শুক্রবার ২৭ নবেম্বর ২০২০
Online Edition

প্রয়োজন এমন সন্তান ও জনপ্রতিনিধি

করোনা ভাইরাসে সংক্রমিত হয়ে ৪২ দিন আগে মারা যান মা হাসিনা নূর। তার বয়স হয়েছিল ৬৫ বছর। সেই সময় মাকে সেবা করতে গিয়ে দুই ভাই-বোন করোনায় সংক্রমিত হন। জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের পরামর্শে চিকিৎসা নিয়ে করোনামুক্ত হন নূরুল আমিন ও বোন তাসনীমা নূর। সুস্থ হয়ে ওঠার পর তারা পরিচয় দেন সুস্থ চিন্তারও। মায়ের স্মরণে এবং মাগফিরাত কামনায় দুই ভাই-বোন করোনা আক্রান্তদের প্লাজমা দেওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেন। তারা যোগাযোগ করেন নারায়ণগঞ্জের কাউন্সিলর মাকছুদুলের সঙ্গে। মাকছুদুলের পরামর্শে গত মঙ্গলবার ভাই নূরুল আমিন আলী আজগর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন নারায়ণগঞ্জ শহরের দেওভোগ এলাকার বাসিন্দা করোনা সংক্রমিত আবুল কালামকে ৪০০ এমএল প্লাজমা ডোনেট করেন এবং দু’দিন পর গত বৃহস্পতিবার বোন তাসনীমা নূর গ্রিন লাইফ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ধানমন্ডি এলাকার বাসিন্দা মীর হোসাইন চৌধুরী (৬২) ২০০ এমএল প্লাজমা দান করেন।
করোনা আক্রান্ত মানুষকে প্লাজমা দানের কাজ অবশ্যই মানবিক কাজ, পূণ্যের কাজ। দুই ভাই-বোনের মধ্যে এমন চেতনা এসেছে মায়ের স্মরণে এবং মাগফিরাত কামনায়। এই করোনাকালে আমরা অমানবিক অনেক ঘটনাও লক্ষ্য করেছি। করোনা আক্রান্ত মাকে সন্তানরা পরিত্যাগ করেছে, স্বামীর পাশে দাঁড়ায়নি স্ত্রী, আবার স্ত্রীকেও দূরে ঠেলে দিয়েছে স্বামী। এমন মন্দ উদাহরণের মাঝে উজ্জ্বল উদাহরণ সৃষ্টি করেছে এই দুই ভাই-বোন। করোনা আক্রান্ত মাকে তারা পরিত্যাগ করেননি। বরং মায়ের সেবায় ব্যস্ত থেকে হয়েছেন করোনা আক্রান্ত। তারা মোটেও ভেঙ্গে পড়েননি, হতাশও হননি। তারা চিকিৎসকদের পরামর্শ নিয়ে সঠিক কাজ করেছেন এবং হয়েছেন করোনামুক্ত। এখন তারা এগিয়ে এসেছেন মানব সেবায়। করোনা আক্রান্তদের দান করছেন প্লাজমা। আমরা তাদের কল্যাণ কামনা করছি।
এই দুই ভাই-বোনতো এখন মানুষের সেবা করছেন, কিন্তু মায়ের লাশ দাফন করতে গিয়ে মুখোমুখি হয়েছেন অমানবিক আচরণের। সিদ্ধিরগঞ্জ কবরস্থানে করোনায় মৃত মায়ের লাশ দাফন করতে গেলে বাধা আসে। প্রশ্ন জাগে, কোন জ্ঞানের ভিত্তিতে ওরা করোনার লাশ দাফনে বাধা দিল? আসলে অজ্ঞতা ও কুসংস্কার সবসময়ই মানুষ ও সমাজের জন্য ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। নিরুপায় সন্তানরা মায়ের লাশ দাফনে যোগাযোগ করেন কাউন্সিলর মাকছুদুল আলমের সঙ্গে। তিনি নারায়ণগঞ্জ সিটি কেন্দ্রীয় কবরস্থানে একজন মায়ের লাশ দাফনের ব্যবস্থা করেন। এমন সন্তান ও জনপ্রতিনিধির আজ খুবই প্রয়োজন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ