সোমবার ২৯ নবেম্বর ২০২১
Online Edition

হোম অব ক্রিকেটের অনুশীলনে যোগ দিলেন তাসকিন

স্পোর্টস রিপোর্টার : হোম অব ক্রিকেটের অনুশীলনের পঞ্চম দিনে এসে রৌদ্রোজ্জ্বল দিনে পূর্ণাঙ্গ অনুশীলন করেছেন ক্রিকেটাররা। ১৯ জুলাই অনুশীলনের পর দিন থেকেই বৃষ্টির মধ্যেই অনুশীলন করেছে ক্রিকেটাররা। গত ১৯ জুলাই থেকে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) অধীনে শুরু হয়েছে ক্রিকেটারদের অনুশীলন। তবে জাতীয় দলের পেসার তাসকিন আহমেদ গতকাল বৃহস্পতিবার প্রথম অনুশীলনে যোগ দিয়েছেন। করোনা ভাইরাসের কারণে চার মাসের বেশি সময় ধরে সব সবধরনের ক্রিকেট বন্ধ থাকলেও ব্যক্তিগত উদ্যোগে অনুশীলন শুরু করেন তিনি। এবার যোগ দিয়েছেন বিসিবির অনুশীলনে। এর আগে মোহাম্মদপুরের বসিলায় অনুশীলন করেছেন তিনি। ইনজুরির কারণে বার বার দল থেকে ছিটকে যাওয়ায় ফিটনেস নিয়ে এবার বেশ সচেতন তাসকিন। বিসিবির সূচি অনুযায়ী, সবার শেষে অনুশীলনে আসেন পেসার তাসকিন আহমেদ। নির্ধারিত সময়ের কিছুটা সময় দেরিতে আসেন তিনি। মুশফিকুর রহিম চলে যাওয়ার পর মিরপুর স্টেডিয়ামের মূল মাঠে ফিজিওকে সঙ্গে নিয়ে রানিং করেন এই তরুণ ডানহাতি পেসার। বিসিবির অনুশীলনের প্রথম পর্বের শেষ দিন আগামী ২৬ জুলাই আবার অনুশীলন করবেন তাসকিন। গত তিন দিন বৃষ্টিতে অনুশীলন করেন ক্রিকেটাররা। গতকাল মিরপুরের হোম অব ক্রিকেটে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) নির্ধারিত সূচি অনুযায়ী অনুশীলন করেন চার ক্রিকেটার। সকালে অনুশীলন করেছেন পেসার শফিউল ইসলাম। এদিনই প্রথম গ্লাভস হাতে অনুশীলন করেছেন মুশফিকুর রহিম। এরপর অনুশীলনে আসেন মোহাম্মদ মিঠুন। আর শেষে প্রথমবারের মতো অনুশীলন করেন পেসার তাসকিন আহমেদ। করোনাকালে নিজেকে ফিট রাখতে সম্ভাব্য সবই করেছেন তাসকিন। কখনো রাজধানীর বোলিং অনুশীলনও। নিজ বাসার গ্যারেজে করেছেন বোলিং ড্রিল আর ধানমন্ডি ৪ নাম্বার মাঠে সম্প্রতি শুরু করেছেন বোলিং অনুশীলন। অপেক্ষা ছিল কেবল প্রিয় ভেন্যু মিরপুর শের-ই-বাংলায় ফেরার। অবশেষে সেটাও হলো। তাসকিন আহমেদ ছাড়াও গতকাল অনুশীলন করেছেন শফিউল ইসলাম, মুশফিকুর রহিম ও মোহাম্মদ মিঠুন। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের ব্যবস্থাপনায় গত রোববার থেকে হোম অব ক্রিকেট মিরপুরে ব্যক্তিগত অনুশীলন শুরু করেছেন মুশফিকুর রহিম, মোহাম্মদ মিঠুন ও শফিউল ইসলাম। একদিন পরে অর্থাৎ সোমবার থেকে যোগ দিয়েছেন ইমরুল কায়েস। মহামারিকালে ঢাকাস্থ এই চার ক্রিকেটারের আগ্রহের প্রেক্ষিতেই মূলত স্বাস্থ্যবিধি মেনে শের-ই-বাংলায় অনুশীলনের ব্যবস্থা করেছে টাইগার প্রশাসন। সোমবার বিসিবি’র পাঠানো অনুশীলনের নতুন সূচিতে তাসকিন আহমেদ ও মেহেদী হাসান রানার নাম যুক্ত করা হয়। ফলে ঢাকাস্থ ক্রিকেটারদের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ছয়ে। সূচি অনুযায়ী মঙ্গলবার থেকে মেহেদী রানা ব্যক্তিগত অনুশীলন শুরু করেছেন। আর তাসকিন আহমেদ শুরু করলেন গতকাল থেকে। প্রথম পর্বের এক সপ্তাহের এই অনুশীলন চলবে ২৬ জুলাই পর্যন্ত। অনুশীলন শেষে সংবাদমাধ্যমের সঙ্গেও কথা বলেন তাসকিন। সেখানেই জানান বাংলাদেশের এতগুলো সিরিজ স্থগিত হয়ে যাওয়ায় কতটা কষ্ট পেয়েছেন এই গতি তারকা সেটাই জানালেন তিনি। তাসকিন বলেন, ‘আসলে যখন থেকে লকডাউন শুরু হয়েছে একটার পর একটা সিরিজ কিন্তু স্থগিত হচ্ছে। আমাদের যে জাতীয় দলের গ্রুপ আছে সেখানে আমি একদিন দেখলাম শ্রীলংকার সঙ্গে সিরিজ স্থগিত, তারপর নিউজিল্যান্ড সিরিজ, এখন টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপও ঠিক সময়ে হচ্ছে না। এই জিনিসগুলো যখন দেখি কষ্ট লাগে। কিন্তু এর মধ্যে থেকেই মানতে হবে আসলে সবার জন্যই তো একই নিয়ম। খারাপ লাগে তো কিছু করার নেই। এরমধ্যে থেকেই মানিয়ে নিতে হবে।’ কেবল আন্তর্জাতিক সিরিজই নয় সেই সঙ্গে দেশের ঘরোয়া ক্রিকেটও স্থগিত হয়ে আছে। এমন অবস্থায় ঘরে বসে মন কাঁদছে তাসকিনের। সে কথাই ব্যক্ত করলেন তাসকিন। তাসকিন বলেন, ‘একজন খেলোয়াড় হিসেবে মাঝে মধ্যে অনেক অস্থির হয়ে যাচ্ছি যে খেলতে পারছি না অনেক দিন ধরে। ঘরে থাকা, একঘেয়েমি সব কিছু। ঘরে থাকায় হয়ত ট্রেনিং করা... একই কাজ প্রতিদিন। আমার কাজই খেলাধুলা করা, খেলতেই পারছি না। অনেকের হয়ত জব শুরু হয়েছে, বিভিন্ন কাজ শুরু হয়েছে কিন্তু খেলাই বন্ধ। তো নিঃসন্দেহে এটা একটু খারাপ লাগছে। যত দ্রুত শুরু হয় সেটাই কামনা করছি এবং দেশের পরিস্থিতি যেন ভালো হয়।’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ