ঢাকা, বৃহস্পতিবার 6 August 2020, ২২ শ্রাবণ ১৪২৭, ১৫ জিলহজ্ব ১৪৪১ হিজরী
Online Edition

রাস্তায় পড়ে থাকা ক্ষতবিক্ষত সেই নারীর ঘাতক গ্রেপ্তার 

সংগ্রাম অনলাইন ডেস্ক: রাজধানীর পান্থপথ সিগন্যাল সংলগ্ন গ্রীন রোডে পড়ে থাকা ক্ষতবিক্ষত সেই নারীর ঘাতককে  ডিবি পুলিশ।মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ জানিয়েছে, লাশ উদ্ধারের মাত্র ৪ ঘণ্টার মধ্যেই তাদের হাতে ধরা পড়েছে ঘাতক। ডিবি পুলিশের কাছে খুনের বর্ণনাও দিয়েছে সে।

জানা গেছে, অপকর্মে ব্যর্থ হয়ে শ্বাসরোধে হত্যার প‌রে রা‌তেই ওই নারীর লাশ রাস্তায় ফে‌লে আসে আনসার আলী। হত্যার পর রক্তের সব দাগ পরিষ্কার করলেও কিছুটা থেকে যায়। সে র‌ক্তের সূ‌ত্র ধ‌রে আনসারের প্রতি পুলিশের সন্দেহ হয়। পরে ডি‌বি পু‌লি‌শের এক‌টি দল ঘটনার আসপা‌শের ভব‌নের সিসিটিভির ভিডিও ফুটেজ উদ্ধার ক‌রে। তার ম‌ধ্যে এক‌টি সি‌সি‌টি‌ভির ভি‌ডিও ফু‌টে‌জে দেখে যায় আনসার আলীকে। প‌রে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) ঘাতক আনসার আলীকে গ্রেপ্তার ক‌রে।

এর আগে শুক্রবার (১০ জুলাই) ভোররাতে রাজধানীর পান্থপথ সিগন্যাল সংলগ্ন গ্রীন রোডে ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটির গলির রাস্তায় ক্ষতবিক্ষত অবস্থায় মোমেনা নামে এক নারীর মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

ডি‌বি পু‌লিশর জিজ্ঞাসাবাদে আনসার আলী খুনের বর্ণনা দিয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদে আনসার বলেছে, সে ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটির গলিতে একটি বাড়ির দারোয়ান। ওই বাড়ির পার্কিংয়ের পাশে তার থাকার একটি রুম ও টয়লেট রয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে এক নারীকে তিনি রুমে নিয়ে আসেন। ওই নারীর সঙ্গে সে অপকর্মে লিপ্ত হতে চান। এ সময় ওই নারী চিৎকার করতে গেলে আনসার রেগে যান। অপকর্মে ব্যর্থ হয়ে তাকে টয়লেটে নিয়ে শ্বাসরোধে হত্যা করেন। এরপর রাত ২টার দিকে ওই নারীকে কয়েকটি বাড়ির পর ঘটনাস্থলে ফেলে আসে। ওই ফেলে আসার চিত্র ধরা পড়ে সিসিটিভিতে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ডিবি রমনা জোনাল টিমের এডিসি মিশু বিশ্বাস বলেন, ‘খুনি আনসারকে গ্রেপ্তার করেছে ডিবি। প্রথমে ওই নারী অজ্ঞাত পরিচয়ের ছিল। পরে ফিঙ্গার প্রিন্টের মাধ্যমে তার পরিচয় শনাক্ত করা হয়। ওই নারীর নাম মোমেনা খাতুন (৪০)। তার গ্রামের বাড়ি শেরপুর।’

তিনি আরো বলেন, ‘আনসারের বক্তব্যে ঘটনার প্রাথমিক সত্যতা বেরিয়ে এসেছে। তাকে অধিকতর জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে আরও বিস্তারিত জানা যাবে। এদিকে মোমেনারও বিস্তারিত জানার চেষ্টা চলছে।’

এদিকে ময়নাতদন্তের জন্য নিহতের মরদেহ ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) মর্গে রাখা হয়েছে। এ ঘটনায় কলবাগান থানায় মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

ডিএস/এএইচ

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ