বুধবার ০৫ আগস্ট ২০২০
Online Edition

বড়াইগ্রামে দুই গ্রামবাসীদের মধ্যে সংঘর্ষে ১০ জন আহত ॥ আটক ৭

বড়াইগ্রাম (নাটোর) সংবাদদাতা: বড়াইগ্রামে সরকারি মৎস্য অভয়াশ্রম থেকে মাছ ধরাকে কেন্দ্র করে দুই গ্রামবাসীর মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষে চার পুলিশ ও গ্রাম পুলিশসহ কমপক্ষে ১০ জন আহত হয়েছেন। এ সময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ ৬ রাউন্ড ফাঁকা গুলী ছোঁড়াসহ সাতজনকে আটক করেছে। রোববার দুপুরে উপজেলার জোনাইল ইউনিয়নের ভিটা কাজিপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে নাটোরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মীর আসাদুজ্জামান খান ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোহাইমিনা শারমিন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।  জোনাইল ইউপি চেয়ারম্যান তোজাম্মেল হক জানান, রোববার পাশের গুরুদাসপুর উপজেলার ধারাবারিষা ও শিধুলীসহ কয়েকটি গ্রামের প্রায় আড়াই শতাধিক মানুষ পলো নিয়ে ভিটাকাজিপুরের চেচির ধর নামে পরিচিত মৎস্য অভয়াশ্রমে মাছ ধরতে যায়। কিন্তু ভিটাকাজিপুরের বাসিন্দারা তাদের বাধা দেন। এ সময় তর্ক-বিতর্ক ও ধাওয়া-পাল্টার এক পর্যায়ে সংঘর্ষ ঘটলে কমপক্ষে ৬ জন গ্রামবাসী আহত হন। খবর পেয়ে পুলিশের একটি টিম সেখানে গেলে মাছ ধরতে আসা লোকজন পুলিশের সঙ্গেও সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এতে দুজন পুলিশ সদস্য ও দুজন গ্রাম পুলিশ আহত হন। এ সময় পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ৬ রাউন্ড ফাঁকা গুলী ছোঁড়ে। পরে বড়াইগ্রাম ও গুরুদাসপুর থানা থেকে অতিরিক্ত পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এ সময় পুলিশের উপর হামলার অভিযোগে সাত জনকে আটক করেছে পুলিশ। 

 তবে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত আহত পুলিশ সদস্য ও আটকদের নাম জানা যায়নি।  এ ব্যাপারে বড়াইগ্রাম থানার ওসি (তদন্ত) সুমন আলী গুলী ছোঁড়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে ইতোমধ্যে সাতজনকে আটক করা হয়েছে। অবশিষ্টদের ধরতে অভিযান চলছে। 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ