মঙ্গলবার ১৪ জুলাই ২০২০
Online Edition

সিরাজগঞ্জে শিমলা স্পার বাঁধে ২৫ মিটার ধস যমুনায় পানি বৃদ্ধি ॥ ভাঙ্গন শুরু

সিরাজগঞ্জের মেটোয়ানী, রেহাইপুখুরিয়া ও দেওয়ানগঞ্জ বাজার এলাকায় যমুনায় ভাঙ্গন। ভাঙ্গন কবলিত এলাকার মানুষ ঘর-দরজা, আসবাবপএ নিরাপদস্থানে সরিয়ে নিয়ে যাচ্ছে

ভ্রাম্যমাণ প্রতিনিধি: টানা বর্ষণে পানি বৃদ্ধির ফলে তীব্র স্রোতে সিরাজগঞ্জে যমুনার স্পার বাঁধের প্রায় ২৫ মিটার অংশ ধসে নদীগর্ভে বিলিন হয়ে গেছে। গত শনিবার সকালে সদর উপজেলার ছোনগাছা ইউনিয়নের শিমলা স্পার বাঁধে এ ধস দেখা দেয়। খবর পেয়ে পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) চিফ ইঞ্জিনিয়ার এ.কে.এম. শফিকুল হক, নির্বাহি প্রকৌশলী শফিকুল ইসলাম, উপ-বিভাগীয় সহকারি প্রকৌশলী রফিকুল ইসলাম, ছোনগাছা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও আ.লীগ সভাপতি শহিদুল আলম, ইউনিয়ন আ.লীগের সাধারন সম্পাদক মোহাম্মাদ আলী জিন্নাহ প্রমুখ কর্মকর্তারা বাঁধ এলাকা পরিদর্শন করেন। পাউবো সূত্রে জানা যায়, ২০০০-০১ অর্থবছরে ভাঙন এড়াতে যমুনার গতিপথ পরিবর্তনের লক্ষ্যে শিমলা এলাকায় এ স্পার বাঁধটি নির্মাণ করা হয়িছিল। এরপর বেশ কয়েকবার স্পারটি সংস্কারও করা হয়েছে। শনিবার ভোর রাত থেকে প্রবল বর্ষণ ও যমুনার পানি বৃদ্ধি পেয়ে তীব্র স্রোতে স্পার বাঁধের স্যাংক (স্পারের মাটির অংশ) প্রায় ২৫ মিটার ধসে গেছে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে ধস ঠেকাতে বালিভর্তি জিওব্যাগ ডাম্পিংয়ের নির্দেশ দেন। গত ৮ দিনে যমুনা নদীতে রেকর্ড হারে পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। শনিবার সকালে শহর রক্ষা বাঁধের হার্ডপয়েন্ট এলাকায় ১২ দশমিক ২৫ মিটার পানি প্রবাহ রেকর্ড করা হয়েছে। যা বিপদসীমার ১ দশমিক ১০ মিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। যমুনা নদীর পানি বৃদ্ধি অব্যাহত ভাঙ্গন : সিরাজগঞ্জের যমুনা নদীতে অসময়ে পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে। সেইসাথে যমুনা তীরবর্তী বিভিন্ন স্থানে আবারো ভাঙ্গন শুরু হয়েছে। এতে নদীর তীরবর্তী এলাকার নিম্নাঞ্চলের অনেক ফসল তলিয়ে গেছে। প্রায় এক সপ্তাহে যমুনা নদীতে প্রায় ১৩ ফিট পানি বৃদ্ধি পেয়েছে।

স্থানীয় পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী একেএম রফিকুল ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, প্রায় দেড় সপ্তাহ আগে উজানের পাহাড়ী ঢল ও দফায় দফায় বৃষ্টিপাত অব্যাহত থাকায় সিরাজগঞ্জের কাছে যমুনা নদীর পানি বাড়ছে। এক সপ্তাহে প্রায় ১৩ ফিট পানি বৃদ্ধি পেয়েছে এই যমুনা নদীতে।

তিনি আরো বলেন, অসময়ে পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় ইতিমধ্যেই যমুনা নদীর চর ও ডুবোচর ডুবে গেছে এবং শহররক্ষা বাঁধের হার্ডপয়েন্ট এলাকাতেও এখন পানি থই থই। এছাড়া নদীর তীরবর্তী বিভিন্ন স্থানে আবারো ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। ইতিমধ্যেই কাজিপুরের পাটাগ্রাম, এয়ায়েতপুর ও শাহজাদপুরে এই ভাঙ্গন প্রতিরোধে ব্যাবস্থা নেয়া হচ্ছে। বিগত বছরের চেয়ে এবার অসময়ে যমুনা নদীতে এখন বেশি পানি বাড়ছে। তবে এখন বন্যার তেমন কোন আশংকা নেই। এদিকে জেলা কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ হাবিবুল হক বলেন, সপ্তাহ ধরে যমুনা নদীর পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে। বিশেষ করে যমুনা নদীর তীরবর্তী চৌহালী, বেলকুচি, কাজিপুর, শাহজাদপুর ও সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার নিম্নাঞ্চলের অনেক স্থানে আঁখ, পাট, তিলসহ বিভিন্ন ফসল পানিতে নিমজ্জিত হয়েছে। তবে এ পানি দ্রুতই নেমে যাবে এবং এ কারণে ফসলের তেমন ক্ষতি হবে না বলে তিনি উল্লেখ করেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ