বুধবার ২৭ জানুয়ারি ২০২১
Online Edition

রিজেন্টের সাথে চুক্তির দায় এড়াতে চলছে দোষারোপ

তোফাজ্জল হোসাইন কামাল : করোনায় আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসার জন্য ‘কোভিড ডেডিকেটেড’ হাসপাতাল হিসেবে বেসরকারি হাসপাতাল ‘রিজেন্ট’-এর সাথে স্বাস্থ্য অধিদফতরের চুক্তির দায় কার- এ নিয়ে চলছে একে অপরকে দোষারোপ। একজন অপরজনের ঘাড়ে দোষ চাপিয়ে দায় থেকে বাঁচার চেষ্টা করছেন। কেউ সে চুক্তির দায় নিতে চাচ্ছেন না এখন। অথচ রিজেন্ট সাহেদ যখন চাতুরতার মাধ্যমে লিজেন্ড হওয়ার পথে তখন তার  সাথে সংশ্লিষ্ট সকলেরই ছিল দহরম মহরম সম্পর্ক। সাহেদ তার নিয়ত প্রতারনার কারনে ধরা-এমন অবস্থায় সবাই গা বাচাঁতে তৎপর।
এদিকে , স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সাবেক সচিব আসাদুল ইসলামের মৌখিক নির্দেশে রিজেন্ট হাসপাতালের সঙ্গে স্বাস্থ্য অধিদফতর চুক্তি করেছিল বলে জানিয়েছেন অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ। রিজেন্ট ইস্যুতে মন্ত্রণালয়ের ‘শোকজ’ নোটিশের জবাবে এ কথা লিখেছেন মহাপরিচালক। গতকাল বুধবার (১৬ জুলাই) দুপুরে সচিবালয়ে স্বাস্থ্য সচিব আবদুল মান্নানের কাছে এই ব্যাখার লিখিত কপি জমা দেন স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহপরিচালক অধ্যাপক আবুল কালাম আজাদ। ব্যাখ্যায় উল্লেখ করা সাবেক স্বাস্থ্য সচিব আসাদুল ইসলাম বর্তমানে পরিকল্পনা কমিশনের সিনিয়র সচিব হিসেবে কর্মরত।
স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালকের এমন দাবির পর সাবেক স্বাস্থ্য সচিব আসাদুল ইসলামের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে গতকাল বুধবার সন্ধ্যায় তিনি একাধিক গনমাধ্যমকে জানান, তিনি রিজেন্টের সাথে অধিদফতরের চুক্তির বিষয়টি জানেন না। তিনি তাতে কোন হস্তক্ষেপও করেননি বলে গণমাধ্যমের কাছে দাবি করেন।
অপরদিকে , একাধিক সূত্র জানিয়েছে, রিজেন্টকে কোভিড ডেডিকেটেড হাসপাতাল হিসেবে তালিকাভুক্ত করতে মূল ভূমিকা পালন করেছেন অধিদফতরের পরিচালক (হাসপাতাল) ডা. আমিনুল হাসান। তিনিই হাসপাতাল পরিদর্শন করে একে কোভিড ডেডিকেটেড করার জন্য সুপারিশ করেন।
শোকজের জবাবে যা বললেন মহাপরিচালক
মহাপরিচালকের ব্যাখ্যা সম্পর্কে জানতে চাইলে স্বাস্থ্য সচিব বলেন, স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদের কাছে জানতে চেয়েছিলাম, রিজেন্টের সঙ্গে চুক্তির লিখিত আদেশ এই ব্যাখ্যার সঙ্গে সংযুক্ত রয়েছে কি না। তিনি লিখিত জবাব দিয়েছেন, আমরা সেটি পেয়েছি। সেখানে জানানো হয়েছে, চুক্তি করা হয়েছিল সাবেক স্বাস্থ্য সচিব আসাদুল ইসলামের মৌখিক নির্দেশে।
স্বাস্থ্য সচিব বলেন, মহাপরিচালকের জবাবের সঙ্গে তিনি অনেক কাগজ সংযুক্তি দিয়েছেন। সেগুলো পর্যালোচনা করা হবে। তার কাছে যা জানতে চেয়েছি, সেগুলো তার জবাবে আছে কি না- তা আমরা পর্যালোচনা করে দেখব। জবাবে সন্তুষ্ট হলেও আমরা লিখিতভাবে জানাব, সন্তুষ্ট না হলে ব্যবস্থা নেব- সবই আমরা গণমাধ্যমে জানাব।
স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরিচালক রিজেন্টকে সুপারিশ করেন যার নির্দেশে
সাবেক স্বাস্থ্য সচিব আসাদুল ইসলামের নির্দেশেই বেসরকারি হাসপাতাল রিজেন্ট কোভিড-১৯ ডেডিকেটেড হিসেবে অনুমোদন পায় বলে স্বাস্থ্য অধিদফতরের একাধিক সূত্র এবং একাধিক চিকিৎসক নেতা জানিয়েছেন। এ সংক্রান্ত কিছু কাগজপত্র গনমাধ্যমের  হাতে এসেছে। একাধিক সূত্র জানিয়েছে, রিজেন্টকে কোভিড ডেডিকেটেড হাসপাতাল হিসেবে তালিকাভুক্ত করতে মূল ভূমিকা পালন করেছেন অধিদফতরের পরিচালক (হাসপাতাল) ডা. আমিনুল হাসান। তিনিই হাসপাতাল পরিদর্শন করে একে কোভিড ডেডিকেটেড করার জন্য সুপারিশ করেন।
হাসপাতালটি যথাযথভাবে পরিদর্শন করেই এখানে কোভিড শনাক্তের যাবতীয় কার্যক্রম সম্পন্ন করার উদ্যোগ নেওয়া হয় বলে চিঠিতে বলেছেন ডা. আমিনুল হাসান। অথচ এই হাসপাতালটি টেস্ট না করেই কোভিড-১৯ ‘পজিটিভ’ ও ‘নেগেটিভ’ সনদ দিতো।
গত ২১ মার্চ স্বাস্থ্য অধিদফতর ও বেসরকারি রিজেন্ট হাসপাতালের সঙ্গে চুক্তি হয় কোভিড ডেডিকেটেড হাসপাতাল হিসেবে। চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক, তৎকালীন স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব আসাদুল ইসলাম, স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ, পরিচালক (হাসপাতাল) ডা. আমিনুল হাসানের উপস্থিতিতে রিজেন্ট হাসপাতালের মালিক মো. সাহেদ তার মালিকানাধীন উত্তরা ও মিরপুরে অবস্থিত রিজেন্ট হাসপাতালের দুটি শাখাকে কোভিড ডেডিকেটেড হাসপাতাল হিসেবে চুক্তি করে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ