বুধবার ০৫ আগস্ট ২০২০
Online Edition

ভারতে অপ্রতিরোধ্য হয়ে উঠেছে করোনা! পাকিস্তানে মন্ত্রীর মৃত্যু

স্টাফ রিপোর্টার : ভারতে যেন ক্রমেই অপ্রতিরোধ্য হয়ে উঠছে করোনাভাইরাস! গত ২৪ ঘণ্টায় ভারতে নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৮ হাজার ৯০৯ জন। সব মিলিয়ে গোটা দেশে ওই মারণ ভাইরাসে আক্রান্ত ২ লাখ ৭ হাজার মানুষ। এখন পর্যন্ত কোভিড-১৯ ভারতে প্রাণ কেড়েছে ৫,৮১৫ জনের। এদিকে করোনায় আক্রান্ত হয়ে প্রাণ হারিয়েছেন পাকিস্তানের সিন্ধু প্রদেশের এক মন্ত্রী। এছাড়া চীনের উহানে ১৫ দিনেই ১ কোটি ১০ লাখ বাসিন্দার করোনা পরীক্ষা করা হয়েছে।
এনডিটিভির খবরে বলা হয়েছে, ভারতের কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের পরিসংখ্যান অনুসারে দেশটিতে মোট করোনা আক্রান্ত ২ লাখ ৭ হাজার ৬১৫ জন। ভারতে করোনা ভাইরাস থেকে পুনরুদ্ধারের হার গতকাল বুধবার সকাল পর্যন্ত বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪৮.৩১ শতাংশে। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, মোট ১,০০,৩০৩ জন করোনা রোগী সুস্থ হয়ে জীবনের পথে ফিরে গেছেন। পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যেও করোনার দাপাদাপি, এক দিনের মধ্যেই নতুন করে আক্রান্ত আরো ৩৯৬ জন, মৃত ১০ জন। ভারতের মধ্যে এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত রাজ্য মহারাষ্ট্র। ওই রাজ্যে ৭২,০০০ এরও বেশি মানুষ কোভিড-১৯ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। ফলে এখনও করোনা ভাইরাসের হটস্পটই রয়ে গেছে উদ্ধব ঠাকুরের রাজ্যে। তবে এখন মহারাষ্ট্রের পরেই করোনা সংক্রমণের নিরিখে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে তামিলনাড়ু, ওই রাজ্যে এই নিয়ে পরপর ৩ দিন দৈনিক ১ হাজারেরও বেশি মানুষের মধ্যে ছড়িয়ে পড়েছে মারণ রোগটি। দক্ষিণের রাজ্যটিতে এখনও পর্যন্ত কোভিড আক্রান্ত মোট ২৪,৫৮৬ জন। এদিকে পশ্চিমবঙ্গেও প্রতিদিনই লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে কোভিড- ১৯ রোগীর সংখ্যা। রাজ্য সরকারি পরিসংখ্যান মতে, গত এক দিনের মধ্যেই পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যে নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন আরো ৩৯৬ জন, মৃত্যু হয়েছে ১০ জন রোগীর। পশ্চিমবঙ্গের স্বাস্থ্য দফতর জানিয়েছে, নতুন করে ওই ১০ জন রোগী মারা যাওয়ায় রাজ্যে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ২৬৩ জনে।
করোনায় পাক-মন্ত্রীর মৃত্যু: করোনায় আক্রান্ত হয়ে প্রাণ হারিয়েছেন পাকিস্তানের সিন্ধ প্রদেশের এক মন্ত্রী। গুলাম মুর্তজা বেলুচ সিন্ধ প্রদেশের মানব ব্যবস্থাপনা বিষয়ক মন্ত্রী ছিলেন। খবর আল জাজিরার। সাম্প্রতিক সময়ে পাকিস্তানে কড়াকড়ি তুলে নেওয়া হয়েছে। জনসমাগম এবং ব্যবসা-বাণিজ্য পুনরায় চালুর অনুমতি দেওয়া হয়েছে। কড়াকড়ি তুলে নেওয়ার পর থেকেই দেশটিতে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে। দেশটিতে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আক্রান্ত হয়েছে আরও ৪ হাজার ৬৫ জন এবং মারা গেছে ৬৭ জন। দেশটিতে এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৮০ হাজার ৪৬৩ এবং মৃত্যু হয়েছে ১ হাজার ৬৮৮ জনের। ইতোমধ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছে ২৮ হাজার ৯২৩ জন। পাকিস্তানে বর্তমানে করোনার অ্যাক্টিভ কেস ২৮ হাজার ৯২৩টি। এছাড়া ১১১ জনের অবস্থা এখনও আশঙ্কাজনক। মঙ্গলবার দেশটিতে সর্বোচ্চ আক্রান্তের রেকর্ড হয়েছে।
১৫ দিনেই উহানের ১ কোটি ১০ লাখ বাসিন্দার করোনা পরীক্ষা : করোনাভাইরাস মহামারির প্রাণকেন্দ্র চীনের হুবেই প্রদেশের উহানের এক কোটি ১০ লাখ বাসিন্দার প্রত্যেকের করোনা পরীক্ষা করা হয়েছে। বুধবার স্থানীয় কর্তৃপক্ষ বলছে, উহানের বাসিন্দাদের আর কেউই করোনা পরীক্ষার বাইরে নেই। সবারই পরীক্ষা ইতোমধ্যে সম্পন্ন হয়েছে। উহানের প্রত্যেক বাসিন্দার করোনা পরীক্ষার কাজ শুরু হয় গত মাসের মাঝের দিকে। তবে এই পরীক্ষায় সেখানকার বাসিন্দাদের মধ্যে যাদের বয়স ছয় বছরের নিচে তাদের অন্তর্ভূক্ত করা হয়নি। দেশটির কর্মকর্তারা বলেছেন, পরীক্ষায় নতুন করে কারও কোভিড-১৯ সংক্রমণ ধরা পড়েনি। তবে উপসর্গবিহীন ৩০০ জনকে আইসোলেশনে রাখা হয়েছে। অ্যাসিম্পটোমেটিকদের করোনার নিশ্চিত রোগী হিসেবে গণনা করে না চীন। তবে তাদের পরীক্ষার ফল নেগেটিভ না আসা পর্যন্ত বাধ্যতামূলক আইসোলেশনে রাখা হয়।
গত বছরের ডিসেম্বরে করোনার উৎপত্তি নিশ্চিত হওয়ার পর বিশ্বের প্রথম শহর হিসেবে উহানে লকডাউন ঘোষণা করা হয়। করোনার সংক্রমণ কমে আসায় ৭৬ দিন পর প্রত্যাহার করে নেয়া হয় এই লকডাউন। দেশটিতে এখন পর্যন্ত ৮৩ হাজার ২১ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন এবং মারা গেছেন ৪ হাজার ৬৩৪ জন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ