ঢাকা, রোববার 9 August 2020, ২৫ শ্রাবণ ১৪২৭, ১৮ জিলহজ্ব ১৪৪১ হিজরী
Online Edition

লকডাউনের পর যেভাবে খাপ খাইয়ে নেয়ার চেষ্টা করছে বাংলাদেশের মানুষ

সংগ্রাম অনলাইন ডেস্ক: সবকিছু আবার চালু করার পর তিন সপ্তাহ পার হয়ে গেছে

বাংলাদেশে দুইমাসের বেশি সময় সাধারণ ছুটির বা অঘোষিত লকডাউনের পর আবার অনেক কিছু স্বাভাবিক হতে শুরু করার তিন সপ্তাহ পার হয়ে গেল। সরকারি-বেসরকারি অফিস খুলে গেছে, গণপরিবহন-বিমান চলতে শুরু করেছে। বিপনিবিতান, বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান, কলকারখানা আবার সচল হয়ে উঠেছে।

ফলে দুইমাস ধরে ঘরে আটকে থাকার পরে এখন আবার বাইরে বের হতে শুরু করেছেন মানুষজন। অফিসে, কারখানায়, দোকানে যেতে হচ্ছে। বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান, বাড়িতে যেসব কড়াকড়ি ব্যবস্থা নেয়া হয়েছিল, অনেক স্থানে সেসব শিথিল হচ্ছে।

কিন্তু সেই সঙ্গে আবার করোনাভাইরাসে সংক্রমণ ও মৃত্যুর সংখ্যাও বেড়ে চলেছে। এর মধ্যেই বাংলাদেশে আক্রান্তের সংখ্যা এক লাখ ছাড়িয়ে গেছে।

সংক্রমণ বৃদ্ধির মাঝে সচল হয়ে ওঠা জীবনযাত্রার সঙ্গে কীভাবে খাপ খাইয়ে নিচ্ছে মানুষ? সেটাই বর্ণনা করেছেন ঢাকার কয়েকজন বাসিন্দা:

সোহানা ইয়াসমিন

ঢাকার একজন বেসরকারি চাকরিজীবী

মার্চ মাসের শেষ থেকে শুরু করে মে মাস পর্যন্ত পুরো সময় বাসাতেই কাটিয়েছি। একবার শুধু অসুস্থতার জন্য হাসপাতালে যেতে হয়েছিল। কিন্তু এছাড়া খুব একটা বাইরে যাইনি।

হোম অফিস চলছিল। তাই দিনের বেলা ল্যাপটপের সামনে অনেক সময় কেটেছে।

পহেলা জুন থেকে আবার আবার অফিস শুরু হয়েছে। আমি যে বিভাগে কাজ করি, তাতে অফিসে না গেলে হয় না। তাই আমাকে যেতেই হয়। কিন্তু আমাদের অফিসের পরিবহন ব্যবস্থা নেই। তাই সকালে যখন আমি বাসা থেকে বের হই, আমাকে অনেক ব্যবস্থা নিতে হয়।

এই প্রচণ্ড গরমের মধ্যেও হাত-পা ঢাকা জামাকাপড় পড়ার পাশাপাশি মোজাও পড়ি। মাথা ভালো করে স্কার্ফ দিয়ে পেঁচিয়ে নেই। চোখে চশমা, মুখে মাস্ক পড়ে বের হই। আমার বাসা থেকে অফিস যেতে এক ঘণ্টার মতো সময় লাগে। পুরো সময়টা ঘেমেনেয়ে একাকার হয়ে যাই।

বাসা থেকে বের হয়ে প্রথমে একটা রিক্সা নিতে হয়। মেইন রোডে উঠে বাসে ওঠার সাহস পাই না। আগে মোটরসাইকেল রাইডে যেতাম। এখন আর সেটা ব্যবহারে সাহস হয় না। তাই সিএনজি করে অফিসে যাই। প্রতিদিন যেতে আসতে চারশো টাকা খরচ হয়ে যায়। সেই সঙ্গে একেকদিন একেকজন ড্রাইভারের পেছনে বসতে হয়। সিটে বসেও কাঁচুমাচু হয়ে থাকি, যেন কোন কিছুর সঙ্গে স্পর্শ না হয়।

অফিসে গিয়ে যতটা সম্ভব নিজের সিটেই থাকার চেষ্টা করি। খুব দরকার না হলে কারো টেবিলে যাই না, অন্যরাও আসে না।

দুপুরের খাবার বাসা থেকেই আগেও নিয়ে যেতাম, এখনো যাই। কিন্তু এখন আর সেটা নিয়ে ক্যান্টিনে যাই না। নিজের টেবিলে বসেই খাই।

এতো কিছু করার পরেও বাসায় ঢুকেই আজকের সব জামাকাপড় খুলে একটা বালতিতে সাবান পানিতে ভিজিয়ে রাখি। সকালে একবার গোছল করে বেরিয়েছি, বাসায় ঢুকে আবার গোছল করি।

সকালে কোন বাজার আনা হলে সেটা তখন পানিতে ভিজিয়ে রাখি। সন্ধ্যায় বাসায় ফিরে রান্নাবান্না করে রাখি।

ঈদের আগে সব কিছূ চালু করার খবরে ঢাকা ফিরতি মানুষের ঢল নামে

শাহনাজ পারভীন

গৃহবধূ, ধানমণ্ডির বাসিন্দা

মার্চ মাস থেকেই বাসার গৃহকর্মীকে আসতে না বলে দিয়েছিলাম। এরপর থেকে বাসার সব কাজ আমরা সবাই মিলে করছি।

কিন্তু সাধারণ ছুটি শেষ হয়ে যাওয়ার পর বাসার সবার অফিস চালু হয়ে গেছে, সবাইকে সকালে বাইরে চলে যেতে হয়। ঘরে আগে সবাই মিলে সহযোগিতা করতো, এখন তো সবাইকে বাইরে যেতে হচ্ছে। তাই গৃহকর্মীকে আবার আসতে বলেছি।

আমার চিন্তাও বেড়েছে। ছেলে-মেয়ে তাদের অফিসে যায়। সারাক্ষণ তাদের নিয়ে চিন্তায় থাকি। যেভাবে রোগী বাড়ছে, তাতে সবসময়ে একটা ভয় হয়। ওরা যতক্ষণ বাড়িতে না আসে, ততক্ষণ চিন্তা হয়।

বহুদিন কোন আত্মীয়স্বজন বাসায় আসে না, আমরাও কারো বাসায় যাই না। কবে যে আবার যাবো, তারও কোন নিশ্চয়তা নেই। সবার সঙ্গে অবশ্য ফোনে ফোনে যোগাযোগ হচ্ছে। কিন্তু ঢাকায় অনেক ঘনিষ্ঠ আত্মীয়স্বজন থাকার পরেও কয়েকমাস ধরে তাদের কারো সাথে দেখা হচ্ছে না।

মাঝখানে কিছুদিন আগে গ্রামের বাড়ি থেকে কয়েকজন আত্মীয় ঢাকায় এসেছিল, কিন্তু এই পরিস্থিতিতে তাদের আর বাসায় আসতে বলিনি।

এই বছর কোরবানিও দেবো না বলে ভাবছি। কারণ কোরবানি দিতে হলে ছেলেকে আবার হাটে যেতে হবে, বাইরের লোকজন এসে মাংস কাটতে হবে। এই বছরটা এসব থেকে একটু দূরে থাকার কথা ভাবছি।

জুন মাস থেকে বাংলাদেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা অনেক বেড়েছে

তৈরি পোশাক কারখানার কর্মকর্তা

আমি যে কারখানায় চাকরি করি, সেটা আশুলিয়ায়। মিরপুর থেকে প্রতিদিন অফিসের গাড়িতে করে সেখানে যেতে হয়। গত দুইমাস একেবারে ঘরের মধ্যে ছিলাম, এমনকি বাজার করতেও নীচে নামিনি। অনলাইনে কেনাকাটা করেছি। কিন্তু এখন তো চাকরি। কারখানা খুলে গেছে, আর বাড়িতে থাকার উপায় নেই।

সকাল সাড়ে সাতটায় বের হই। প্রথম কয়েকদিন বাজার থেকে কেনা পিপিই পড়ে বের হয়েছিলাম। কিন্তু প্রচণ্ড গরমের কারণে সেটা বেশিক্ষণ পরে থাকা যায় না। এখন মাস্ক, মাথার টুপি, হ্যান্ড গ্লাভস পরে বের হই। মাস্ক, গ্লাভস ইত্যাদি কিনতে গিয়ে মাসের বেতনের বড় একটা খরচ বের হয়ে যাচ্ছে। কিন্তু কি আর করবো?

কিছুদিন আগে আমাদের সঙ্গে এক গাড়িতে যাতায়াত করতো, এরকম একজন আক্রান্ত হয়েছে বলে শুনেছি। গাড়িতেও সামাজিক দূরত্বের বালাই নেই, কারণ এতো গাড়ি আমাদের নেই, একটা গাড়ি অনেককে শেয়ার করতে হয়। তাই বাধ্য হয়েই আমাদের সবাইকে যাতায়াত করতে হয়। তবে সবসময় মাস্ক, গ্লাভস পড়ে থাকি।

সারাদিন কারখানায় ভয়ে ভয়ে থাকি। অসংখ্য কর্মী, তাদের সাথে কাজ দেখতে যেতে হয়। যদিও প্রবেশ পথে তাদের পরীক্ষা করে দেখা হয়, কিন্তু তারপরেও কে যে আক্রান্ত, তা নিয়ে খানিকটা সংশয় থেকে যায়।

আগে অফিসের নীচে চা খেতে যেতাম। এখন সেসব দোকান বন্ধ হয়ে গেছে, আমিও অফিসের বাইরে বের হই না। বন্ধুবান্ধবের সঙ্গে অনেক মাস ধরে দেখা হয় না।

বাসায় এসে ভালো করে প্রতিদিন গরম পানি দিয়ে গোছল করি। আগে এক জামা দুইদিন পড়তাম, এখন প্রতিদিন এসে সাবান পানিতে ধুয়ে ফেলি।

গ্রিন রোডে আমার একটি দোকান আছে। দুইমাস পরে জুনের ১০ তারিখ থেকে দোকান খুলেছি। কতদিন আর বন্ধ রাখবো? কিন্তু দোকানে কোন বিক্রিবাট্টা নেই।

চারজন কর্মী কাজ করে। গত দুইমাস জমানো টাকা দিয়ে বেতন দিয়েছি। ব্যবসার যে অবস্থা, এমাসেও কোন আয় হবে না। কিন্তু স্টাফদের বেতন আছে, দোকান ভাড়া, বিদ্যুতের বিল আছে। সকাল সন্ধ্যা দোকান খুলে বসে থাকি, আর তো করার কিছু নেই। এদিকে বাসায় দুই ছেলে মেয়ে প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ে, আরেকটা পড়ে স্কুলে। নিজের ফ্ল্যাটে থাকলেও তিন ছেলে মেয়ের পড়ার খরচ, বাসার খরচ, ওষুধ মিলে একলক্ষ টাকা খরচ আছে।

দোকানে অনেকগুলো হ্যান্ড স্যানিটাইজার কিনে রেখেছি। যারাই আসে, আগে হাত পরিষ্কার করতে বলি। অনেক গ্রাহক আসে, মুখে মাস্ক নেই। কিন্তু বের করে তো দিতে পারিনা। তবে একটা পরিবর্তন হয়েছে। আগে গ্রাহকরা আসলে হ্যান্ডশেক করতাম, চা খেতে বলতাম। এখন সেসব বন্ধ। টেবিলের সামনে বসার দুইটা চেয়ার ছিল, এখন সেখানে একটা চেয়ার রেখেছি।

বাসা থেকে আগে রিক্সায় আসতাম, এখন হেটে আসি।

আমি থাকি ঢাকার কাঠালবাজার বাজারের কাছে একটি রুমে। ভাই, মা আর আমি। স্বামী থাকে দেশে।

মার্চ মাসের শুরুতে গ্রামের বাড়ি, কুড়িগ্রামে চলে গিয়েছিলাম, কিন্তু প্রতিমাসের ঘরভাড়া তিন হাজার টাকা করে ঠিকই দিতে হয়েছে। যেটুকু টাকা জমিয়েছিলাম, তা সব শেষ।

বাস চলাচল শুরু হওয়ার পর আবার ঢাকায় এসেছি।

আগে যেসব বাসায় কাজ করতাম, দুই বাসা থেকে বলে দিয়েছে, তারা আপাতত লোক রাখবে না। একবাসায় রান্নাবান্নার কাজ পেয়েছি। সেখানে যাওয়ার পর বিল্ডিংয়ের নীচে একবার সাবান দিয়ে হাত ধুতে হয়, আবার বাসায় ঢোকার পরে একবার হাত ধুতে হয়।

আমরা যেখানে থাকি, সেখানে একজনের রোগ হয়েছে বলে শুনছি। তারপরেও সেখানে থাকতে হয়। বাসা ছাড়লে বাসা তো পাওয়া যায় না, আর সবখানেই তো রোগ আছে। এখন আল্লাহর ওপর সব ছেড়ে দিয়েছি। কাজের জন্য দুই বেলা বাইরে যেতে হয়। মুখের কাপড় পড়ি।

 

আমরা গরীব মানুষ, কাজ না করলে তো টাকা নেই, বেতন নেই। এদিকে বাসা ভাড়া আছে, বাচ্চার খরচ আছে। আমাকে বলছে, প্রতিদিন যেন একটা জামা পড়ে না আসি। কিন্তু আমরা গরীব মানুষ, আমাদের কি এতো জামা কাপড় আছে?

-বিবিসি

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ