ঢাকা, বুধবার 30 September 2020, ১৫ আশ্বিন ১৪২৭, ১২ সফর ১৪৪২ হিজরী
Online Edition

পিতা-মাতার অবাধ্য ও অকৃতজ্ঞ সন্তানের কোন ইবাদত কবুল হবে না

সংগ্রাম অনলাইন ডেস্ক: দুনিয়াতেই যারা সন্তানের জন্য জান্নাত ও জাহান্নাম তারা হলেন পিতা-মাতা।পিতা-মাতার পায়ের তলাতেই সন্তানের বেহশত। যারা দুনিয়াতে পিতা-মাতাকে সন্তুষ্ট করতে পেরেছে; দুনিয়া ও পরকাল সফলতার তাদের জন্য। আর যারা দুনিয়াতে পিতা-মাতার সন্তুষ্টি অর্জনে ব্যর্থ তাদের দুনিয়া ও পরকাল উভয়টিই ব্যর্থ।

পৃথিবীতে যত মানুষ আছে তাদের মধ্যে যাদেরকে আমার সবচেয়ে গুরুত্ব দেয়া উচিত তারা হলেন পিতা-মাতা। তাঁদের চেয়ে বেশি সম্মান জীবিত কোন মানুষ আমার থেকে পাওয়ার হকদার নন।স্বয়ং সৃষ্টিকর্তা আল্লাহ-রাব্বুল আ'লামীন পিতা-মাতাকে এই সম্মান প্রদান করেছেন।পিতা-মাতার অবাধ্য হয়ে লোক-সমাজে বড় বুজুর্গ হিসেবে পরিচিত হলেও কোন লাভ হবে না; কারণ পিতা-মাতার অবাধ্য ও অকৃতজ্ঞ সন্তানের কোন ইবাদতই আল্লাহ কবুল করেন না।

পিতা-মাতার মর্যাদা সম্পর্কে আল কুরআনের নির্দেশনা:

পিতা-মাতার মর্যাদা সম্পর্কে স্বয়ং আল্লাহ রাব্বুল আ'লামীন নির্দেশ প্রদান করে বলেছেন-

‘আমার কৃতজ্ঞতা এবং তোমার পিতা-মাতার কৃতজ্ঞতা আদায় কর। ’ -সূরা লোকমান : ১৪

‘তোমার প্রতিপালক নির্দেশ দিয়েছেন যে, তোমরা তিনি ছাড়া অন্য কারো ইবাদত করবে না এবং পিতা-মাতার প্রতি সদ্ব্যবহার করবে; তাদের একজন অথবা উভয়ে উভয়েই তোমার জীবদ্দশায় বার্ধক্যে উপনীত হলেও আদেরকে বিরক্তিসূচক কিছু বলো না। এবং তাদেরকে ভর্র্ৎসনা করো না; তাদের সাথে কথা বলো সম্মানসূচক নম্র কথা। ’ -সূরা বনি ইসরাঈল : ২৩

হজরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহ আনহু বর্ণনা করেন প্রিয়নবি বলেছেন, ‘জান্নাতের হাওয়া পাঁচশত বছরের পথ অতিক্রম করে আসে। কিন্তু উপকার করার পর যে খোটা দেয়; পিতা-মাতার অবাধ্য ব্যক্তি এবং মদপানে অভ্যস্ত ব্যক্তি এ হাওয়ার পরশটুকুও পাবে না। (তাবারানি, জামে সগির)

>> হজরত আবু উমামা রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, ‘তিন ব্যক্তি এমন রয়েছে, যাদের ফরজ ও নফল কোনো ইবাদতই আল্লাহ তাআলা কবুল করেন না। তারা হলো- পিতা-মাতার অবাধ্য ব্যক্তি; উপকার করে খোঁটা দানকারী এবং তাকদিরকে মিথ্যা প্রতিপন্নকারী। (কিতাবুসসুন্নাহ)

>> হজরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত যে, ৪ ব্যক্তি এমন রয়েছে, যাদেরকে আল্লাহ তাআলা জান্নাত দান না করলেও তা সঙ্গত হবে। তারা হলো- মদপানে অভ্যস্ত ব্যক্তি; সুদখোর, ইয়াতিমের সম্পদ গ্রাসকারী এবং পিতা-মাতার অবাধ্য ব্যক্তি। (মুসতাদরেকে হাকেম)

>> হজরত সাওবান রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, ‘তিনটি ব্যাপার এমন; বর্তমানে যেগুলোর কোনো আমলই ফলদায়ক নয়। আর তাহলো- আল্লাহর সঙ্গে কাউক শরিক করা; পিতা-মাতার অবাধ্যতা ও জিহাদ চলাকালে যুদ্ধক্ষেত্রে পৃষ্ঠপ্রদর্শন। (তাবারানি)

>> হজরত আবু বকর রাদিয়াল্লাহু আনহু প্রিয়নবি থেকে বর্ণনা করেন, ‘আল্লাহ তাআলা তাঁর ইচ্ছামাফিক অনেক গোনাহের শাস্তি কেয়ামতের দিন দেয়ার জন্য রেখে দেবেন; কিন্তু পিতা-মাতার অবাধ্যতা এমনই একটি গোনাহ যার শাস্তি আল্লাহ তাআলা দুনিয়াতেই দিয়ে দেন।

>> হজরত ইবন আবু আওফা রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত হজরত আলকামার মৃত্যু সম্পর্কে একটি দীর্ঘ হাদিস রয়েছে। মৃত্যুকালে সে কোনো ভাবেই মুখে তাওহিদের কালেমা উচ্চারণ করতে পারছিল না। এ সাহাবীর প্রতি তাঁর মা অসন্তুষ্ট ছিল। অতঃপর রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের সুপারিশে তাঁর মা তাঁকে ক্ষমা করে দেন এবং তখনই তাঁর মুখে তাওহিদের কালেমা নিঃসৃত হয়।

পিতা-মাতার অবাধ্যতার কুফল সম্পর্কিত একটি উল্লেখ্যযোগ্য ঘটনা রয়েছে। যা মানুষকে পিতা-মাতার অবাধ্যতা থেকে মুক্ত রাখবে।

>> হজরত ইবনে ওমর বর্ণনা করেন, ‘তিন ব্যক্তি এমন- যাদের প্রতি কেয়ামতের দিন আল্লাহ তাআলা অপ্রসন্ন থাকবেন; তারা হলো- পিতা-মাতার অবাধ্য ব্যক্তি; মদপানে অভ্যস্ত ব্যক্তি; উপকার করে খোঁটা দানকারী।’

অতঃপর বললেন, ৩ ব্যক্তি বেহেশতে প্রবেশ করতে পারবে না; তারা হলো পিতা-মাতার অবাধ্য ব্যক্তি; দাইয়ুস অর্থাৎ ঐ ব্যক্তি যার স্ত্রী ব্যভিচারিণী অথচ সে তাতে বাধা দান করেনি বা তার প্রতিকার করেনি এবং পুরুষের বেশ ধারণকারী নারী। (ইবনে হিব্বান)

রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘পিতা-মাতার সন্তুষ্টির ওপরই আল্লাহর সন্তুষ্টি আর পিতা-মাতার অসন্তষ্টির ওপরই আল্লাহর সন্তুষ্টি নির্ভর করছে। ’

হজরত মোয়াবিয়া ইবনে জাহাম সুহামি নবী করিম (সা.)-এর সাথে জিহাদে যাওয়ার অনুমতি চাইলে তিনি তাকে ফিরে যাওয়ার নির্দেশ দিয়ে বললেন, ‘যাও, তোমার আম্মার সেবা করো। ’ কিন্তু তিনি জিহাদে যাওয়ার জন্য বার বার অনুরোধ জানাতে থাকলে তিনি বললেন, ‘হায় আফসোস! তোমার মার পা ধরে থাক। ওখানেই তোমার জান্নাত। ’ –ইবনে মাজাহ

হাদিসে আরও বলা হয়েছে, পিতা-মাতার অবাধ্য সন্তানের প্রতি আল্লাহতায়ালা কিয়ামতের দিন তাকাবেন না। আরেক হাদিসে বলা হয়েছে, পিতা-মাতার অবাধ্য সন্তান জান্নাতে প্রবেশ করবে না। পিতা-মাতার অবাধ্যতার বিভিন্ন রূপ হতে পারে। যেমন—

ক. পিতা-মাতার ওপর নিজেকে বড় মনে করা। অর্থাৎ সম্পদ, শিক্ষা-দীক্ষা, সম্মান-প্রতিপত্তি ইত্যাদি বিষয়ে পিতা-মাতার চেয়ে নিজেকে বড় মনে করা।

খ. পিতা-মাতাকে সহায়-সম্বলহীন এবং নিঃস্ব অবস্থায় ফেলে রাখা এবং যার কারণে তারা মানুষের দ্বারে দ্বারে হাত পাততে বাধ্য হয়।

গ. বন্ধু-বান্ধব, স্ত্রী-সন্তান বা অন্য কাউকে, এমনকি নিজের প্রয়োজনকেও পিতা-মাতার ওপর অগ্রাধিকার দেয়া তাদের অবাধ্যতার অর্ন্তভুক্ত।

ঘ. পিতা-মাতাকে শুধু নাম ধরে বা এমন শব্দ প্রয়োগে ডাকা যা তাদের অসম্মান ও মর্যাদাহানীর ইঙ্গিত দেয়।

ঙ. পিতা-মাতার সাথে চোখ রাঙ্গিয়ে ধমকের সুরে কথা বলা।

চ. তাদের সেবা-শুশ্রূষা না করা এবং শারিরীক বা মানসিক দিকের প্রতি লক্ষ না রাখা। বিশেষ করে বৃদ্ধ বয়সে রোগ-ব্যাধিতে তাদের প্রতি অবহেলা প্রদর্শন করা।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ