বুধবার ০৫ আগস্ট ২০২০
Online Edition

কুমারখালীতে দু’গ্রুপের সংঘর্ষে ১ নিহত পুলিশসহ অর্ধশতাধিক আহত 

কুমারখালী (কুষ্টিয়া) সংবাদদাতাঃ কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে আ‘লীগের দু’গ্রুপের আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে একজন নিহত হয়েছে। এ ঘটনায় ৬ পুলিশসহ উভয় পক্ষের অর্ধশতাধিক আহত হয়। নিহত বিল্লাল হোসেন (৪৮) পুলিশের রাবার বুলেটে অথবা প্রতিপক্ষের গুলিতে আহত হয়ে হাসপাতালে মারা যায়। সে সান্দিয়াড়া গ্রামের তোফাজ্জেলের ছেলে। আ‘লীগের দু’গ্রুপের আধিপত্য বিস্তারের বিষয়টি বর্তমানে দুই গ্রামের কোন্দলে রুপ নিয়েছে।

গতকাল সোমবার সকাল সাড়ে ১০ টায় উপজেলার পান্টি ইউনিয়নের সান্দিয়ারা বাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটেছে। পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, পান্টি ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক সামিউর রহমান সুমন ও ডাঁসা গ্রামের দুলাল শেখের শিল্পপতি ছেলে মামুনের মধ্যে দীর্ঘদিন যাবৎ আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দ্বন্দ চলে আসছিল। এরই জের ধরে সোমবার সকালে সান্দিয়ারা বাজারে দু’গ্রুপ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এসময় পুলিশ দু’গ্রুপের সংঘর্ষ ছত্রভঙ্গ করতে রাবার বুলেট ছুড়ে। এঘটনায় ৬ জন পুলিশ সদস্যসহ উভয় পক্ষের প্রায় অর্ধ শতাধিক আহত হয়। সুমন গ্রুপের বিল্লালকে গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে কুমারখালী হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করেন। অন্যান্য আহতদের কুমারখালী উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্স ও কুষ্টিয়া সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। চিকিৎসক জানান, নিহত ব্যক্তির শরীরে রাবার বুলেটের চিহ্ন রয়েছে। কুষ্টিয়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দু’গ্রুপের সংঘর্ষে একজন নিহত হয়েছে। ৬ জন পুলিশ সদস্যসহ উভয় পক্ষেই প্রায় অর্ধশতাধিক আহত হয়েছেন। তিনি আরো বলেন, পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এদিকে পুলিশ না প্রতিপক্ষের গুলিতে বিল্লাল নিহত হয়েছে, তা নিয়ে সমালোচনা চলছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ