বৃহস্পতিবার ১৩ আগস্ট ২০২০
Online Edition

এমপি-মন্ত্রী হওয়া সময়ের উপর ছেড়ে দিয়েছি--সাকিব

স্পোর্টস রিপোর্টার : সাকিব আল হাসানের রাজনীতিতে আসার খবর অনেক পুরোনো। নিজেই জানিয়েছেন, সুযোগ পেলে তিনি খেলা চলাকালীন রাজনীতির মাঠে নামবেন। খেলোয়াড়ি জীবন চলাকালীন জাতীয় নির্বাচন করে হইচই ফেলে দিয়েছিলেন মাশরাফি বিন মর্তুজা। ২০১৮ সালের নির্বাচনে নিজ জন্মস্থান নড়াইলের হয়ে সংসদ সদস্য হয়েছেন তিনি। মাশরাফি মনোয়নপত্র কেনার দিন থেকেই শুরু হয় নানাবিধ আলোচনা। জাতীয় দলের অধিনায়ক থাকা অবস্থায় মাশরাফির এ সিদ্ধান্ত অনেকেই সহজভাবেই নেননি। শুধু মাশরাফি নন, তখন একই আলোচনা শোনা গিয়েছিল সাকিবের ব্যাপারেও। মাশরাফির সঙ্গে সাকিবও হয়তো দাঁড়াবেন জাতীয় নির্বাচনে। শেষ পর্যন্ত তা হয়নি এবং সাকিবের নির্বাচনে দাঁড়ানোর গুঞ্জনের সত্যতা কতখানি-সে ব্যাপারেও জানা যায়নি বিস্তারিত কিছু। তখন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পরামর্শে এ সিদ্ধান্ত থেকে সরে দাঁড়ান সাকিব এমনটাই প্রচার পেয়েছিল। এ বিষয়ে রহস্যটা রহস্যই রাখার কথা বলেছেন সাকিব। জানিয়েছেন এটা খুবই গোপনীয়তার বিষয়, যা কখনও জনসম্মুখে না আসাই ভালো। গতকাল জার্মান সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে এক ভিডিও সাক্ষাৎকারে এ বিষয়ে কথা বলেন সাকিব। তবে নির্বাচর করা নিয়ে এখানেও সরাসরি কিছু বলেননি সাকিব। জানিয়েছেন গোপন বিষয় গোপন থাকাই ভালো। তবে এমপি,মন্ত্রী হওয়া না হওয়ার বিষয়টি সময়ের হাতেই ছেড়ে দিয়েছেন সাকিব। জার্মান সংবাদ মাধ্যম ডয়েচে ভেলে-তে দেওয়া সাক্ষাতকারে বিষয়টি নিয়ে সাকিব বলেছেন,‘আসলে কিছু জিনিস গোপন থাকাই ভালো। যে বিষয়টি জানতে চাচ্ছেন সেটা প্রকাশ পাওয়াই উচিত না! আমি যদি রাজনীতিতে আসি তাহলে সেটাও (২০১৮ সালে নমিনেশন পাওয়া) প্রকাশ পাবে না। আবার যদি না আসি সেটাও আসবে না। এটা এমন একটি সিক্রেট যেটা চাইনা কখনো কেউ জানুক। কিছু কিছু জায়গা মানুষের কৌতূহল জাগানোর মতোই জায়গা। যে বিষয়টি নিয়ে কথা বলছেন সেখানেও মানুষের কৌতূহল থাকাই স্বাভাবিক। আমি যদি আমার জায়গা না থাকতাম তাহলে আমারও কৌতূহল জাগত। এই দুই-একটা কৌতূহল মানুষের মনে থাকার দরকার। সব কৌতূহল যদি আপনি প্রকাশ করে দেন তখন মানুষের আমাকে নিয়ে আগ্রহ থাকবে না। সেজন্য বলছি এটা নিয়ে আগ্রহ থাক।’ তবে এমপি, মন্ত্রী হওয়ার অভিলাষ আছে কিনা জানতে চাইলে সাকিব বলেন,‘এগুলো সময়ের ওপর ছেড়ে দিতে হবে। ভবিষ্যতে কি হবে তা বলা খুব কঠিন। করোনাভাইরাসের সময় আমি এতোটুকু শিক্ষা পেয়েছি, কাল কি হবে সেটা নিশ্চিত নয়। এই জায়গা থেকে আমি বলতে চাই, খুব বেশি দূরের বিষয়ে আমি ফোকাস করতে চাই না। যদি সুযোগ আসে আমি স্বাগত জানাবো সত্যি কথা। যদি সুযোগ না আসে সেটা নিয়েও আমার আফসোস থাকবে না।’ ক্রিকেটে সবাই চান সাকিব আল হাসানের মতো হতে। তবে সাকিবের নিজের মতামত হলো, কেউ যেন তার মতো না হয়। যেকোন মানুষ নিজের ধরন অনুযায়ী এগুলেই সেরাটা বের করে আনা সম্ভব। তাই কেউ যেন সাকিব বা অন্য কোন খেলোয়াড়ের মতো হতে না চায়, সেই পরামর্শই দিয়েছেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার। সাকিব বলেছেন ‘কেউ যদি আমার মতো হতে চায়, আমি বলব যে, না! মানে হওয়ার দরকার নেই। সে তার মতো হলে আসলে নিজের সেরা জিনিসটা বের করতে পারবে। তাই আমি কখনও বলি না যে, আমার মতো বা অন্য কোন খেলোয়াড়ের মতো বা অন্য কারো মতো কেউ হোক। হ্যাঁ কিছু কিছু জিনিস হয়তো অনুসরণ করা যায়। আমিও এমন না যে কাউকে অনুসরণ করি না মাঝে মাঝে। অন্য একজন খেলোয়াড়ের ভালো জিনিসগুলো আমি নিজের মধ্যে নিতেই পারি। তার মানে এই না যে আমি ওদের মতোই হবো।’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ