ঢাকা, বৃহস্পতিবার 6 August 2020, ২২ শ্রাবণ ১৪২৭, ১৫ জিলহজ্ব ১৪৪১ হিজরী
Online Edition

রাজশাহী নগরীতে স্বাস্থ্যবিধি মানার কোনো বালাই নেই

 

রাজশাহী অফিস: রাজশাহীতে প্রতিদিন পাল্লা দিয়ে করোনাক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বেড়ে চললেও মহানগরীতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার কোনো বালাই দেখা যাচ্ছে না। সরকারি তরফে স্বাস্থ্যবিধি ও চলাচলের জন্য বেশ কিছু বিধি-নিষেধ আরোপ করা হলেও এগুলো অনুসরণের কোনো তোয়াক্কা করা হচ্ছে না। 

রাজশাহী মহানগরীতেও চলছে বিভিন্ন ধরনের নির্মাণকাজ। এর মধ্যে বড় ধরণের কাজ হচ্ছে সিটি বাইপাশ রাস্তা নির্মাণ ও ভাটাপাড়া বাকির মোড় এলাকায় ১০তলা হার্ট ফাউন্ডেশন নির্মাণ কাজ। এই নির্মাণ কাজের কোন শ্রমিক স্বাস্থ্যবিধি মানছে না। তারা কোন সময় মাস্ক ব্যবহার এবং সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখছে না। আর এই সকল শ্রমিক বেশিরভাগ পবা উপজেলার। উপজেলার হিসেবে রাজশাহী জেলার মধ্যে এই উপজেলায় সব থেকে বেশি করোনায় আক্রান্ত রোগী রয়েছে। তারাই মূলত বেশি কাজ করছে এই সকল নির্মাণ কাজে। এসকল শ্রমিকদের নিয়ে এলাকার মানুষও আতঙ্কের মধ্যে রয়েছে। শুধু নির্মাণ শ্রমিকরাই নয়, ফেয়ার প্রাইস চাল উত্তোলনকারী এবং টিসিবি থেকে পণ্য ক্রয়কারী নারী পুরুষদের একই অবস্থা। তারাও মানছে না স্বাস্থ্যবিধি। টিসিবি’র পণ্য বিক্রয় স্থানে পুলিশ থাকলেও তারা এ নিয়ে কোন কাজ করছেন না। বুধবার দুুপরে নগরীর নওদাপাড়া আম চত্বরে ঠাঁসাঠাঁসি করে টিসিবির পণ্য ক্রয় করতে দেখা যায় সাধারণ মানুষকে। আর ট্রাকের পাশেই নিরবে বসে থাকতে দেখা যায় পুলিশ সদস্যদের। বেশীরভাগ ক্রেতার মুখে ছিল না মাস্ক। এ অবস্থায় সেখানকার ব্যবসায়ীরা সামাজিক দুরত্ব বজায় না রাখলে এবং মুখে মাস্ক না পড়লে পন্য বিক্রয় করা থেকে বিরত থাকার জন্য টিসিবির বিক্রেতাদের অনুরোধ করেন। এবিষয়ে করণীয় নিয়ে জানতে চাইলে রাজশাহী অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক শরিফুল হক বলেন, জেলা প্রশাসকের পক্ষ থেকে প্রতিদিন ২৪টি করে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হচ্ছে। সেইসাথে জনগণকে সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখা ও বাড়ির বাইরে মাস্ক পরে থাকার জন্য সর্বদা সচেতন করার পাশাপাশি মাস্ক বিতরণ অব্যাহত রেখেছেন। তিনি বলেন, জনগণ সচেতন না হলে প্রশাসনের পক্ষে এই কাজ করা অত্যন্ত কঠিন। এছাড়াও টিসিবির পণ্য বিক্রয়ের সরকারি নির্দেশনা অমান্য করার বিষয়ে পদক্ষেপ নেবেন বলে জানান তিনি। সেইসাথে নিজের স্বার্থে এবং পরিবার ও দেশের স্বার্থে জনগণকে সরকারি নির্দেশনা মেনে চলার অনুরোধ। 

বিভাগে একদিনে শনাক্ত ১৯৪ 

রাজশাহী বিভাগের আট জেলার মধ্যে সাত জেলায় ২৪ ঘণ্টায় ১৯৪ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। চাঁপাইনবাবগঞ্জে এ দিন কোন করোনা আক্রান্ত শনাক্ত হয়নি। গত ২৪ ঘন্টায় সিরাজগঞ্জে একজন করোনা আক্রান্ত রোগী মারা গেছেন। একই সময় সুস্থ হয়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরেছেন ১১৬ জন। বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত রাজশাহী বিভাগে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৯২৯১ জনে। এ বিভাগে এখন পর্যন্ত মারা গেছেন ১১৯ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ৩৬৬৩ জন। দুপুরে এক প্রতিবেদনে রাজশাহী বিভাগীয় স্বাস্থ্য দপ্তারের পরিচালক ডা. গোপেন্দ্র নাথ আচার্য্য এ তথ্য জানিয়েছেন। তিনি জানান, ২৪ ঘণ্টায় নতুন শনাক্তের মধ্যে রাজশাহীর ৬০ জন, নওগাঁর ৪১ জন, নাটোরের ১ জন, জয়পুরহাটে ১ জন, বগুড়ায় ৪৫ জন, সিরাজগঞ্জে ৩৩ জন ও পাবনায় ১৩। তিনি জানান, রাজশাহী বিভাগে আক্রান্তদের মধ্যে সর্বোচ্চ বগুড়ায় ৩৯২৩ জন। এছাড়াও মহানগরীতে ১৫০৫ জনসহ রাজশাহী জেলায় ১৯২১ জন, চাঁপাইনবাবগঞ্জে ২২৭ জন, নওগাঁয় ৭৩৭ জন, নাটোরে ৩০৬ জন, জয়পুরহাটে ৫৯৮ জন, সিরাজগঞ্জে ৯৫২ জন ও পাবনায় ৬২৭ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ