বৃহস্পতিবার ০২ ডিসেম্বর ২০২১
Online Edition

অ্যাপল ও নাইকিকে চীনের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্নের আহ্বান

স্টাফ রিপোর্টার: উইঘুর মুসলিম জনগোষ্ঠীকে জোরপূর্বক শ্রমে নিযুক্ত করার কারণে চীনের সরবরাহকারীদের সঙ্গে অ্যাপল ও নাইকির মতো জায়ান্ট প্রতিষ্ঠানগুলোকে সম্পর্ক ছিন্ন করার আহ্বান জানানো হয়েছে। অধিকারকর্মীরা এ বিষয়ে প্রচারণা শুরু করেছেন। তাতে বলা হচ্ছে, পশ্চিমাঞ্চলীয় সংখ্যালঘু উইঘুর মুসলিমদের ব্যবহার করে চীনের ওইসব কোম্পানি সমৃদ্ধ হচ্ছে এবং সুবিধা ভোগ করছে। এভাবে জোরপূর্বক শ্রম নির্যাতনের বিষয়ে কঠোর সতর্কতার অংশ হিসেবে অর্থনৈতিক চাপ বৃদ্ধি করেছে যুক্তরাষ্ট্র। নাইকি এবং অন্য বড় ব্রান্ডগুলো বলেছে, তারা অভিযোগ খতিয়ে দেখছে। নাইকি বলেছে, তারা চীনে এমন শ্রম অধিকার লঙ্ঘনের সঙ্গে জড়িত সরবরাহকারীদের শনাক্ত করার জন্য কাজ করছে। তাদের দাবি, তারা সরাসরি সিনজিয়াং থেকে পণ্য সরবরাহ নেয় না। অন্যদিকে অ্যাপল বলেছে, তারাও অভিযোগ তদন্ত করে দেখছে।

তারা আরও বলেছে, অ্যাপলের প্রোডাকশন লাইনে জোরপূর্বক শ্রম ব্যবহারের পক্ষে কোনো তথ্যপ্রমাণ তারা পায় নি। তবে তারা অব্যাহতভাবে এ বিষয়টি নজরদারিতে রেখেছে। এ খবর দিয়েছে অনলাইন বিবিসি। রাজনীতিবিদ ও অধিকারকর্মীরা বলছেন, চীন সরকারের মানবাধিকার লঙ্ঘন বন্ধ করতে এসব কোম্পানিকে আরো অনেক কিছু করতে হবে। এমন চাপ সৃষ্টি করছে ১৮০টিরও বেশি সংগঠন। তার একটি এন্টি-স্লেভারি ইন্টারন্যাশনাল। এর ক্লোই ক্রানস্টোন বলেছেন, বড় বড় এসব ব্রান্ড এবং খুচরা ক্রেতাদের অনেক আগেই চীনকে ছেড়ে যাওয়া উচিত ছিল। কিন্তু তারা তা করেনি। এ জন্যই এখন জনগণের পক্ষ থেকে তাদেরকে এই আহ্বান জানানো হচ্ছে। এটা এখন গুরুত্বপূর্ণ ও অত্যাবশ্যক হয়ে পড়েছে। এটা শুধু একটি সরবরাহকারীর সঙ্গে সম্পর্কের ইতি ঘটানো নয়। বাস্তবে এটা হলো একটি সমন্বিত উদ্যোগের বিষয়।

কি ঘটছে সিনজিয়াংয়ে: অস্ট্রেলিয়ান স্ট্র্যাটেজিক পলিসি ইনস্টিটিউট (এএসপিআই) এবং ইউএস কংগ্রেস সহ অন্যদের রিপোর্টে এটা দেখা গেছে যে, পুরো চীনে বিভিন্ন কারখানায় কাজ করতে হাজার হাজার উইঘুরকে স্থানান্তর করা হয়েছে। এএসপিআইয়ের রিপোর্টে শক্তভাবে দাবি করা হয়েছে, সেখানে জোরপূর্বক শ্রমে ব্যবহার করা হচ্ছে উইঘুরদের। যেসব কারখানায় এসব করা হচ্ছে সেখানে নাইকি, অ্যাপল ও গ্যাপের মতো কমপক্ষে ৮০টি হাই-প্রোফাইল ব্রান্ড জড়িত বলে বলা হয়েছে। সিনজিয়াংয়ে অন্তর্র্বর্তী ক্যাম্পে কমপক্ষে ১০ লাখের বেশি উইঘুরকে চীন আটকে রেখেছে বলে মনে করা হয়। সম্প্রতি সিনজিয়াং থেকে পাঠানো ১৩ টন চুল জব্দ করেছে যুক্তরাষ্ট্রের সীমান্তরক্ষীরা। এর মূল্য ৮ লাখ ডলার বলে ধারণা করা হচ্ছে। ওদিকে যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্য মন্ত্রণালয় এরই মধ্যে চীনের কমপক্ষে ১১টি কোম্পানিকে কালো তালিকাভুক্ত করেছে, যারা অ্যাপলের মতো প্রতিষ্ঠানের সরবরাহকারী হিসেবে কাজ করে। মার্কিন কংগ্রেসের আইন প্রণেতারা সিনজিয়াং থেকে পণ্য আমদানি পুরোপুরি বন্ধ করতে একটি প্রস্তাবতা বিবেচনা করছেন। ইউরোপও একটি প্রস্তাব আনার হুমকি দিয়েছে, যা এসব কোম্পানির ওপর আরো নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ চালাবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ