বৃহস্পতিবার ০১ অক্টোবর ২০২০
Online Edition

নতুন করে খাদ্যাভাবে পড়তে পারে ১৩ কোটি মানুষ -জাতিসংঘ

সংগ্রাম ডেস্ক : করোনা মহামারি পরিস্থিতির কারণে এ বছরের শেষ নাগাদ আরও ১৩ কোটি ২০ লাখ মানুষ দীর্ঘমেয়াদে অনাহারের মুখে পড়তে পারে বলে সতর্ক করেছে জাতিসংঘ। গত সোমবার প্রকাশিত এক নতুন প্রতিবেদনে এমন আশঙ্কা জানানো হয়েছে। এ পরিস্থিতি মোকাবিলায় জনগণের জন্য পুষ্টিকর ও মানসম্মত খাবার নিশ্চিতে নীতিমালা প্রণয়ন ও বিনিয়োগের জন্য বিভিন্ন দেশের সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে জাতিসংঘ।
জাতিসংঘের ‘স্টেট অব ফুড সিকিউরিটি এন্ড নিউট্রিশন ইন দ্য ওয়ার্ল্ড ২০২০’ শীর্ষক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত বছর ২০০ কোটি মানুষ খাদ্যজনিত অনিরাপত্তায় ভুগেছে। এর মধ্যে ৭৪ কোটি ৬০ লাখ মানুষ তীব্র খাদ্য অনিরাপত্তার মধ্যে আছে। জাতিসংঘ সতর্ক বলেছে, সে সংখ্যাটা এখন আরও বাড়ছে। এ প্রবণতা চলতে থাকলে ২০৩০ সালের মধ্যে দারিদ্র্য নির্মূলের জন্য জাতিসংঘ যে লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে তা হুমকির মুখে পড়বে।
প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, করোনা পরিস্থিতির আগে থেকেই বিশ্বে খাদ্যজনিত অনিরাপত্তা দেখা দিয়েছে। বেশ কয়েক দশক ধরে কমতে থাকলেও ২০১৪ সাল থেকে এই শ্রেণির মানুষের সংখ্যা বেড়েছে। তবে ক্ষুধার বিরুদ্ধে যুদ্ধ জয়ের পথে প্রতিবন্ধকতা তৈরি করেছে কোভিড-১৯, যা খাদ্যপ্রাপ্তির আশাকে ঝুঁকিতে ফেলেছে। খাদ্য জোগানের অপ্রতুলতা বা সীমাবদ্ধতা আরও জোরালো হয়ে উঠছে। জাতিসংঘের প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, বিশ্বের বেশিরভাগ দরিদ্র মানুষই ন্যূনতম পুষ্টিকর খাদ্যটুকু কেনার সামর্থ্য রাখে না। পুষ্টিকর খাদ্যের দাম সবার সাধ্যের মধ্যে রাখার জন্য বিভিন্ন কর্মসূচিতে বিনিয়োগের পাশাপাশি কৃষি উৎপাদনের ক্ষেত্রে কর পরিহার করতে বিভিন্ন দেশের সরকারের প্রতি আহ্বান জানানো হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ