ঢাকা, সোমবার 18 October 2021, ২ কার্তিক ১৪২৮, ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩ হিজরী
Online Edition

'আংগোরে কেউ এান দেয় না'

আব্দুস ছামাদ খান,ভ্রাম্যমান প্রতিনিধি: 

ব্যাহের আতেই মোবাইল, বাইত্তে বইস্যা ফেসবুকে বেবাক খবর আগেই পায়, পেপার ব্যাছা এবি কুইম্যা গ্যাছে এর মধ্যে কয়েক সপ্তাহ ধইর‌্যা করোনাভাইরাস আসার পর থেইকা অপিস-টপিস, স্কুল-কলেজ সব বন্ধ। কেউ বাইরে আইসেও না, ঘরে থাইক্যা টিপিতে খবর দ্যাহে। পেপার দিতে মানা করছে।এহন কি কইরা খাওন জোটামু ? আমরা তো কোন খাদ্য সহায়তা পাই না। আংগোরে কেউ ত্রাণ দেয় না- কথা গুলো এভাবেই বললেন, সিরাজগঞ্জ জেলার এনায়েতপুরের বয়োবৃদ্ধ পত্রিকা হকার আতাউর রহমান।

এনায়েতপুর থানার সবেচেয়ে প্রবীণ পত্রিকা হকার তিনি। ৬৯ বছর বয়সী এই পত্রিকা হকারের ব্যক্তিগত জীবনে নেই স্ত্রী সন্তান। এই বয়সে এসে খাদ্য কষ্টে ভুগছেন তিনি। তার মত একই অবস্থা বেলকুচি, চৌহালী ও এনায়েতপুর উপজেলার প্রায় ২৬ জন পত্রিকা বিক্রেতারা মানবেতর জীবনযাপন করছে। গত কয়েক সপ্তাহ ধরে করোনার প্রভাবে অঘোষিত লকডাউন চলছে ফলে পত্রিকা বিক্রি কমেছে। সকল ধরনের দোকানপাট, সরকারি-বেসরকারী প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। তাই আগের মত পত্রিকা বিক্রি করতে না পেরে মানবেতর জীবন যাপন করছেন পত্রিকার এজেন্ট ও বিক্রেতারা।

জানা যায়, পত্রিকা বিক্রি করে সংসার চালানো এসব পরিবারের অর্থ উপার্যন বন্ধ হবার পথে। এখন প্রতিদিন গড়ে ৫০-১০০ টাকা ইনকাম হয় এই টাকা দিয়ে সংসার চালানো অনেক কষ্টসাধ্য। তাই এই আপদকালীন সময়ে সরকার ও বিত্তবানদের সহযোগীতা চেয়েছেন তারা। আর তা নাহলে তাঁদের পরিবার নিয়ে না খেয়ে থাকতে হবে।

এ বিষয়ে পত্রিকা বিক্রেতা শুকুমার চন্দ্র রায় ও বুলবুল ভুইয়া জানান, পত্রিকা বিক্রি করা ছাড়া আর অন্য কোন কাজ জানিনা। তা এখন বন্ধ হওয়ার পথে। আগে পত্রিকা বিক্রিকরে ৪ থেকে ৫শ' টাকা আয় হতো। এখন ৫০ থেকে ১০০ টাকা হয়। আমাদের দিন এখন খেয়ে না খেয়ে যাচ্ছে। পত্রিকা অফিস ও সরকারের পক্ষ থেকে আমরা কিছুই পাইনি।

বেলকুচি,চৌহালী ও এনায়েতপুরে সংবাদপত্রের এজেন্ট দৌলত মন্ডল এই প্রতিবেদককে জানান, সত্যি বলতে কি আমার পত্রিকার হকাররা অনেক কষ্টে আছে। অনেকে সরকার ঘোষিত ত্রাণ সামগ্রী পেলেও আমাদের কোন পত্রিকার হকারকে সহায়তা করা হয়নি। সরকারীসহ জনপ্রতিনিধিরা নেতাকর্মীদের মাঝে ত্রান দিলেও আমরা এখন পর্যন্ত ত্রাণ সামগ্রী পাইনি। পত্রিকা অফিস থেকেও কিছু আসেনি। আমাদের অবস্থা এখন শোচনীয়। এ বিষয়ে বেলকুচি উপজেলার ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ রহমত উল্লাহ ও চৌহালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবু তাহির জানান, এলাকার পত্রিকা বিক্রিতাদের তালিকা করে কিছু খাদ্য সহায়তা দেওয়া হবে।

ডিএস/এএইচ

 

ছবির ক্যাপশনঃ  বয়বৃদ্ধ পএিকা বিক্রেতা হকার আতাউর রহমান। 

 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ