শুক্রবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

৩৮ জনের বিরুদ্ধে সিআইডির মামলা দুই পাচারকারী রিমান্ডে

স্টাফ রিপোর্টার: লিবিয়ায় মানবপাচার এবং পাচারের শিকার ২৬ বাংলাদেশীকে গুলী করে হত্যার ঘটনায় ঢাকায় একটি মামলা করেছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ-সিআইডি। মঙ্গলবার রাতে সিআইডির এসআই রাশেদ ফজল বাদী হয়ে মামলাটি দায়ের করেন বলে পল্টন থানার ওসি আবু বকর সিদ্দিক জানান। তিনি বলেন, মানবপাচার প্রতিরোধ ও দমন আইনে এবং হত্যার অভিযোগে মামলাটি করা হয়েছে। আসামি করা হয়েছে মোট ৩৮ জনকে। এদিকে দুই পাচারকারীকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য গতকাল বুধবার চার দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।
র‌্যাবের হাতে দুদিন আগে ঢাকায় গ্রেফতার কামাল হোসের ওরফে হাজী কামাল (৫২) ছাড়াও ঢাকার শহীদ তাজউদ্দিন সরণির ট্র্যাভেল এজেন্সি নাভীরা লিমিটেড এবং হাতিরঝিলের ফ্লাইওভার ট্যুরস অ্যান্ড ট্র্যাভেলস লিমিটেডের মালিক দুই ভাই শেখ মো. মাহবুবুর রহমান (৪৯) ও শেখ সাহিদুর রহমান (৪০) এবং পুরানা পল্টনের স্কাই ভিউ টুরস অ্যান্ড ট্রাভেলসের মালিককে এ মামলায় আসামি করা হয়েছে। কামরাঙ্গীর চরের কামাল হোসেন (৪২) ও  শাহাদাত হোসেন নামের দুজনের নামও রয়েছে এজাহারে।
আসামিদের তালিকায় নাম এসেছে কিশোরগঞ্জের ভৈরবের তানজিলুর ওরফে তানজিলুম ওরফে তানজিদ (৩৫), তানজিদের ভাতিজা নাজমুল (২৪), বাচ্চু ওরফে বাচ্চু মিলিটারি (৫৫), মো. জোবর আলী (৫৫), জাফর (৫৫), স্বপন, মিন্টু মিয়া (৩৫), হেলাল মিয়া (৪৫), হাজী শহীদ মিয়া (৬১), মো. খবির উদ্দিন, মুন্নি আক্তার রূপসী ও লালন। মামলার আসামিদের মধ্যে মাদারীপুরের রাজৈর উপজেলার জুলহাস সরদার (৪৫) এবং সদর উপজেলার দিনা বেগম (২৫) ইতোমধ্যে স্থানীয় পুলিশের হাতে গ্রেফতার হয়েছেন।
এছাড়া দিনার স্বামী নজরুল মোল্লা (৩৫), একই জেলার রাশিদা বেগম (৪২), বুলু বেগম (৩৮), আমির শেখ (৫৫), জাহিদুল শেখ (৩২), জাকির মাতুব্বর (৬০), আমির হোসেন (৫৫), নাসির, সজীব মিয়া, রেজাউল বয়াতী এবং তিন ভাই নূর হোসেন শেখ (৪০), ইমাম হোসেন শেখ (৩৫) ও আকবর হোসেন শেখকে (৩২) আসামি করা হয়েছে সিআইডির মামলায়। গোপালগঞ্জের লিয়াকত শেখ ওরফে লেকু শেখ (৪৫), আ. রব মোড়ল (৪০), কুদ্দুস বয়াতী; শরীয়তপুরের সাদ্দাম (৩৫), কুষ্টিয়ার আলী হোসেনও (৩০) এ মামলার আসামি। এছাড়া অজ্ঞাতনামা আরও ৩০ থেকে ৩৫ জনকে এজাহারে আসামি করা হয়েছে বলে ওসি আবু বকর সিদ্দিক জানান।
দুই মানবপাচারকারী রিমান্ডে: এদিকে ২৬ বাংলাদেশিকে হত্যা ও মানবপাচারের ঘটনায় করা মামলায় দুই মানবপাচারকারী মাহবুবুর রহমান ও সাহিদুর রহমানের চার দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। তারা এই মামলার এজাহারনামীয় আসামি। গতকাল বুধবার তাদের ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতে হাজির করা হয়। এ সময় পল্টন থানায় মানবপাচারের ঘটনায় করা মামলার মূল রহস্য উদঘাটনের জন্য তাদের সাত দিনের রিমান্ডে নিতে আবেদন করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সিআইডি পুলিশের পরিদর্শক মিজানুর রহমান। শুনানি শেষে ঢাকা মহানগর হাকিম তোফাজ্জল হোসেন চার দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। 
উল্লেখ্য, গত ২৮ মে লিবিয়ার ত্রিপলি থেকে ১৮০ কিলোমিটার দক্ষিণের শহর মিজদাহতে ২৬ বাংলাদেশিকে গুলী করে হত্যা করে একদল মানব পাচারকারী ও তাদের স্বজনরা। ওই ঘটনায় চার আফ্রিকান অভিবাসীও নিহত হন। ওই ঘটনায় বেঁচে যাওয়া একজনের বরাতে সরকারের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, উন্নত জীবিকার সন্ধানে ইউরোপ যাওয়ার জন্য লিবিয়ায় দুর্গম পথ পাড়ি দিচ্ছিলেন ৩৮ বাংলাদেশি। বেনগাজি থেকে মরুভূমি পাড়ি দিয়ে মানবপাচারকারীরা তাদের ত্রিপোলি নিয়ে যাচ্ছিল। বৃহস্পতিবার ত্রিপলি থেকে ১৮০ কিলোমিটার দক্ষিণের শহর মিজদাহতে ওই দলটি লিবিয়ার মিলিশিয়া বাহিনীর হাতে জিম্মি হয়। তখন পাচারকারীরা আরও টাকা দাবি করে। এ নিয়ে বচসার মধ্যে আফ্রিকার মূল পাচারকারীকে মেরে ফেলা হলে তার পরিবার এবং বাকি পাচারকারীরা এলোপাতাড়ি গুলি চালিয়ে ৩০ জনকে হত্যা করে, আরও ১১ জন আহত হন। সিআইডির মামলার এজাহারে বলা হয়, ঢাকার বাংলামোটরের একটি ট্র্যাভেল এজেন্সির মালিকসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের ট্র্যাভেল এজেন্সি ও রিক্রুটিং এজেন্সির মালিক, কর্মচারী ও দালালরা ওই পাচারকারী চক্রে জড়িত।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ