বুধবার ০৫ আগস্ট ২০২০
Online Edition

জুনে শুরু হচ্ছে না টাইগারদের মাঠের অনুশীলন

স্পোর্টস রিপোর্টার: করোনার প্রকোপ বেড়ে যাওয়ায় এ মাসে আর মাঠে অনুশীলনে ফিরতে পারছেনা ক্রিকেটাররা। কিছুুদিন ধরেই গুঞ্জন ছিল কয়েকদিনের মধ্যেই মাঠের অনুশীলনে ফিরবে ক্রিকেটাররা। এ জন্য মাঠও প্রস্তুত করার হয়েছিল। কিন্তু ক্রমেই করোনার প্রভার বেড়ে যাওয়ায় আপাতত সেটা আর হচ্ছে না। জুন মাসে তো নয়ই। ক্রিকেটারদের মাঠে ফিরতে জুলাই মাসের শেষের দিক পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হলেও অবাক হওয়ার কিছু থাকবেনা। এদিকে ব্যক্তিগত ভাবে অনুশীলনের কথা থাকলেও গতকাল পর্যন্ত একজন ক্রিকেটারও একক অনুশীলন করার লক্ষ্য মিরপুরের শেরে বাংলা কিংবা চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে যাননি। সেটাই শেষ কথা নয়, করোনার প্রকোপ বেড়ে যাওয়ায় আপাতত সব স্থগিত। ছোট ছোট দলে ভাগ হয়ে শারীরিক সংস্পর্শহীন অবস্থায় জাতীয় দলের প্রাকটিসের সম্ভাবনাও খুব কম। জাতীয় দলের প্রধান নির্বাকের কথাবার্তায় পাওয়া গেল সেই ইঙ্গিত। এখন দেশে করোনা সংক্রমণ যে মহামারী আকার ধারণ করেছে, তাতে করে যে কারও বিনা প্রয়োজনে বাসা থেকে বের হওয়াতেই রাজ্যের ঝুঁকি। সেভানে রুটিন করে ক্রিকেটারদের মাঠে গিয়ে অনুশীলন করা আরও ঝুঁকিপূর্ণ। প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন নান্নু জানান, ‘করোনার যা অবস্থা,তাতে যত পরিকল্পনাই করা হোক না কেন, জুন মাসে জাতীয় দলের অনুশীলন করার প্রশ্নই আসে না। জুলাইয়ের প্রথম ভাগেও হয়তো সম্ভব না। জুলাইয়ের মাঝামাঝি গিয়ে অবস্থা বুঝে চিন্তাভাবনা করা যাবে। কিন্তু এখন করোনা যেভাবে চারপাশে ছড়িয়ে পড়েছে এর ভেতরে অনুশীলনের চিন্তা করার প্রশ্নই আসে না।’ অবশ্য আইসিসির নির্দেশনা মেনে বিসিবি প্রধান চিকিৎসক দেবাশিষ চৌধুরী ঠিক ঈদের পরপরই জানিয়েছিলেন, ফিট ও ফুরফুরে রাখার জন্য ক্রিকেটারদের ছোট ছোট দলে ভাগ করে শুরু করা হবে ফিটনেস ক্যাম্প, সঙ্গে স্কিল ট্রেনিংও চলবে। সেটাও এমনভাবে হবে যাতে করে খেলোয়াড়দের মধ্যে কোনরকম শারীরিক সংস্পর্শ না হয়। তবে প্রধান নির্বাচক জানিয়ে রেখেছেন, যখনই শুরু হোক, জাতীয় দলের অনুশীলনের শুরুতে প্রথম তিন সপ্তাহ ধরে চলবে শুধু ফিজিক্যাল ট্রেনিং। তার পরের দুই সপ্তাহ হবে স্কিল ট্রেনিং। জাতীয় দলের এ সাবেক অধিনায়কের বোধ-উপলব্ধি এই ৫ সপ্তাহের মধ্যেই ক্রিকেটাররা প্রস্তুত হয়ে উঠবেন। এরপর আসলো ব্যক্তিগত পর্যায়ে অনুশীলন করার কথা। সাবেক অধিনায়ক ও নির্ভরযোগ্য ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহীমসহ কয়েকজন ক্রিকেটারের একান্ত ইচ্ছে তারা মাঠে গিয়ে রানিং, স্ট্রেচিং, জিমওয়ার্ক করার পাশাপাশি ব্যাটিং-বোলিংয়ের স্কিল ট্রেনিং করবেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ