বৃহস্পতিবার ০১ অক্টোবর ২০২০
Online Edition

অযোধ্যা ভারতে নয়, দক্ষিণ নেপালে ভগবান রাম একজন নেপালি -ওলি

সংগ্রাম ডেস্ক : ভারতের ভূমির পর এবার রামকেও নিজেদের বলে দাবি করলো ভারত। দেশটির দক্ষিণাঞ্চলের বীরগুঞ্জ এলাকার থোরিতেই রাম জন্মেছেন বলে দাবি করেছেন নেপালের প্রধানমন্ত্রী কে পি শর্মা ওলি। আউটলুক, দ্য হিন্দু।
ওলি বলেন, প্রকৃত অযোধ্যা বীরগুঞ্জের পশ্চিমে থোরিতে অবস্থিত। অথচ ভারতের দাবি, ভগবান রামের জন্মভূমি, তাদের দেশে অবস্থিত।’
ওলির মন্তব্যের তীব্র সমালোচনা করে ভারতীয় জনতা পার্টি বিজেপির মুখপাত্র বিজয় শঙ্কর শাস্ত্রি বলেছেন, ভগবান রাম আমাদের বিশ্বাসের ব্যাপার। নেপালের প্রধানমন্ত্রী হন আর যেই হন, আমরা কাউকে আমাদের আবেগ নিয়ে খেলা করতে দেবো না।
নেপালি কবি ভানুভক্তের জন্মজয়ন্তী উপলক্ষে ওলি বলেন, আমরা ইতিহাসভিত্তিক আগ্রাসনের শিকার। আমাদের সংস্কৃতিকে সবসময় অবহেলা করা হয়েছে। ওরা দাবি করে, নেপালী রাজকুমারী সীতা ভারতীয় রাজপুত্র রামকে বিয়ে করেছিলেন। অথচ অযোধ্য নেপালের একটি গ্রামের নাম। অবশ্য রামায়ণ অনুযায়ী, রামের শ্বশুরবাড়ি নেপালে অবস্থিত। সীতা নেপালের মিথিলা এলাকার জনকপুরে রাজা জনকের ঘরে জন্মেছিলেন বলে জনশ্রুতি আছে।
ক্ষেপেছে পুরোহিতরা
হিন্দুদের দেবতা রামচন্দ্রকে নেপালি বলে দাবি করায় নেপালের প্রধানমন্ত্রী কেপি শর্মা ওলিকে ‘পাগল’ বলে কটাক্ষ করলেন অযোধ্যার পুরোহিতরা। পুরোহিতরা ভবিষ্যদ্বাণী করে বলেছেন, এক মাসের মধ্যে নেপালের প্রধানমন্ত্রীর পতন ঘটবে।
নেপালের প্রধানমন্ত্রীর কড়া সমালোচনা করে রাম মন্দির ট্রাস্টের সদস্য মহন্ত দীনেন্দ্র দাস বলেছেন, ভগবান রাম এখানে জন্মেছিলেন। অযোধ্যায় তার জন্ম। তিনি অযোধ্যারই ছিলেন, এটাই জনপ্রিয় বিশ্বাস। এটা সত্য যে সীতা নেপালের ছিলেন। তবে ভগবান রামও নেপালি ছিলেন, এই দাবি ঠিক নয়। ওলির মন্তব্যের নিন্দা করছি।
আরেক পুরোহিত তথা রাম দল ট্রাস্টের প্রধান রাম দাস মহারাজের আবার সন্দেহ ওলি পাকিস্তানের হয়ে কাজ করছেন। তার দাবি, আগে নেপাল একটি হিন্দু রাষ্ট্র ছিল। তবে এটি এখন চীন ও পাকিস্তানের কথায় চলছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ