সোমবার ২৫ জানুয়ারি ২০২১
Online Edition

ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়ে চট্টগ্রাম মহানগরী জামায়াত নেতৃবৃন্দের বিবৃতি

আর মাত্র তিন বা চার দিন পরই অফুরন্ত রহমতের মাস মাহে রমযানুল মোবারক বিদায় নেবে। দীর্ঘ একমাস সিয়াম-সাধনা শেষে পবিত্র ঈদুল ফিতরের মহান আনন্দ ও খুশী। কিন্তু বিশ্বব্যাপী সর্বগ্রাসী মহামারি করোনা ভাইরাস ঈদের সকল আনন্দকে ম্লান করে দিচ্ছে। করোনা পরিস্থিতিতে মৃত্যু ও সংক্রমণের অবস্থা অত্যন্ত নাজুক। এ অবস্থায় মসজিদে মসজিদে ঈদের নামাজ আদায়ের মাধ্যমে ঈদের আনন্দের প্রস্তুতি চলছে। এবারের ঈদুল ফিতর উদযাপন হবে ব্যতিক্রম ধর্মী। এদিকে বঙ্গোপসাগর ফুঁসছে এবং বাংলাদেশের উপকূলীয় অঞ্চলে আঘাত হানার জন্য ধেয়ে আসছে প্রবল ঘূর্ণিঝড়“আম্ফান“। করোনা ভাইরাসের কারণে গোটা দেশ অচল। সাধারণ মানুষের দূর্ভোগের শেষ নেই তার উপর বঙ্গোপসাগরের আম্ফান নিম্নচাপটি সুপার সাইক্লোনে পরিণত হয়েছে। সমুদ্রবন্দর গুলোকে ১০নং বিপদ সংকেতের হুশিয়ারী ঘোষণা করা হয়েছে। এক কঠিন সংকটময় মুহুর্তে ঈদুল ফিতরের বার্তা নিয়ে হাজির পবিত্র শাওয়াল মাস। পবিত্র ঈদুল ফিতরের ঈদ শুভেচ্ছা, প্রাকৃতিক দূর্যোগ মোকাবেলায় জনসচেতনাতা ও ব্যক্তিগত সর্তকতার মাধ্যমে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার মাধ্যমে ঈদুল ফিতরের আনন্দ উদযাপনের আহবান জানিয়ে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য ও চট্টগ্রাম মহানগরী আমীর মাওলানা মুহাম্মদ শাহজাহান, কেন্দ্রীয় মজলিশে শূরার সদস্য ও চট্টগ্রাম মহানগরী সেক্রেটারী মুহাম্মদ নজরুল ইসলাম এক যুক্ত বিবৃতি প্রদান করেন।
বিবৃতিতে নগর জামায়াত নেতৃবৃন্দ বলেন, করোনা মহামারি ও ঘূর্ণিঝড় পরিস্থিতির কারণে মাহে রমজানেও মানুষের স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা ব্যবস্থা চরম ঝুঁকির মূখে। দেশের অর্থনীতিতে চরম মন্দা আসন্ন, প্রবল আগাম দুর্ভিক্ষের ঘনঘটা দেখা যাচ্ছে, এমতাবস্থায় সরকার ও সংশ্লিষ্ট সংস্থাকে দ্রব্যমূল্যের স্থিতিশীলতা বজায় রাখতে কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।
জামায়াত নেতৃবৃন্দ বলেন, ঈদের মৌসুমে মানুষের স্বাস্থ্য ঝুঁকি কমাতে ঈদে বাড়ি ফেরা,বাজারের ভীড় প্রবণতা রোধে সরকারকে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। নেতৃবৃন্দ দেশবাসীকে নিজের পরিবারের ও জনগণের নিরাপত্তার স্বার্থে স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে এবং প্রাকৃতিক দূর্যোগ “আম্ফান“ মোকাবেলায় মহান সৃষ্টিকর্তা আল্লাহর উপর মজবুত ঈমান, সর্বক্ষেত্রে আল্লাহকে ভয় করা এবং পাড়া প্রতিবেশী এবং আত্মীয়-স্বজনদের খোঁজ-খবর নেয়া ও পারস্পরিক সহযোগিতার মাধ্যমে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করার আহবান জানান। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ