শনিবার ০৪ জুলাই ২০২০
Online Edition

৯ মাসে হাফেজ হলো ১২ বছরের শিশু

করোনায় সারাদেশের সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান যখন বন্ধ ঠিক তখনই রাজধানীতে মাত্র ৯ মাসে কুরআনে হাফেজ হয়েছে প্রায় ১২ বছর বয়সী শিশু জুবায়ের। রাজধানীর মানিকনগর ওয়াসা রোডে অবস্থিত জামিয়া ইসলামিয়া জহির উদ্দিন আহমেদ মাদরাসার শিক্ষার্থী হাফেজ জোবায়ের আহমেদ আকাশ। জানা যায়, মাদরাসার মুহতামিম মুফতি জুবায়ের আহমেদ, শিক্ষক হাফেজ শরিফুল ইসলাম ও জুবায়েরের মা হাফেজা সুমাইয়া আক্রার জেনির অক্লান্ত প্রচেষ্টায় শিক্ষার্থী জোবায়ের এত অল্প সময়ে কুরআনে হাফেজ হতে সক্ষম হয়েছে। উল্লেখ্য গণ ২০১৯ সালের অক্টোবর মাস থেকে জুবায়ের পবিত্র কুরআন হিফজ করতে শুরু করে। এরমধ্যে মার্চ ২০২০ থেকে মহামারি করোনার কারণে সরকার সকল ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করার পরে হাফেজ জুবায়ের তার নিজ বাড়িতে চলে যান। বাড়িতে বসেই মুঠোফোনের মাধ্যমে নিয়মিত শিক্ষকদের দিকনির্দেশনা নিয়ে তার পড়াশোনা চালিয়ে গেছে। এ সময় তার মা কুরআনের হাফেজা সুমাইয়া আক্রার জেনি তার পড়াশোনায় সাহায্য করেন। যার সুবাদে গণ ৫ জুন সে পবিত্র কুরআনের সম্পূর্ণ ৩০ পারা মুখস্ত করতে সক্ষম হয়েছে। তার এই সফলতায় আনন্দিত হয়ে জামিয়া ইসলামিয়া জহিরুদ্দিন আহমদ মাদরাসার মুহতামিম হাফেজ মাওলানা মুফতি জুবায়ের আহমদ বলেন, আমরা আমাদের শিক্ষার্থী জুবায়ের আহমেদ আকাশের সফলতায় গর্বিত। আমরা তার উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ কামনা করছি। মহান আল্লাহ তায়ালার কাছে দোয়া করছি তিনি হাফেজ জুবায়ের আহমেদ আকাশকে দীনের দায়ী হিসেবে কবুল করে নিন। হাফেজ জুবায়ের আহমেদ আকাশের শ্রেণি শিক্ষক হাফেজ শরিফুল ইসলাম বলেন, হাফেজ জুবায়ের আহমেদ অত্যন্ত মার্জিত ও ভদ্র স্বভাবের একটি শিশু ছেলে। আল্লাহর অশেষ রহমতে সে অল্প বয়সে এবং খুব স্বল্প সময়ে কুরআনে হাফেজ হয়েছে। তার এই কৃতকার্যতা আমাদের মাদরাসা সুনাম অর্জন করেছে। আমরা তার আগামী জীবনের সর্বোচ্চ সফলতা কামনা করছি। শিক্ষার্থীর মা হাফেজা সুমাইয়া আক্রার জেনি বলেন, আমার ছেলের এই অর্জনের জন্য মহান সৃষ্টিকর্তা আল্লাহ তায়ালার কাছে শুকরিয়া আদায় করছি। পাশাপাশি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি আমার সন্তানের শিক্ষকদের প্রতি। তাদের অক্লান্ত পরিশ্রমে ও মহান আল্লাহ তায়ালার রহমতে আমার ছেলের আজকের এই অর্জন। দেশবাসীর কাছে আমার সন্তানের জন্য আমি দোয়া প্রার্থনা করছি। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।  

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ