বুধবার ০৫ আগস্ট ২০২০
Online Edition

মুশফিকের ব্যাট ১৭ লাখ টাকায় কিনলেন শহীদ আফ্রিদি

স্পোর্টস রিপোর্টার : অবশেষে নিলামে বিক্রি হলো মুশফিকুর রহিমের ডাবল সেঞ্চুরির প্রিয় ব্যাট। মুশফিকের ব্যাটটি কিনেছেন পাকিস্তানের অলরাউন্ডার শহিদ আফ্রিদি। তিনি তার ফাউন্ডেশন, আফ্রিদি ফাউন্ডেশনের নামে এই ব্যাট কিনে নিয়েছেন ২০ হাজার ডলারে (প্রায় ১৭ লাখ টাকায়)। ২০১৩ সালে গলে শ্রীলংকার বিপক্ষে বাংলাদেশের হয়ে প্রথম টেস্ট ডাবল সেঞ্চুরি করেছিলেন মুশফিকুর রহিম। গত ৯ মে মুশফিকের জন্মদিনেই শুরু হয় তার প্রিয় ব্যাটের নিলাম। ৫ দিনব্যাপী এই নিলামের আয়োজন করে পিকাবো। সঙ্গী ছিল মুশফিকের ম্যানেজমেন্ট পার্টনার নিবকো এবং স্পোর্টস ফর লাইফ। যা শেষ হয়েছে বৃহস্পতিবার রাতে। দেশ-বিদেশে ক্রিকেটপ্রেমীরা নিলামে অংশ নেয়ার সুযোগ পেয়েছেন। লাইভে এসে মুশফিক নিজেই জানালেন তার ব্যাটের নিলামের আপডেট। শুরু থেকেই করোনার বিরুদ্ধে লড়াই করছেন শহিদ আফ্রিদি। তার আফ্রিদি ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকেই শুরু থেকেই খাদ্য এবং আর্থিক সহায়তা করে যাচ্ছিলেন তিনি। এবার সেই আফ্রিদি মুশফিকের ব্যাট কিনে নিয়ে দাঁড়ালেন বাংলাদেশে করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত অসহায় মানুষের পাশে। লাইভে এসে মুশফিক বলেন, ‘আমি প্রথমেই ধন্যবাদ জানাতে চাই, নিলামে যারা অংশগ্রহণ করেছেন তাদেরকে। কারণ বেশ কিছু সত্যিকারের বিডার এই পাঁচদিনে অংশ নিয়েছিলেন এতে। আমি এখনই অ্যানাউন্স করতে চাই, আমার সেই ব্যাটটি  কে কিনে নিয়েছেন। 

আমি মনে করি যে, পৃথিবীর যারা ক্রিকেট খেলা  দেখেন, তারা সবাই তাকে চেনেন। তিনি হচ্ছেন পাকিস্তানের সাবেক অধিনায়ক শহীদ আফ্রিদি। তিনি তার ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে এই ব্যাটটি কিনেছেন। আমি খুবই আনন্দিত  যে, তার মত একজন ব্যক্তিত্ব আমার এই ব্যাটটি কিনে নিয়েছেন। আমাদের যে মহৎ একটা উদ্যোগ ছিল, সেটাতে তিনি অংশগ্রহণ করেছেন।’ এক ভিডিও বার্তায় আফ্রিদি বলেন, ‘আসসালামুআলাইকুম মুশফিক, আপনি দেশের মানুষের জন্য যা করছেন তা সত্যিই প্রশংসনীয়। সত্যিকারের নায়করাই একাজ করতে পারে। আমরা সবাই মিলে খারাপ একটা সময় পার করছি। এ সময় আমাদের একে অন্যকে সাহায্য করা জরুরি যাতে করে এই পরিস্থিতি থেকে বেড়িয়ে আসতে পারি। অতীতে বাংলাদেশে আমি যে পরিমানে ভালবাসা ও সম্মান পেয়েছি তা আমি সারা জীবন মনে রাখবো। পাকিস্তানের জনগন ও শহীদ আফ্রিদি ফাউন্ডেশনের পক্ষ  থেকে, আমি আপনার ব্যাটটা কিনে আপনার সঙ্গী হতে চাই এই পথ চলায়। আপনার জন্য আমার প্রার্থনা সব সময় থাকবে, আশা করছি আল্লাহ আমাদের সাহায্য করবেন এই মহামারী পরিস্থিতি থেকে উত্তরণে। আপনার সাথে আবারো মাঠে আমার  দেখা হবে তাড়াতাড়ি। ধন্যবাদ।’ ফলস কলের দৌরাত্ম্যে তার ব্যাটের নিলাম প্রায় ভেস্তে যেতেই বসেছিল এবং নিলামের স্বাভাবিকত্বও অনেকটাই নষ্ট হয়ে গিয়েছিল। যে কারণে, কিছুক্ষণের জন্য নিলামও বন্ধ রাখতে বাধ্য হয়েছিল আয়োজকরা। তারপরও শহীদ আফ্রিদি বাংলাদেশেরই আরেক ক্রিকেটার তামিম ইকবালের মাধ্যমে এ নিলামে যুক্ত হয়ে ২০ হাজার মার্কিন ডলারে (প্রায় ১৭ লাখ টাকা) মুশফিকের ব্যাট কিনে পুরো নিলাম প্রক্রিয়ায় একটি ইতিবাচক সমাধান এনে দেন। পাকিস্তানের সাবেক এ অলরাউন্ডারকে ধন্যবাদ জানানোর পাশাপাশি দেশে যারা সততার সাথে নিলামে অংশ নিয়েছেন, তাদের আন্তরিকতার জন্যও ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন মুশফিক। বিপরীতে যারা ফলস কল দিয়ে এ নিলামের স্বাভাবিকত্ব নষ্ট করেছেন এবং নিলাম প্রক্রিয়াকে এক কথায় নষ্ট করেছেন, তাদের প্রতিও চরম তিরষ্কার দিয়েছেন মুশফিকে। ফলস কল কারিদের উদ্দেশ্যে মুশফিকের ক্ষোভ মাখা কন্ঠে বলেন, ‘ফলস কল না হলে হয়তো নিলামটি আরও সাজানো-গোছানো হতে পারতো। ওভারঅল সবাইকে ধন্যবাদ। তবে ফেক বিডারদের বলতে চাই, এমন একটি মানবিক উদ্যোগে আপনারা যে অমানবিক কাজ করেছেন, তা কি একবারও ভেবে দেখেছেন আপনারা?’

আকবরের আলীর জার্সি ও গ্লাভস কিনে নিয়েছেন এক যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসি 

একই নিলামে তোলা হয়েছিল যুব বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ক আকবর আলীর জার্সি এবং গ্লাভস। পিকাবোর মাধ্যমে ৫ দিন ধরে চলে এই নিলাম। নিলাম থেকে যুব বিশ্বকাপজয়ী আকবর আলির জার্সি এবং গ্লাভস কিনে নিয়েছেন েেমাঃ রিয়াজুল ইসলাম জুয়েল নামে এক যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসি। তিনি এই দুটি আইটেম কিনেছেন ২ হাজার ডলারে (প্রায় ১ লাখ ৭০ হাজার টাকা)। নিবকো থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, বাংলাদেশ অনুর্ধ-১৯ দলের বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ক আকবর আলীর বিশ্বকাপ ফাইনালে ব্যবহৃত জার্সি ও গ্লাভস কিনেছেন আমেরিকান প্রবাসী বাঙালি মোঃ রিয়াজুল ইসলাম জুয়েল ২,০০০ (দুই হাজার) ইউ এস ডলার দিয়ে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ