শনিবার ০৪ জুলাই ২০২০
Online Edition

ভুল কাজের পরিণতি কখনো ভালো হয় না

করোনায় বিপর্যস্ত বিশ্ব। বিশ্বজুড়ে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার পর অনেক দেশই লকডাউন বা কঠোর বিধিনিষেধের পথে হেঁটেছে। শুধু জীবন নয় জীবিকার সঙ্কটেও পড়েছে মানুষ। ফলে বিধিনিষেধ শিথিল করেছে অনেক দেশ। কিন্তু বিধিনিষেধ শিথিলের পর সংক্রমণ বাড়ার খবর পাওয়া যাচ্ছে। এমন দেশগুলোর মধ্যে রয়েছে বাংলাদেশ, জার্মানি, ইউক্রেন, যুক্তরাষ্ট্র, সুইজারল্যান্ড, ফ্রান্স, সুইডেন, ইরান, ইন্দোনেশিয়া ও সৌদি আরব। এটি আমাদের জন্য কোনো ভালো খবর নয়। এদিকে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলছে, ইউরোপ-আমেরিকাসহ বিশ্বের বিভিন্ন অঞ্চলে করোনা ভাইরাসের দ্বিতীয় তরঙ্গ আসার সঙ্কেত পাওয়া যাচ্ছে। করোনার এমন সঙ্কেত ছাড়াও অন্য সঙ্কেত পাওয়া যাচ্ছে এই সময়ে।

সঙ্কেতটা হচ্ছে, চীনকে মোকাবিলায় এশিয়ায় সৈন্য বাড়াচ্ছে আমেরিকা। আমরা জানি, লাদাখ সীমান্ত বিরোধকে কেন্দ্র করে ভারত ও চীনের সেনাবাহিনীর মধ্যে বিরাজ করছে তুমুল উত্তেজনা। এই সময়ে চীনের হুমকির মোকাবিলায় ভারতের পাশে দাঁড়াচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র। ইউরোপ থেকে সিংহভাগ সৈন্য সরিয়ে তা এশিয়ায় মোতায়েনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। বেলজিয়ামের রাজধানী ব্রাসেলসে এক সম্মেলনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে গত ২৫ জুন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও ওই তথ্য জানান। তিনি বলেন, আপাতত জার্মানিতে মোতায়েন করা ৫২ হাজার সেনার সংখ্যা কমিয়ে ২৫ হাজার করা হচ্ছে। অর্থাৎ ২৭ হাজার সেনা ইউরোপ থেকে এশিয়ায় নিয়ে আসা হবে। ভারতের পাশে দাঁড়ানোর জন্য ইউরোপ থেকে মার্কিন সৈন্য সরিয়ে এশিয়ায় নিয়ে আসা হচ্ছে। এটা সমরকৌশলের অংশ হতে পারে। তবে লক্ষ্য করা গেছে, কৌশলের পথে হাঁটতে হাঁটতেই ক্ষমতাবানরা জড়িয়ে যায় যুদ্ধে। আমরা জানি যুদ্ধ শান্তির পথ নয়, বরং ধ্বংসের পথ। আর যখন বিবাদমান দুই পক্ষের দ্বন্দ্বে জড়িয়ে যায় কোনো পরাশক্তি, তখন তার পরিণতি হয় ভয়াবহ। ইরাক, আফগানিস্তান ও সিরিয়ায় আমরা পরাশক্তির অমানবিক তা-ব ও ধ্বংসযজ্ঞ লক্ষ্য করেছি। প্রতিবেশীদের জন্যও তা কোনো ভালো বিষয় নয়।

ভারত ও চীন আমাদের বন্ধু দেশ। উভয় দেশের শান্তি ও সমৃদ্ধি আমাদের কাম্য। বড় এই দুই দেশে রয়েছেন বড় বড় প-িত ও বিশেষজ্ঞ। সীমান্ত সংঘর্ষ বন্ধে কী করণীয়, তা তাদের অজানা নয়। তাহলে করোনার এই সময়ে কেন অনাকাক্সিক্ষত এই সীমান্ত সংঘর্ষ? কেন এই ভুল পথে হাঁটা। যিনি বা যারা ভুল করছেন তাঁরা তো জানেন যে, ঠিক কাজ করছেন না। ভুল কাজের পরিণতি কখনো ভালো হয় না। ইতিহাসের এই শিক্ষা গ্রহণ করলেই মঙ্গল।

 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ