাৎকার। মাদক নিয়ে ওসি প্রদীপের সাক্ষাৎকার নিয়েছিলেন সিনহা-এমন একটি তথ্য র‌্যাবও পেয়েছে।

টেকনাফে পুলিশের গুলিতে নিহত সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খানের তথ্যচিত্রের চিত্রগ্রাহক সাহেদুল ইসলাম সিফাত। সে স্ট্যামফোর্ড ইউনিভার্সিটির ফিল্ম অ্যান্ড মিডিয়া বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র। সে সাবেক মেজর সিনহাকে গুলি করে হত্যার একজন প্রত্যক্ষদর্শী। সেই সিফাতের ল্যাপটপ ও হার্ডড্রাইভ উধাও হয়ে গেছে। আলামত নষ্ট করতেই পুলিশ এসব গায়েব করেছে বলে ধারণা স্বজনদের।

জানা গেছে, ৩১ জুলাই কক্সবাজার মেরিনড্রাইভের শামলাপুর চেকপোষ্টে পুলিশের তল্লাশির মুখে পরার আগ পর্যন্ত সাবেক মেজর সিনহার সঙ্গেই ছিলেন চিত্রগ্রাহক সাহেদুল ইসলাম সিফাত।

সিফাতের খালা জানান, ঘটনার পর থেকে এখন পর্যন্ত সিফাতের সঙ্গে পরিবার, এমনকি আইনজীবীর সাথেও দেখা করতে দেয়নি।

অ্যাডভোকেট নীলা বলেন, যেহেতু সিফাতের সঙ্গে দেখা করতে দিচ্ছেন না, সেক্ষেত্রে নিশ্চয়ই তারা চাচ্ছে কেউ কিছু না জানুক। কারণ সে ওখানে ছিল।

তিনি আরও জানান, তবে কারাগারের ফোন থেকে একবার খালা ও আর একবার খালুকে ফোন করেছিলেন সিফাত। তাতে কিছুটা স্বস্তি মিললেও, নতুন উদ্বেগ তৈরি হয়েছে, সিনহা রাশেদের ইউটিউব চ্যানেল JUST GO এর জন্য চিত্রধারণ করে যে হার্ডড্রাইভ ও ল্যাপটপে সংরক্ষণ করা হয়েছে তা লাপাত্তা হওয়ায়। খালুকে সিফাত জানায় হার্ডড্রাইভ, মানিব্যাগ, ক্যামেরা ঘটনার সময় তার সাথেই ছিল আর ল্যাপটপটি ছিলো নীলিমা রিসোর্টে।

এদিকে সাবেক মেজর সিনহা ও চিত্রগ্রাহক সিফাতের বিরুদ্ধে পুলিশের করা মামলার এজাহারে ২১টি আলামত জব্দ করার কথা বলা হয়েছে। তাতে বিদেশি অস্ত্র থেকে শুরু করে ছুরি পর্যন্ত জব্দ করার কথা বলা হলেও নেই হার্ডড্রাইভের কথা। অন্যদিকে নীলিমা রিসোর্টে তল্লাশি চালিয়ে মদ গাজা উদ্ধারের কথা বলা হলেও নেই ল্যাপটপের উল্লেখ।

এ বিষয়ে সিফাতের খালু অভিযোগ করে বলেন, মামলার জন্য পুলিশ এগুলো মিসিং করতে পারে। কারণ এটাই ওর প্রমাণ যে সে সেখানে কাজ করছিল।

পুলিশের গুলিতে মৃত্যুর আগে মাদক চোরাচালান বা ইয়াবা ব্যবসা নিয়ে টেকনাফ থানার ওসি প্রদীপ কুমার দাশের সাক্ষাৎকার নিয়েছিলেন অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা রাশেদ। এমন একটি তথ্য নিয়ে তদন্ত করছে র‌্যাব। খোঁজা হচ্ছে রাশেদ সিনহার সঙ্গে থাকা ক্যামেরা, ল্যাপটপ ও অন্যান্য ডিভাইসেরও।

র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক লে. কর্নেল আশিক বিল্লাহ বলেন,  এরকম একটি খবর গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে। এ বিষয়টি তদন্ত কর্মকর্তার নজরে এসেছে। যাচাই-বাছাই সাপেক্ষে তদন্ত কর্মকর্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।'

সিনহা ও সিফাতের সাথে থাকা ল্যাপটপ, ক্যামেরা ও অন্যান্য ডিভাইসগুলোরও সন্ধান চলছে বলেও জানান আশিক বিল্লাহ।

এদিকে, সিনহাকে হত্যায় আলোচনায় এসেছেন চলচ্চিত্র জগতের খল নায়ক ইলিয়াস কোবরা। এ বিষয়ে নায়ক ইলিয়াস কোবরার বিষয়ে তদন্ত করার কথা জানিয়েছে র‌্যাব। যদিও ইলিয়াস কোবরা গণমাধ্যমকে বলেছেন একটি মহল ষড়যন্ত্র করে তার নাম জড়িয়েছে। এমনকি সিনহা রাশেদ খানকে চিনতেনই না বলেও গণমাধ্যমের কাছে দাবি করেছেন ইলিয়াস কোবরা। একটি মহল তাকে জড়িয়ে ফায়দা নেয়ার চেষ্টা করছে বলেও জানান কোবরা।

গেলো  ৩১শে জুলাই সন্ধ্যার পর টেকনাফে চেকপোস্টে পুলিশের গুলিতে নিহত হন অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মো: রাশেদ খান। মামলার আসামি টেকনাফ থানার ওসিসহ সাত পুলিশ এখন রিমান্ডে।

ডিএস/এএইচ

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ