মঙ্গলবার ১১ আগস্ট ২০২০
Online Edition

বন্যা কবলিত ১২ জেলার জন্য ২ কোটি ২১ লাখ টাকা বরাদ্দ

স্টাফ রিপোর্টার: বন্যা কবলিত ১২ জেলার জন্য সরকার ২ কোটি ২১ লাখ টাকা বরাদ্দ দিয়েছে। এর মধ্যে মানবিক সহায়তা বাবদ রয়েছে ১ কোটি ৭৩ লাখ টাকা, শিশুখাদ্য কেনার জন্য ২৪ লাখ টাকা এবং গোখাদ্য কেনার জন্য রয়েছে আরও ২৪ লাখ টাকা। এছাড়াও মানবিক সহায়তা বাবদ ১০ হাজার ৯০০ টন চালও বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় গতকাল সোমবার (৬ জুলাই) এ তথ্য জানিয়েছে।
মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে বন্যার পানি বাড়তে থাকায় মানুষ চরম বিপর্যস্ত পরিস্থিতিতে রয়েছে। এসব জেলায় মানবিক সহায়তা বাবদ নগদ টাকা ও খাদ্যসহায়তা পাঠিয়েছে সরকার। এর বাইরেও বন্যাক্রান্ত ১২ জেলায় ২৪ হাজার প্যাকেট শুকনা ও অন্যান্য খাবার, শিশু খাদ্য কিনতে ২৪ লাখ টাকা এবং গো-খাদ্য কিনতে আরও ২৪ লাখ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। এসব ত্রাণসামগ্রী ডিসিদের অনুকূলে বরাদ্দ দিয়ে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদফতরের মহাপরিচালকে চিঠি পাঠানো হয়েছে।
মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, রংপুর, কুড়িগ্রাম, গাইবান্ধা, নীলফামারী, লালমনিরহাট, সিলেট, সুনামগঞ্জ, বগুড়া, সিরাজগঞ্জ, জামালপুর, টাঙ্গাইল ও মাদারীপুর জেলায় দুই হাজার প্যাকেট শুকনা ও অন্যান্য খাবার বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।
চিঠিতে বলা হয়েছে, শিশু খাদ্য হিসেবে খেজুর, বিস্কুট, ফার্টিফাইড তেল, ব্রাউন চিনি, সুজি, মশুরের ডাল, সাগু, ফার্টিফাইড চাল, ওয়াটার পিউরিফাইড ট্যাবলেট, বাদাম, মানসম্মত রেডিমেড ফুড ইত্যাদি স্থানীয়ভাবে ক্রয় করে বিতরণ করতে হবে।
বান্যাক্রান্ত এই ১২ জেলায় মানবিক সহায়তা হিসেবে গোখাদ্য কিনতে প্রতি জেলায় দুই লাখ টাকা করে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।
গোখাদ্য হিসেবে বিভিন্ন প্রকার ভূষি, খৈল, চালের কুড়া, চিটা গুড়, খড়, মানসম্মত রেডিমেড ফুড ইত্যাদি স্থানীয়ভাবে কিনে বিতরণের নির্দেশনা দিয়েছে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়।
সূত্র জানিয়েছে, বিশেষ  শ্রেণি ও ‘এ’  শ্রেণির জেলায় ২০০ মেট্রিক টন চাল ও তিন লাখ টাকা, ‘বি’ শ্রেণি জেলায় ১৫০ মেট্রিক টন চাল ও আড়াই লাখ টাকা এবং ‘সি’  শ্রেণির জেলাগুলোর জন্য বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে ১০০ মেট্রিক টন চাল ও দুই লাখ টাকা।
চিঠিতে বলা হয়েছে, এ বরাদ্দ শুধুমাত্র আপদকালীন সময়ে প্রাকৃতিক দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে বিতরণ করতে হবে। প্রাকৃতিক দুর্যোগ ছাড়া অন্য কোনও সহায়তা বাবদ এই বরাদ্দ বিতরণ করা যাবে না।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ