বুধবার ১২ আগস্ট ২০২০
Online Edition

জনগণের ওপর চাপ দিয়ে সরকার কর আদায় করছে 

স্টাফ রিপোর্টার: করোনার কারণে ভয়াবহ অর্থনৈতিক সংকটের মধোও জনগণের ওপর চাপ দিয়ে সরকার কর আদায় করছে বলে বলে অভিযোগ করেছেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

তিনি বলেন,এই  দুঃসময়ে ইলেক্ট্রিক বিল, ইনকাম ট্যাক্স, এডভান্স ইনকাম ট্যাক্স, মিউনিসিপ্যাল ট্যাক্স ও অন্যান্য যেসব ট্যাক্স আছে তা আপাতত বন্ধ করা উচিত। এজন্যে  যে, এ্খন মানুষের পক্ষে এসব ট্যাক্স দেয়া অসম্ভব হয়ে দাঁড়িয়েছে। এই ট্যাক্সগুলো এখন আরো চাপ দিয়ে জনগণের কাছে থেকে আদায় করা হচ্ছে।

বিদ্যুতের অতিরিক্ত বিল আদায়ের অভিযোগ করে মির্জা ফখরুল বলেন,  করোনার এই দুঃসময়েও ইলেক্ট্রিসিটির বিলে ভৌতিক বিল তৈরি করা হচ্ছে। প্রচুর বিল আসছে। যেখানে ৫ হাজার ৬ হাজার টাকার বিল হয় সেখানে ৩০ থেকে ৩৫ হাজার টাকা থেকে ৪০ হাজার টাকার বিল করা হচ্ছে। আমরা এর তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি। আমরা অবিলম্বে এই সব বিল আদায় আপাতত বন্ধ করা এবং ওইসব বিল সংশোধন করার জন্য দাবি জানাচ্ছি।

উত্তরার বাসা থেকে ইন্টারনেটের মাধ্যমে দলের গঠিত ‘জাতীয় করোনা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ সেলের ত্রাণ বিতরণ কর্মকান্ড তুলে ধরেন বিএনপি মহাসচিব।

তিনি জানান, গত ২০ মার্চ থেকে ২৪ জুন পর্যন্ত বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনসমূহ সারাদেশে ৫৪ লক্ষ ১২ হাজার ৪১৬টি পরিবারকে খাদ্য সামগ্রীসহ আর্থিকভাবে সহযোগিতা করেছে। এতে ২ কোটি ১৬ লাখ ৪৯ হাজার ৬৬৪ জন মানুষ উপকৃত হয়েছে। বিএনপির বাইরে ডক্টরস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ-ড্যাব, জিয়াউর রহমান ফাউন্ডেশনসহ দলের নেতৃবৃন্দও কয়েক লক্ষ মাস্ক, স্যানিটাইজার, সাবান ও পিপিই বিতরণ করেছে।

মির্জা ফখরুল বলেন, অত্যন্ত ভরাক্রান্ত হৃদয়ে বলতে চাই, আমাদের অনেক গুণীজন চলে গেছেন। আমরা জানি এই অবস্থা থেকে বেরিয়ে আসা শুধুমাত্র সরকারের একার পক্ষে সম্ভব নয়। যে ভয়ংকর রকমের বিপয্র্য় আসছে তাকে মোকবিলা করার তার জন্যে সরকারের যে আন্তরিকতার প্রয়োজন ছিলো সেই আন্তরিকতা তারা দেখাতে পারেনি। দায়িত্বশীল ভুমিকা পালন করার কথা ছিলো সেই ভুমিকা তারা পালন করতে পারেনি, যে সমন্বয় থাকার কখা ছিলো সেই সমন্বয় তারা করতে পারেনি।

 কারণ একটাই যে এই সরকার জনগণের দ্বারা নির্বাচিত কোনো সরকার নয়। এই ধরনের সমস্যা মোকাবিলা করা একমাত্র একটি গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত সরকারের পক্ষে সম্ভব। আসুন আজকে আমরা জনগণের পাশে দাঁড়াই এই মহাবিপর্য়য়ে তাদের কল্যাণের জন্য আমরা কাজ করি। একই সঙ্গে আমাদের রাষ্ট্র ব্যবস্থা যেন গণতান্ত্রিক কাঠামোর রাষ্ট্র ব্যবস্থা নির্মাণ করতে পারি তার জন্য আমরা সবাই কাজ করি।

এক প্রশ্নের মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, দেশনেত্রী খালেদা জিয়া যেখানে আছেন সেখানে করোনা যাতে সংক্রমিত না হয় সেজন্য সব রকমের ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। উনি করোনা থেকে মুক্ত আছেন। উনার যে অসুখ ছিলো সেই অসুখের খুব একটা উন্নতি হয়নি। কারণ এখানে কোনো রকম চিকিৎসার সুযোগ পাওয়া যায়নি,যাচ্ছে না। হাসপাতালগুলোতে যাওয়া যায় না। বাইরে যাওয়ার ব্যাপারে তো শর্তই দিয়ে দিয়েছে যে, বাইরে যেতে পারবেন না। ওই অবস্থায় খুব বেশি উন্নতি হয়নি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ