সোমবার ২৯ নবেম্বর ২০২১
Online Edition

আফগানিস্তানে সরকারি বাহিনীর বিমান হামলায় নিহত ৪৫

২৩ জুলাই, ডিডব্লিউ : আফগানিস্তানে গত বুধবার সরকারি বাহিনীর বিমান হামলায় তালেবান সদস্য ও সাধারণ গ্রামবাসীসহ অন্তত ৪৫ জন নিহত হয়েছে। তবে দেশটিতে নিযুক্ত মার্কিন বাহিনীর একজন মুখপাত্র জানিয়েছেন, তারা এ হামলায় অংশ নেয়নি।

সংবাদমাধ্যম ডিডব্লিউ জানিয়েছে, নিরাপত্তা বাহিনীর ওই বিমান হামলায় অন্তত আটজন বেসামরিক আফগান নাগরিকের মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছে আরও অনেকে।

আফগান বাহিনীর দাবি, তাদের বিমান হামলার উদ্দেশ্য ছিল তালেবানদের খতম করা। কিন্তু এতে অন্তত আট জন সাধারণ গ্রামবাসী নিহতের ঘটনায় নতুন করে উত্তেজনা তৈরি হয়েছে। এ ঘটনায় লিখিত বিবৃতি দিয়েছে তালেবান। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে তদন্তের আশ্বাস দিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

বিশ্লেষকরা বলছে, কয়েক মাস আগে তালেবানদের সঙ্গে নিরাপত্তা বাহিনীর যে শান্তি প্রক্রিয়া শুরু হয়েছিল, নিরাপত্তা বাহিনীর এ হামলার ফলে সেটি বড় ধরনের একটি ধাক্কা খেলো। ঘটনার সূত্রপাত গত বুধবার রাতে। আফগানিস্তানের পূর্ব প্রান্তে হেরাত প্রদেশ। সেখানে আদ্রাসকান জেলা তালেবান অধ্যুষিত। জেলার গভর্নর আলি আহমেদ ফকির ইয়ার জানিয়েছেন, বুধবার রাতে পর পর দুইটি বিমান হামলা হয়। বিমান থেকে একের পর এক বোমা ফেলা হয়। নিমেষের মধ্যে গোটা এলাকা কার্যত ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়। তালেবান অধ্যুষিত ওই এলাকা ঘনবসতিপূর্ণ বলে জানা গেছে। ফলে হামলায় বহু সাধারণ মানুষের মৃত্যু হয়েছে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, হামলায় তালেবান সদস্যদের পাশাপাশি বহু সাধারণ গ্রামবাসীরও মৃত্যু হয়েছে।

তালেবানের এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, সম্প্রতি যেসব তালেবান সদস্য জেল থেকে মুক্তি পেয়ে স্বাভাবিক জীবনযাপনে ফিরে যাওয়ার কথা ভাবছিল, এই ঘটনার পর তারা আবার হাতে অস্ত্র তুলে নেবে। আফগান সরকারের একটি সূত্র জানিয়েছে, বুধবারের বিমান হানায় শুধুমাত্র আফগান সেনারাই যুক্ত ছিল।  মার্কিন বাহিনী এতে অংশ নেয়নি। দেশটিতে নিযুক্ত মার্কিন বাহিনীর একজন মুখপাত্রও বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

সমালোচনার মুখে আফগান সরকার জানিয়েছে, কী ভাবে সাধারণ মানুষের প্রাণ গেল, কতজন নিহত হয়েছেন, সে ব্যাপারে তদন্ত করে দেখা হবে।  দ্রুত সেই রিপোর্ট সংবাদমাধ্যমে প্রকাশ করা হবে। তবে আফগান নিরাপত্তা বাহিনীর দাবি, তাদের বিমান হামলায় নয়; বরং তালেবানের পুঁতে রাখা ল্যান্ড মাইন বিস্ফোরণেই মৃত্যু হয়েছে সাধারণ গ্রামবাসীদের।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ