ঢাকা, বুধবার 30 September 2020, ১৫ আশ্বিন ১৪২৭, ১২ সফর ১৪৪২ হিজরী
Online Edition

জাপান-প্রবেশে বাংলাদেশসহ ৪ দেশের জন্য কড়া নির্দেশনা

সংগ্রাম অনলাইন ডেস্ক: বাংলাদেশসহ মোট চারটি দেশ থেকে জাপানে পুনঃপ্রবেশের জন্য কভিড-১৯ নেগেটিভ সার্টিফিকেটের পাশাপাশি দূতাবাসের বিশেষ অনুমতিপত্রও লাগবে। শুক্রবার থেকে নতুন নির্দেশনা কার্যকর হবে।

দেশটির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়কে উদ্ধৃত করে সোমবার জাপান টাইমস জানিয়েছে, বাংলাদেশ বাদে বাকি তিনটি দেশ পাকিস্তান, ফিলিপাইনস এবং পেরু। প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, জাপান সরকার মনে করছে এই দেশগুলোতে সংক্রমণের হার বাড়ছে।

করোনা পরীক্ষার পর নেগেটিভ ফল আসার পর এই চার দেশের নাগরিকদের মধ্যে জাপানের স্থায়ী বাসিন্দা এবং দীর্ঘমেয়াদি ভিসা নেওয়া ব্যক্তি, তাদের স্ত্রী ও সন্তানরা অনুমতি সাপেক্ষে প্রবেশ করতে পারবে। তবে সেক্ষেত্রে করোনা পরীক্ষা করাতে হবে জাপানে প্রবেশের ঠিক আগ মুহূর্তে।

নতুন নির্দেশনা ১ সেপ্টেম্বর থেকে কার্যকর হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু জাপান সরকার বলছে, বিমানবন্দরে এই দেশগুলো থেকে ফেরা যাত্রীদের মধ্যে কভিড-১৯ পজিটিভ রোগীর সংখ্যা বাড়তে থাকায় আগেভাগে নির্দেশনাটি কার্যকর করা হচ্ছে।

এর আগে দেশগুলো থেকে যাওয়া যাত্রীদের বিমানবন্দরে পরীক্ষার পর উদ্বিগ্ন হওয়ার মতো করোনা আক্রান্ত শনাক্ত হওয়ার জেরে এ ধরনের পদক্ষেপ নিচ্ছে টোকিও।

জানা গেছে, জাপানে প্রবেশের অনুর্ধ্ব ৭২ ঘণ্টার মধ্যে করোনা পরীক্ষা করে সেই সনদ জমা দিতে হবে। সেই সঙ্গে জাপানে প্রবেশের অনুমোদন সংক্রান্ত কাগজও জমা দিতে হবে। সেগুলো খতিয়ে দেখবে জাপানের দূতাবাস এবং কনস্যুলার অফিসগুলো।

গত ৩ এপ্রিল থেকে করোনা মহামারির কারণে কড়া লকডাউনের পর বিদেশিদের জন্য দরজা খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিতেই নতুন করে ভাবছে টোকিও। গত সপ্তাহে জাপান সরকার সিদ্ধান্ত নেয়, বিদেশিদের মধ্যে যারা ৩ এপ্রিলের আগে সে দেশ ছেড়ে গেছে, তারা বুধবার থেকে জাপানে ফিরতে পারবে।

যদিও, সবাইকে জাপানে প্রবেশের ব্যাপারে করোনা পরীক্ষার সনদ দেখাতে হবে এবং ১৪ দিন আইসোলেশনে থাকতে হবে। এই সময়ে তারা গণপরিবহন ব্যবহার করতে পারবে না।

জাপান সরকারের তথ্য অনুসারে, বিদেশি নাগরিকদের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা জারি হওয়ার আগে দুই লাখের বেশি মানুষ সাময়িকভাবে জাপান ছেড়েছে। শর্ত সাপেক্ষে এখন তারা জাপানে প্রবেশ করতে পারবে।

ডিএস/এএইচ

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ