বৃহস্পতিবার ০৬ আগস্ট ২০২০
Online Edition

রাজশাহীতে আম নামানো শুরু ॥ বাজারজাত নিয়ে শঙ্কা চাষি ও ব্যবসায়ীদের

মওসুম শুরু হলেও বাজার অনিশ্চিত রাজশাহীর আমবাগানগুলোর -সংগ্রাম

রাজশাহী অফিস : রাজশাহীতে আম নামানো শুরু হলেও বাজারজাত করা নিয়ে চাষি ও ব্যবসায়ীদের মধ্যে শঙ্কা বিরাজ করছে। করোনার কারণে পরিবহণ ও বাজার বন্ধ থাকায় এক অনিশ্চিত পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে।
রাজশাহী কৃষি বিভাগের তথ্য মতে, এবার জেলায় এবার ১৭ হাজার ৫৭৩ হেক্টর জমিতে আমের বাগান রয়েছে। সেখান থেকে উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ২ লাখ ১০ হাজার মেট্রিক টন।
তবে এবার এই লক্ষ্যমাত্রার অর্ধেকও পূরণ হবে না বলে মনে করছেন চাষিরা। তাদের দাবি এবার শুরুতেই আবহাওয়া ছিল বৈরী। এরপর আমের অফ সিজন। দুইয়ে মিলে এবার আমের ফলন গত কয়েক বছরের চেয়ে কম হবে বলেই ধরে নেওয়া হচ্ছে। এদিকে আমের ফলন যাই হোক, এবার বাজার নিয়ে রয়েছে চরম অনিশ্চিয়তা। বিশেষ করে করোনা আতঙ্কের কারণে এখনো পাইকারি কোনো ব্যাপারী নামেননি আমের বাগান কিনতে। এতে যেসব কৃষক বা চাষি বছরজুড়ে আমের দিকে তাকিয়ে থাকেন, তারা রয়েছেন চরম শঙ্কায়। এবারও আমের বাজার কম হলে কৃষকদের মাথায় হাত পড়বে বলেও মনে করছেন তারা। যাদের অনেকেই বাগান লিজ নিয়ে আমের উৎপাদন করে থাকেন। অন্যদিকে রাজশাহীতে আজ ১৫ মে থেকে আম পাড়ার সময় বেঁধে দিলেও আরো কয়েকদিন লাগবে বাজারে আম আসতে। কারণ এবার আম এখনো সেভাবে পরিপক্ক হয়নি। ফলে প্রকৃত আমচাষিদের আম বাজারে আসবে আরো কয়েকদিন পরে। বাজার শুরু হওয়ার পরেই আমচাষিরা বুঝতে পারবেন এবার দাম কেমন যাবে। তবে এখনো রাজশাহীতে এবার আমের বাগান পাইকারি দরে তেমন বেচাকেনা হচ্ছে না বলে চাষিরা জানান। এবার আমের তেমন কোনো চাহিদা নাই।
গতবার এরই মধ্যে আমার আমের বাগান বিক্রি হয়ে যায় পাইকারিভাবে। কিন্তু এবারও কোনো ক্রেতাই আসেনি। আবার আমের ফলনও অনেক কম হবে। গত বছর যে গাছ থেকে ২০ মণ আম হয়েছে এবার সেখানে ১০ মণও হবে কিনা সন্দেহ রয়েছে। একজন চাষি জানান, ‘এবার আমের দাম না পেলে মারাত্মভাবে ক্ষতির মুখে পড়বো। কারণ গত দুই বছর ধরেই প্রায় লোকসান হয়ে আসছে। এবারো দাম তেমন হবে না বলেই মনে হচ্ছে। করোনা আতঙ্কে এখনো পাইকারি আমের ক্রেতারা রাজশাহীতে আসেননি। এই অবস্থা চলতে থাকলে যে বাগান দেড় লাখ টাকায় কেনা আছে, সেখানে ৫০ হাজার টাকার আমও হয়তো বিক্রি হবে না। এবার আমের ফলনও অনেক কম।’
এদিকে প্রশাসনের বেঁধে দেয়া সময় অনুযায়ী আজ শুক্রবার থেকে রাজশাহীর বাজারে আঁটি বা গুটি জাতের আম নামার কথা রয়েছে। এছাড়াও গোপালভোগ আম চাষিরা নামাতে পারবেন ২০ মে থেকে। রানীপছন্দ ও লক্ষণভোগ বা লখনা ২৫ মে, হিমসাগর বা খিরসাপাত ২৮ মে, ল্যাংড়া ৬ জুন, আম্রপালি ১৫ জুন এবং ফজলি ১৫ জুন থেকে নামানো যাবে। সবার শেষে ১০ জুলাই থেকে নামবে আশ্বিনা এবং বারী আম-৪। তবে এবার প্রতিটা আমই আরো দেরিতে বাজারে আসবে বলে জানান চাষিরা।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ