মঙ্গলবার ১১ আগস্ট ২০২০
Online Edition

ইকোপার্কে ৩৩ পশুপাখির মৃত্যুর বিষয়ে প্রতিবেদন চান হাইকোর্ট

 

স্টাফ রিপোর্টার: সিলেটের টিলাগড়ে বন বিভাগের ‘বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ কেন্দ্রের (সিলেট ইকোপার্ক) ৩৩ পশুপাখির মৃত্যুর বিষয়ে অনুসন্ধান প্রতিবেদন চেয়েছেন হাইকোর্ট। একইসঙ্গে একটি রুলও জারি করা হয়েছে। রুলে সিলেটের টিলাগড়ে বন বিভাগের ‘বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ কেন্দ্রের (সিলেট ইকোপার্ক) ৩৩ পশুপাখির জীবন রক্ষায় বিবাদীদের ব্যর্থতা কেন বে আইনি, আইনগত কর্তৃত্ববহির্ভূত ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চাওয়া হয়েছে।

আগামী চার সপ্তাহের মধ্যে পরিবেশ বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের সচিব, মৎস ও প্রাণী সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব, প্রধান বন সংরক্ষক, পশু সম্পদ অধিদফতরের মহাপরিচালক, উপ বন সংরক্ষক ও তানহা এন্টারপ্রাইজের ব্যবস্থাপনা পরিচালককে রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

সুপ্রিম কোর্টের এক আইনজীবীর করা রিটের প্রাথমিক শুনানি করে গতকাল বৃহস্পতিবার ( ৫ মার্চ ) হাইকোর্টের বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ রুলসহ এ আদেশ দেন।

বুধবার একটি ইংরেজি দৈনিকে সিলেট বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ কেন্দ্র যেন ‘কনডেম সেল’ শীর্ষক শিরোনামে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদন যুক্ত করে রিট আবেদনটি করেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মনোজ কুমার ভৌমিক।

তিনি জানান, ৩৩ পশুপাখির মৃত্যুর বিষয়ে ওই ইকো পার্ক ব্যবস্থাপনা প্রতিষ্ঠান তানহা এন্টারপ্রাইজের দায়সারা পরিচর্যা, রক্ষণাবেক্ষণ দায়ী কি-না তার অনুসন্ধান প্রতিবেদন চেয়েছেন হাইকোর্ট। মৎস ও প্রাণী সম্পদ মন্ত্রণালয় এবং পরিবেশ বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের সচিবকে ৩০ দিনের মধ্যে এ প্রতিবেদন দিতে নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

এছাড়াও সংরক্ষণ কেন্দ্রটির নিরাপদ ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করার পাশাপাশি পশুপাখিদের জীবন রক্ষায় সিলেটের টিলাগড়ের সংরক্ষণ কেন্দ্রটির পশু হাসপাতালে পর্যাপ্ত পশু চিকিৎসক, নার্স দিয়ে দ্রুত একটি ইউনিট স্থাপনেরও নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়, সিলেটের টিলাগড় ইকো পার্ক প্রাণীদের জন্য এক ভয়ঙ্কর মরণফাঁদে পরিণত হয়েছে। বন বিভাগের কর্মকর্তাদের দেয়া তথ্য অনুযায়ী, গত কয়েকমাসে বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ কেন্দ্রে অন্তত ৩৩টি প্রাণী ও পাখি মারা গেছে।

টিলাগড় বিটের ভারপ্রাপ্ত বন কর্মকর্তা চয়নব্রত চৌধুরী জানান, এর মধ্যে চারটি হরিণ, চারটি চুকার প্যাট্রিজ, চারটি ময়ূর এবং একটি জলা মোরগ মারা গেছে। এ ছাড়া, ২০টি লাভ বার্ড মারা গেছে কিংবা খাঁচা থেকে পালিয়েছে। তবে মৃত্যুর সংখ্যা আরও বেশি বলে জানিয়েছেন প্রাণীদের তদারকি করেন এমন এক কর্মচারী। তিনি বলেন, মৃত প্রাণীর সংখ্যা ৫০টিরও বেশি হবে। কমপক্ষে আরও ১০টি প্রাণীর কোনো খোঁজ নেই।

প্রতিষ্ঠার মাত্র দুই বছরের মধ্যে এতগুলো প্রাণীর মৃত্যুর কারণ হিসেবে অভিজ্ঞ জনবল ও উপযুক্ত পরিবেশের অভাবকে দায়ী করছেন প্রাণী অধিকার কর্মীরা।

২০১৮ সালের অক্টোবর মাসে সংরক্ষণ কেন্দ্রটি তানহা এন্টারপ্রাইজ নামে একটি ইকো পার্ক ব্যবস্থাপনা প্রতিষ্ঠানের কাছে পাঁচ লাখ পাঁচ হাজার টাকায় এক বছরের জন্য ইজারা দেয়া হয়। ২০১৯ সালের অক্টোবরে ওই একই প্রতিষ্ঠান সাত লাখ ৫৭ হাজার টাকায় আবারও এক বছরের জন্য সংরক্ষণ কেন্দ্রটি ইজারা নেয়।

তানহা এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী আনোয়ার হোসেনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘চুক্তি অনুযায়ী আমাদের দায়িত্ব প্রবেশ ও পার্কিংয়ের টিকিট বিক্রি, পশুপালকদের পরিচালনা ও সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করা। আমরা পশুর যতœ নিতে বঙ্গবন্ধু সাফারি পার্ক থেকে দুজন প্রাণী রক্ষককে এনেছি। ফলে এ বিষয়ে কোনো সমস্যা নেই।’

তার অভিযোগ, সংরক্ষণ কেন্দ্রটি অপরিকল্পিতভাবে নির্মাণ করা হয়েছে। এটাই যাবতীয় সমস্যার কারণ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ